Wednesday, August 10, 2022
বাড়িরাজ্যবিভিন্ন দপ্তরে নিয়োগের সিদ্ধান্ত মন্ত্রিসভায় : সুশান্ত

বিভিন্ন দপ্তরে নিয়োগের সিদ্ধান্ত মন্ত্রিসভায় : সুশান্ত

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২৮ জুন : মঙ্গলবার মুখ্যমন্ত্রী ডাঃ মানিক সাহার পুরোহিত্যে মন্ত্রিসভার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে রাজ্যের বিভিন্ন দপ্তরে শূন্যপদ পূরণ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী আগস্ট মাসের মধ্যে শূন্য পদ গুলি পূরণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তর গুলিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আগামী কিছুদিনের মধ্যে সেসব দপ্তরগুলো শূন্যপদ পূরণ করার জন্য নির্দেশিকা জারি করবে। বৈঠকে এছাড়াও বিভিন্ন দপ্তরে কর্মী শূন্যতা পূরণ করতে শূন্য পদ তৈরি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মহাকরণে সাংবাদিক সম্মেলন করে এ কথা জানান মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী। তিনি জানান রাজ্য পুলিশের কনস্টেবল পদে এক হাজার শূন্য পদ পূরণ করা হবে, ক্রীড়া দপ্তরে ১০০ জন ফিজিক্যাল ইন্সট্রাক্টর এবং ১০০ জন জুনিয়র অ্যাসিস্ট্যান্ট নিয়োগ করা হবে। কৃষি দপ্তরে ৬০ জন এগ্রিকালচার অফিসার শূন্যপদ পূরণ করতে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হবে। টি পি এস সি মাধ্যমে এই শূন্যপদ পূরণ করা হবে। কারণ এগুলি গ্রেজেটেড পোস্ট হবে। সমাজকল্যাণ ও সমাজ শিক্ষা দপ্তরে আই সি ডি এস প্রকল্পে ২৫ জন সুপারভাইজার নিয়োগ হবে। তৎসঙ্গে ১৯১ টি সুপারভাইজার নতুন করে পোস্ট তৈরি করা হয়েছে।

শ্রীঘ্রই অর্থ দপ্তর থেকে অনুমোদন নিয়ে নিয়োগ করা হবে। শিল্প দপ্তরে ২২ টি শূন্য পদে নিয়োগ করা হবে। এর মধ্যে ১৬ টি সিনিয়র ইন্সট্রাক্টর, ৬ টি এল ডি সি ক্যাশিয়ার নিয়োগ করা হবে। এর জন্য দপ্তর খুব দ্রুত নোটিফিকেশন জারি করবে। ডি ডাব্লিউ এস -এ আরো চারটি ডিভিশন খোলা হবে। এর মধ্যে রয়েছে জিরানিয়া, কাঞ্চনপুর, সাব্রুম, অমরপুর। বর্তমানে ডিভিশন রয়েছে নয়টি। দপ্তর যাতে মানুষকে মিশন রোডে পরিষেবা দিতে পারে সেদিকে গুরুত্ব দিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জল জীবন মিশন আড়াই শতাংশ থেকে কাজ শুরু করে ৫২ শতাংশ কাজ সম্পন্ন করে নিয়েছে। শ্রম দপ্তরে ২০ জনের পোস্ট তৈরী করা হয়েছে। এর মধ্যে অফিস সুপারিনটেনডেন্ট ১ টি, একাউন্টেন্ট ৬ টি, হেড ক্লার্ক ৫ জন এবং ইউ ডি ক্লাক ২ টি। ক্রীড়া ও যুব দপ্তরে ৬ জন ইয়ুথ অর্গানাইজার নিয়োগ করতে শূন্যপদ তৈরী করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিন মন্ত্রিসভার বৈঠকে আরও সিদ্ধান্ত হয়েছে ড্রাই ইন হার্নেস প্রকল্পে কিছুটা সংশোধন করা হয়েছে। বিবাহিত মেয়েরাও এখন থেকে পিতামাতা চাকুরি চলাকালীন অবস্থায় ৫০ বছরের মধ্যে মারা গেলে চাকরি পাবে। তবে এক্ষেত্রে বিবাহিত মেয়েকে বাপের বাড়ি থেকে চাকরি পেতে সমর্থন করতে হবে। পাশাপাশি বিবাহিত কণ্যার স্বামী র আর্থিক অবস্থা দুর্বল সক্ষম হতে হবে। এই বিষয়গুলোর উপর পর্যবেক্ষণ করে চাকরি দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

আরো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে আগরতলা শহরের ৫০ কিলোমিটারের মধ্যে বিটুমিনের পরিবর্তে প্লাস্টিক দিয়ে রাস্তা তৈরি করা হয়। এতে রাস্তা দীর্ঘমেয়াদি হবে। নতুন রাস্তা তৈরি এবং পুরনো রাস্তা সংস্কারের ক্ষেত্রে প্লাস্টিক ব্যবহার করা হবে বলে জানান মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য