Wednesday, June 19, 2024
বাড়িরাজ্য"প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা" প্রকল্পটি কারিগর শ্রমিকদের দক্ষতা বৃদ্ধি করবে : প্রতিমা

“প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা” প্রকল্পটি কারিগর শ্রমিকদের দক্ষতা বৃদ্ধি করবে : প্রতিমা

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১৭ সেপ্টেম্বর :  প্রকৃতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে ক্ষুদ্র শিল্পীরা মনের মাধুরী দিয়ে ভারতবর্ষকে নির্মাণ করেছেন। তাদের সম্মান জানাতে প্রধানমন্ত্রী তাঁর জন্ম দিনে নতুন  প্রকল্পের সূচনা করেছেন। রবিবার রবীন্দ্রভবনে পি এম বিশ্বকর্মা কুশল সম্মান যোজনার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই কথা বলেন কেন্দ্রীয় প্রতি মন্ত্রী প্রতিমা ভৌমিক। এদিন বিশ্বকর্মা কুশল সম্মান যোজনার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কর্মকার, স্বর্ণালঙ্কার, হস্ততাত শিল্পী সহ বিভিন্ন পেশার সঙ্গে যুক্ত মানুষ এই প্রকল্পের মাধ্যমে উপকৃত হবেন। ও বি সি এবং এস সি সম্প্রদায়ের মানুষ এই ১৮ টি পেশার সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন।

তারাও এই প্রকল্পের সুবিধা সরাসরি পাবেন। এর জন্য ১৭ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। ১৮ টি পেশার মানুষকে প্রশিক্ষন দেওয়া হবে। প্রশিক্ষন শেষে সহজ শর্তে ৫ শতাংশ বার্ষিক সুদে সর্বাধিক ২ লক্ষ টাকা ঋনদান করা সহ তাদের আর্থিক সহায়তা এবং উৎপাদিত সামগ্রী বিক্রির ব্যবস্থা করা হবে। এদিন ভার্চুয়াল মাধ্যমে এই প্রকল্পের সূচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। রবীন্দ্রভবনে এই প্রকল্প সূচনা অনুষ্ঠানে ভার্চুয়াল মাধ্যমে এছাড়াও অংশ নেন মন্ত্রী শান্তনা চাকমা, পশ্চিম জেলার জেলা শাসক দেবপ্রিয় বর্ধন সহ অন্যান্যরা। ভারতবর্ষ কেবল জন সংস্কৃতিতে বৈচিত্র নয়, এই বৈচিত্রের মধ্যে পরিবেশ , আবহাওয়া রয়েছে। প্রকৃতির মেধাতে চলে ভারতবর্ষ।

 সেই প্রকৃতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে ক্ষুদ্র শিল্পীরা মনের মাধুরী দিয়ে ভারতবর্ষকে নির্মাণ করেছেন। তাদের সম্মান জানাতে প্রধানমন্ত্রী তাঁর জন্ম দিনে এই প্রকল্পের সূচনা করেছেন বলে জানান কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী প্রতিমা ভৌমিক। গত নয় বছর যাবত সমাজের অন্তিম ব্যক্তিকে তুলে আনার জন্য একাধীক প্রকল্পের বাস্তবায়ন ঘটিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বলে জানান তিনি। দেশে বহু প্রকল্প এসেছে। কিন্তু প্রকল্প জনগণের জন্য এবং তার সঠিক বাস্তবায়ন অতীতে দেখা যায়নি। আগের প্রকল্প গুলি ভারতবর্ষে ফলপ্রসূ হয়নি। যা করে দেখিয়েছেন নেরন্দ্র মোদী। এই ধরনের একাধিক সফল প্রকল্পের বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরে জানান মন্ত্রী রতন লাল নাথ। যারা সমালোচনা করেছিল তারাই এর সুবিধা নিচ্ছে বলে জানান তিনি। আত্ম নির্ভর হওয়ার মানসিকতা এখন মানুষের মধ্যে গড়ে উঠেছে বলে জানান মন্ত্রী রতন লাল নাথ। স্থানীয় পণ্য, শিল্প এবং কারুশিল্পের মাধ্যমে প্রাচীন ঐতিহ্য, সংস্কৃতি এবং বৈচিত্র্যময় ঐতিহ্যকে বাঁচিয়ে রাখার এবং সমৃদ্ধ করার  জন্যই এই প্রকল্প। এই প্রকল্প মৌলিক এবং উন্নত প্রশিক্ষণের সাথে দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য ১৫,০০০ টাকার  টুলকিট ইনসেনটিভ, প্রধান ধাপে ১ লাখ এবং দ্বিতীয় ধাপে দুই লাখ পর্যন্ত জামানত-মুক্ত ক্রেডিট সহায়তা প্রদান করা হবে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য