Saturday, June 22, 2024
বাড়িরাজ্যআগরতলা আদালত চত্বরে পথ অবরোধ আইনজীবীদের, হস্তক্ষেপ করলেন মন্ত্রী

আগরতলা আদালত চত্বরে পথ অবরোধ আইনজীবীদের, হস্তক্ষেপ করলেন মন্ত্রী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২৯ মে : একদিকে কর্মী সংকট, অপরদিকে মান্না দের আমলের যন্ত্রাংশ দিয়ে চলছে রাজ্যের বিদ্যুৎ নিগম। সামান্য বৃষ্টি বা ঝড় হলেই ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে বিদ্যুৎ সংযোগ। আর সচিবালয়ে বসে রাজ্যবাসীকে গল্প শোনাচ্ছেন দপ্তরের মন্ত্রী। বিগত দিনে যেসব ঘটনা রাজ্যে কখনো সংগঠিত হয়নি, সেসব ঘটনাও আজ চাক্ষুষ করছে রাজ্যবাসী। বিদ্যুৎ এবং পানীয় জলের দাবিতে রাস্তায় নামতে হয়েছে আইনজীবীদের। বুধবার সকাল ১১ টার নাগাদ আদালতে সমস্ত কাজ ফেলে রেখে তারা রাস্তায় এসেছে পথ অবরোধ করেনঞ।

তিন দিন ধরে আদালতে নেই বিদ্যুৎ, নেই পানীয় জল। কার গাফিলতি এবং কিসের উদাসীনতায় আদালতের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে তিন দিন ধরে বিদ্যুৎ নেই প্রশ্ন জেগেছে আইনজীবীদের মধ্যে। আইনজীবী সঞ্জীব চৌধুরী বলেন, বিদ্যুৎ এবং পানীয় জলের দাবীতে রাস্তায় এসে পথ অবরোধ করা অত্যন্ত দুঃখজনক বিষয়। কিন্তু আদালতে তিন দিন ধরে ন্যূনতম বিদ্যুৎ ও পানীয় জলের পরিষেবা নেই। এই বিদ্যুৎ পরিষেবা আদালতে না থাকার কারণে একটি পিটেশন দেওয়ার মতো ব্যবস্থা নেই। ত্রিপুরা বার এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে একাধিকবার ফোন করা হয়েছে। কিন্তু ফোনে বিদ্যুৎ নিগমের কর্মীদের ব্যস্ত পাওয়া গেছে। তারপর বিদ্যুৎ নিগমের অফিসে গিয়ে বিষয়টি অবগত করা হয়েছে। তারপরেও বিদ্যুৎ নিগমের কর্মীরা বিদ্যুৎ সংস্কারের কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করছে না। তাই প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে আগরতলা আদালত চত্বরে অর্থাৎ ফায়ার সার্ভিস চৌমুহনী সংলগ্ন এলাকায় পথ অবরোধ করতে বাধ্য হয়েছে আইনজীবীরা। কারণ তিন দিন ধরে আর কত অপেক্ষা করবে আইনজীবীরা? মুখ থুবড়ে পড়েছে কোর্টের কাজকর্ম।

 আরো জানান, রাস্তা অবরোধের পর ঘটনাস্থলে পুলিশ ছুটে আসে। পুলিশ অফিসাররা ষ্পষ্ট জানিয়েছে তারাও আইনজীবীদের পাশে রয়েছে। এবং পুলিশ ফায়ার সার্ভিস চৌমুহনী ও অফিস লেন সংলগ্ন এলাকায় বেরিকেড দিয়ে আইনজীবীদের পথ অবরোধে সহযোগিতা করেছে বলে জানান ত্রিপুরা বার এসোসিয়েশনের সভাপতি। পরবর্তী সময় এ খবরটি পৌছায় সংশ্লিষ্ট দপ্তরের মন্ত্রী রতন লাল নাথের কানে। শুরু হয় দৌড়ঝাঁপ। আইজিএম বিদ্যুৎ নিগমের সিনিয়র ম্যানেজার অপু পাল সহ লাইনম্যানের কর্মীরা ছুটে আসে আদালত চত্বরে। বিদ্যুৎ নিগমের সিনিয়র ম্যানেজারকে বিদ্যুৎ সংস্কার করার জন্য আদালতে ধাক্কা দিয়ে এবং টেনে নিয়ে যায় আইনজীবীরা। খবর পেয়ে খোদ মন্ত্রী রতন লাল নাথ ফোন করেন ত্রিপুরা বার এসোসিয়েশনের সভাপতি কাছে। আশ্বস্ত করেন ইতিমধ্যে বিদ্যুৎ সংস্কার করা হবে, পথ অবরোধ প্রত্যাহার করার জন্য। সিনিয়র ম্যানেজার অপু পাল জানান, তাদের কাছে কোন অভিযোগ যায়নি। কারণ ১৯১২ হেল্প লাইন নাম্বারে ফোন করা হলে সরাসরি ভুতুরিয়া স্থিত কল সেন্টারে ফোন যায়। তাই তারা এ বিষয়ে অবগত ছিল না। কিন্তু আইনজীবীদের অবরোধের পর খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে এসেছে। এদিকে আইনজীবী পীযুষ কান্তি বিশ্বাস জানান, গত একমাস ধরে দিনে চার থেকে পাঁচ ঘন্টায় বিদ্যুৎ থাকে না আদালতে। পাশাপাশি লো ভোল্টেজ চলছে। এ বিষয় নিয়ে কারা অভিযোগ শুনবে বা কাদের কাছে অভিযোগ করলে কাজ হবে সেটা তো বলতে পারছে না কেউ।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য