Wednesday, August 10, 2022
বাড়িরাজ্যগ্রামীন এলাকার মানুষদের উন্নতি না হলে, দেশের উন্নতি ঘটা সম্ভব নয় :...

গ্রামীন এলাকার মানুষদের উন্নতি না হলে, দেশের উন্নতি ঘটা সম্ভব নয় : মুখ্যমন্ত্রী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১২ জুলাই : সরকারকে সহায়তা করা মানেই মানুষকে সহায়তা করা। সরকার ব্যবসা করে না। মানুষকে সহায়তা প্রদানের মাধ্যমেই সরকার চলে। ৩১ মার্চ পর্যন্ত নাবার্ড রাজ্য সরকারকে দিয়েছে ৩১৬৬.৯৯ কোটি টাকা। মঙ্গলবার রবীন্দ্রভবনে নাবার্ডের ৪১ তম প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী ডাঃ মানিক সাহা। সিপাজীজলা জেলায় ২০০ পরিবার ও উত্তর জেলার  ৩০০ পরিবারকে নিয়ে প্রকল্প চালাচ্ছে নাবার্ড। বর্তমানে সেই পরিবারগুলি লাভজনক অবস্থায় আছে।

গ্রামীণ হাট, মৎস চাসে উদ্বুদ্ধ করার কাজ করে যাচ্ছে নাবার্ড। প্রশিক্ষণ দিয়ে আর্থিক সহায়তা করেছেন। গ্রামীন ভারতের বিকাশে সহায়ক হিসাবে কাজ করছে নাবার্ড। ৩.১৫ শতাংশ সুদে রাজ্য সরকারকে আর্থিক সহায়তা করে নাবার্ড। এতে কাজ করতে সুবিধা হয় রাজ্য সরকারের বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। গ্রামীন এলাকার মানুষদের উন্নতি না ঘটলে দেশের উন্নতি ঘটা সম্ভব নয়। এই ক্ষেত্রে নাবার্ড গ্রামীন এলাকায় বসবাসকারীদের উন্নতি সাধনে কাজ করে যাচ্ছে। উদ্বোধনী বিষয় যেভাবে সামনে আনছেন তার জন্য ধন্যবাদ জানান মুখ্যমন্ত্রী।

১০০ কোটি টাকা নিয়ে তাদের পথ চলা শুরু হয়েছিল। ২০২২ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত তাদের ক্যাপিট্যাল দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৮০ কোটি টাকা। এটা বড় বিষয়। একদিনে ব্যবসা বাড়ছে, অন্যদিকে মানুষের জন্য কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। নাবার্ডের এই উন্নয়ন অবিশ্বাস্য। কৃষি ক্ষেত্রে তাদের কাজ দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। গ্রামীন এলাকার আর্থিক উন্নয়নে তাদের ভূমিকা রয়েছে। ১৯৮২ সালে নাবার্ডের মাধ্যমেই বিশ্বে সব চাইতে বড় মাইক্রোফাইনান্স প্রকল্প চালু করেছিল। আগে কৃষকরা লাভ জনক অবস্থায় ছিল  না। প্রধানমন্ত্রী দেশের  কৃষকদের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। সেভাবে নাবার্ডও কৃষকদের উন্নয়ন ঘটাচ্ছে। এতে কৃষকেরা সাহস পাচ্ছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী।

যে কোন প্রতিষ্ঠানের জন্য প্রতিষ্ঠা দিবস একটা বড় বিষয়। পুরনো ইতিহাসকে মনে রেখে বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে স্পষ্ট হওয়া যায়। অভিজ্ঞতা সুখকর হয়না। তাই সকলে এই অভিজ্ঞতা থেকেই আগাম সতর্ক করে থাকেন।

এদিন একটি মোবাইল এটিএম ভ্যানের সূচনা করেন তিনি। অনুষ্ঠানে সফল ল্যাম্পস, প্যাক্স গুলিকে পুরস্কৃত করা হয়। উপস্থিত ছিলেন অর্থ দপ্তরের সচিব ব্রীজেশ পান্ডে, নাবার্ডের জি এম লোকেশ দাস প্রমুখ।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য