Friday, May 31, 2024
বাড়িবিশ্ব সংবাদফিলিস্তিন পন্থি বিক্ষোভে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো

ফিলিস্তিন পন্থি বিক্ষোভে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ২৩ এপ্রিল: যুক্তরাষ্ট্রের কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে ইয়েল ও অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে গাজা যুদ্ধের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়েছে। ক্রমবর্ধমান এসব প্রতিবাদ নিয়ন্ত্রণে আনতে কর্তৃপক্ষ হিমশিম খাচ্ছে।সোমবার রাতে ম্যানহ্যাটনের নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ে এ ধরনের একটি প্রতিবাদ ছত্রভঙ্গ করে দেওয়ার চেষ্টা করে পুলিশ, এ সময় বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করে তারা।একইদিন এর আগে কনেটিকাটের ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণ থেকে বহু শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। অপরদিকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাসে ব্যক্তিগত উপস্থিতি বাতিল করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গাজা যুদ্ধ নিয়ে প্রতিবাদ প্রতিধ্বনিত হচ্ছে বলে রয়টার্স জানিয়েছে।বিবিসি জানিয়েছে, একই ধরনের প্রতিবাদ বার্কলে, এমআইটি ও দেশজুড়ে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও ছড়িয়ে পড়েছে।গত সপ্তাহে কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নিউ ইয়র্ক সিটি ক্যাম্পাসে তাঁবু শিবির স্থাপন করে ধারাবাহিক প্রতিবাদ চালিয়ে যায়। সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়টির কর্তৃপক্ষ ক্লাস অব্যহত রাখলেও এতে ব্যক্তিগতভাবে উপস্থিত হওয়া বাতিল করে। এরপর পুলিশ ক্যাম্পাসে তাঁবু গেড়ে অবস্থান নেওয়া প্রতিবাদকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালায়।কনেটিকাটের নিউ হ্যাভেনে ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিবাদকারী শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের চারপাশের রাস্তাগুলোতে যান চলাচল আটকে দেয়। সামরিক অস্ত্র প্রস্তুতকারকদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পর্ক ঘুচানোর দাবিতে শ্লোগান দেয় তারা।

শিক্ষার্থীদের পরিচালিত ইয়েল ডেইলি নিউজের ভাষ্য অনুযায়ী, পুলিশ এখান থেকে ৪৫ জনেরও বেশি প্রতিবাদকারীকে গ্রেপ্তার করে।  নিউ ইয়র্কে নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের একটি খোলা চত্বর দখল করে সেখানে তাঁবু গেড়ে অবস্থান নেয় প্রতিবাদকারী শিক্ষার্থীরা। কর্তৃপক্ষ তাদের চত্বরটি ছেড়ে দিতে বলে, না ছাড়লে পরিমাণ ভোগ করতে হবে বলে সতর্ক করে। কিন্তু কয়েকশত প্রতিবাদকারী এসব অগ্রাহ্য করে প্রতিবাদ চালিয়ে যায়।রাত নামার কিছুক্ষণ পর পুলিশ কর্মকর্তারা সেখানে অভিযান চালায়। সামাজিক মাধ্যমে আসা ভাইরাল ভিডিওতে দেখা গেছে, পুলিশ বিক্ষোভকারীদের শিবিরের তাঁবু খুলে নিয়ে যাচ্ছে। পুলিশের সঙ্গে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়া শিক্ষার্থীরা শ্লোগান তোলে, “আমরা থামবো না, আমরা বিশ্রাম নেবো না। প্রকাশ করুন, পরিত্যাগ করুন।” 

নিউ ইয়র্ক পুলিশের এক মুখপাত্র জানান, কর্তৃপক্ষ পুলিশকে ডাকার পর তারা ক্যাম্পাসে গিয়ে বিক্ষোভকারীদের গ্রেপ্তার করে।রয়টার্স জানিয়েছে, ঘটনাস্থল থেকে মোট কতোজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা অনেকক্ষণ পর্যন্ত জানা যায়নি। সেখানে কেউ জখম হয়েছে বলেও তাৎক্ষণিকভাবে কোনো খবর হয়নি।৭ অক্টোবর ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাস ইসরায়েলি নজিরবিহীন হামলা চালায়। এর জবাবে হামাস নিয়ন্ত্রিত গাজায় ইসরায়েল হিংস্র আক্রমণ শুরু করলে ইয়েল, কলম্বিয়া, নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয় ও যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবাদ শুরু হয়।

সোমবার শিক্ষার্থী ও কর্মীদের প্রতি পাঠানো এক ইমেইলে কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি নেমাত মিনুচে শফিক জানান, বিশ্ববিদ্যালয় ব্যক্তিগতভাবে ক্লাসে উপস্থিতি বাতিল করে অনলাইন ক্লাশে যাচ্ছে।কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের মূল চত্বরে অবস্থান নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়কে ইসরায়েল সঙ্গে সম্পর্কিত বিনিয়োগ পরিত্যাগ করার দাবি জানায়। বিশ্ববিদ্যালয়টির কিছু ফ্যাকাল্টি প্রতিবাদকারীদের এ দাবির নিন্দা জানায়। গত সপ্তাহে এখান থেকে প্রতিবাদকারীদের সরিয়ে দিতে ক্যাম্পাসে পুলিশ ডেকে এনেছিলেন সভাপতি শফিক।বৃহস্পতিবার পুলিশ এই ক্যাম্পাস থেকে শতাধিক শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করে। প্রতিবাদে জড়িত কয়েক ডজন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য