Wednesday, June 12, 2024
বাড়িবিশ্ব সংবাদইসরায়েলি যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা থেকে বেনিগ্যান্টজের পদত্যাগ

ইসরায়েলি যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা থেকে বেনিগ্যান্টজের পদত্যাগ

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ১০ জুন: গাজা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর ‘যুদ্ধোত্তর পরিকল্পনা দেখতে না পেয়ে’ ইসরায়েলের যুদ্ধকালীন মন্ত্রিপরিষদ থেকে পদত্যাগ করেছেন দপ্তরবিহীন মন্ত্রী বেনি গ্যান্টজ।তেল আবিবে রোববার সংবাদ সম্মেলন করে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেছেন, ‘ভারক্রান্ত হৃদয়ে’ তাকে এ সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।“দুর্ভাগ্যবশত, নেতানিয়াহু আমাদেরকে সত্যিকারের বিজয়ের দিকে যেতে বাধা দিচ্ছেন, যা চলমান বেদনাদায়ক সংঘাতকে সমর্থন করছে।”

বেনি গ্যান্টজকে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী পদের সম্ভাব্য দাবিদার হিসেবে দেখেন কেউ কেউ। পদত্যাগের পর তিনি নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার আহ্বান জানিয়েছেন নেতানিয়াহুর প্রতি।এর প্রতিক্রিয়ায় নেতানিয়াহু এক্স পোস্টে লিখেছেন, “বেনি, যুদ্ধ থেকে সরে যাওয়ার সময় এখন নয়, যোদ্ধা হিসেবে যোগ দেওয়ার সময় এটা।”নেতানিয়াহুর রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী বেনি গ্যান্টজ ইসরায়েলের ডিফেন্স ফোর্সের সাবেক চিফ অব স্টাফ। ২০২৩ সালের অক্টোবরে যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা গঠনের আগ পর্যন্ত তার মধ্যপন্থি দল ন্যাশনাল ইউনিটি পার্টি বিরোধী দলে ছিল। ৭ অক্টোবর হামাসের আক্রমণের পর তিনি নেতানিয়াহুর সঙ্গে যুদ্ধকালীন সরকার গঠনে সায় দেন। যুদ্ধকালীন সরকারে ন্যাশনাল ইউনিটি পার্টির পাঁচজন মন্ত্রী আছেন।গ্যান্টজের সিদ্ধান্তকে ‘গুরুত্বপূর্ণ ও সঠিক’ বলে বর্ণনা করেছেন বিরোধী দলীয় নেতা জাইর লাপিদ।

বেনি গ্যান্টজের পদত্যাগের ঘোষণার পরপরই মন্ত্রিসভায় জায়গা চেয়েছেন উগ্র ডানপন্থি জাতীয় নিরাপত্তা মন্ত্রী ইতামার বেন-জিভিয়ার।ডানপন্থি জোট সরকারের এই শরিক নেতা এর আগে হুমকি দিয়েছিলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু সায় দিলে তিনি পদ্যাগ করবেন এবং জোট সরকার ধসিয়ে দেবেন।গ্যান্টজ গত মাসেই বলেছিলেন, ছয়টি ‘কৌশলগত লক্ষ্য’ অর্জনে ৮ জুনের মধ্যে গাজার জন্য একটি যুদ্ধোত্তর পরিকল্পনা ঠিক না করলে তিনি পদত্যাগ করবেন। ওইসব লক্ষ্যের মধ্যে গাজায় হামাসের শাসন অবসান ঘটিয়ে সেখানে একটি বহুজাতিক বেসামরিক প্রশাসন প্রতিষ্ঠার দাবিও ছিল।

নেতানিয়াহু এসব মন্তব্যকে ‘অর্থহীন কথা’ বলে উড়িয়ে দিয়ে বলেছিলেন, এর অর্থ হবে ‘ইসরায়েলের জন্য পরাজয়’।প্রধানমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্টের পাশাপাশি সেনাবাহিনীর সাবেক জেনারেল ও নেতানিয়াহুর সমালোচক গ্যান্টজকেও যুদ্ধকালীন সরকারে গুরুত্বপূর্ণ নীতি নির্ধারক হিসেবে বিবেচনা করা হত।সরকারে গ্যান্টজের যে প্রভাব, সেটা নেতানিয়াহুর জোট সরকারে ডানপন্থিদের কর্মকাণ্ডে ‘ভারসাম্য’ রাখছিল বলে বিবেচনা করা হচ্ছিল।সংবাদ সম্মেলনে গ্যান্টজ বলেন, তিনি কেবল সরকার থেকে পদত্যাগ করছেন না, ন্যাশনাল ইউনিটি পার্টির প্রধানের পদও ছেড়ে দিচ্ছেন।গ্যান্টজের এই সিদ্ধান্ত ইসরায়েলি সরকারকে কোনো সমস্যায় ফেলবে না। কারণ নেসেটের ১২০ আসনের মধ্যে ৬৪ আসনের সংখ্যাগরিষ্ঠতা আছে নেতানিয়াহুর।

তবে প্রধানমন্ত্রী যে আরও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছেন এবং তার যুদ্ধ পরিচালনার কৌশল নিয়ে রাজনৈতিক বিভেদ আরও গভীর হচ্ছে, তা গ্যান্টজের এই সিদ্ধান্তে প্রকাশ পাচ্ছে।যুদ্ধবিরতির চুক্তির জন্য চাপ সৃষ্টি করতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেনের ইসরায়েল, মিশর, জর্ডান ও কাতারে তিন দিনের সফরের আগের দিন গ্যান্টজ পদত্যাগ করলেন।এদিকে রোববারই ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনীর গাজা বিভাগের প্রধান পদত্যাগ করেছেন বলে সেনাবাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে। হামাসের ৭ অক্টোবরের হামলা ঠেকাতে ব্যর্থতার কথা বলেছেন তিনি।ওই হামলার পর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রোজেনফেল্ডই প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রথম যোদ্ধা, যিনি পদত্যাগ করলেন।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য