Wednesday, August 17, 2022
বাড়িখেলাআম্পায়ারের ভুল নিয়ে সিন্ধুর অভিযোগ সত্যি প্রমাণিত, ক্ষমা চাইল ব্যাডমিন্টন এশিয়া টেকনিক্যাল...

আম্পায়ারের ভুল নিয়ে সিন্ধুর অভিযোগ সত্যি প্রমাণিত, ক্ষমা চাইল ব্যাডমিন্টন এশিয়া টেকনিক্যাল কমিটি

নয়াদিল্লি, ৫ জুলাই (হি.স.) : এশিয়া চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফাইনালে আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তের ফলে তাঁকে হারতে হয়েছিল বলে অভিযোগ করেছিলেন সিন্ধু। সেই অভিযোগ সত্যি বলে প্রমাণিত হয়েছে। সিন্ধুর সেই অভিযোগ সত্যি, মেনে নিয়ে তাঁর কাছে ক্ষমা চেয়েছে ব্যাডমিন্টন এশিয়া টেকনিক্যাল কমিটি।

কমিটির চেয়ারপার্সন চিহ শেন চেন একটি চিঠিতে সিন্ধুকে লিখেছেন, ‘আম্পায়ার যে ভুল করেছেন তাতে আমরা দুঃখিত। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে এই মুহূর্তে ভুল শোধরানোর কোনও জায়গা নেই। যাতে আগামী দিনে এই ধরনের ভুল না হয় সে দিকে আমরা নজর রাখব। আশা করছি খেলোয়াড়সুলভ মানসিকতা নিয়ে সিন্ধু এই সিদ্ধান্ত মেনে নেবেন।’এশিয়া চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফাইনালে জাপানের আকানে ইয়ামাগুচির কাছে হেরে ব্রোঞ্জ নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল সিন্ধুকে। প্রথম সেট জেতার পরেও ম্যাচ হারায় ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন বিশ্বের প্রাক্তন এক নম্বর মহিলা ব্যাডমিন্টন তারকা। ম্যাচে হারার জন্য আম্পায়ারদের উপর দায় চাপিয়েছিলেন তিনি। তাঁর অভিযোগ ছিল, দ্বিতীয় সেটে অবৈধ ভাবে ইয়ামাগুচিকে পেনাল্টিতে একটি পয়েন্ট দিয়েছিলেন আম্পায়ার। তার পরেই খেলার ছবি বদলে গিয়েছিল। সেই অভিযোগ মেনে নিয়েছে ব্যাডমিন্টন এশিয়া।

প্রথম সেট ২১-১৩ ব্যবধানে জেতার পরে দ্বিতীয় সেটে ১৪-১১ ব্যবধানে এগিয়ে থাকা অবস্থায় সিন্ধুর বিরুদ্ধে পেনাল্টিতে একটি পয়েন্ট দিয়েছিলেন আম্পায়ার। তাঁর যুক্তি ছিল, সার্ভিস করার সময় অনেক বেশি সময় নষ্ট করছেন সিন্ধু। আম্পায়ারের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সিন্ধু বলেছিলেন, ‘‘ইয়ামাগুচি তখন তৈরি ছিল না। হঠাৎ করে আম্পায়ার ওকে পয়েন্ট দিয়ে দেন। তখন আমি ১৪-১১ পয়েন্টে এগিয়ে ছিলাম। সেটা ১৫-১১ হতে পারত। কিন্তু ১৪-১২ হয়ে যায়। তার পরে ও টানা পয়েন্ট পায়। সেখানেই খেলা ঘুরে যায়। আমি ম্যাচ জিতে ফাইনালে উঠতে পারতাম। সোনাও পেতে পারতাম।’’আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রধান রেফারির কাছে আবেদন করেছিলেন সিন্ধু। তাতেও কিছু হয়নি। সিন্ধু বলেছিলেন, ‘‘আমি প্রধান রেফারির কাছে অভিযোগ করি। উনি বলেন, যা হওয়ার হয়ে গিয়েছে। উনি অন্তত রিপ্লে দেখে কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারতেন। তা হলে হয়তো বিষয়টা অন্য রকম হত।’’

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য