Tuesday, June 28, 2022
বাড়িরাজ্যতুলকালাম নেশা মুক্তি কেন্দ্রে

তুলকালাম নেশা মুক্তি কেন্দ্রে

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১১ জুন : নেশা ছাড়ানো নাম করে নেশা মুক্তি কেন্দ্রে চলছে কঠোর শাসন। অভিভাবকদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র ক্ষোভ। সৃষ্টি হয়েছে লঙ্কাকান্ড। ঘটনা হাপানিয়া মেলা প্রাঙ্গনের সংলগ্ন নেশা মুক্তি কেন্দ্রে। জন পরিবর্তন ফাউন্ডেশন নামের এই নেশা মুক্তি কেন্দ্রে বিশাল সংখ্যক নেশায় আসক্তদের রাখা হয়েছে নেশা মুক্ত করানোর লক্ষ্যে। কিন্তু শনিবার বিকেলে এক প্রকার লঙ্কাকান্ড ঘটে যায় এই নেশা মুক্তি কেন্দ্রে। একজন অভিভাবকের বক্তব্য তিনি এসে দেখেন ভেতরে থাকা নেশায় আসক্তরা আত্মহত্যার চেষ্টা করছেন। শুধু তাই নয়, ভেতরে যেন এক বিশৃঙ্খলা পরিবেশ।

অভিভাবকদের বিক্ষোভের খবর পেয়ে ছুঁটে যায় পুলিশ এবং টি.এস.আর জওয়ানরা। দীর্ঘক্ষন অপেক্ষা করার পর সামনের দরজা খুলে ভেতরে যান। ভেতরের যা পরিবেশ তা দেখে মনে হলো এখানে নেশায় আসক্তদের নয়, রাখা হয় পাগলদের। এবং মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এছাড়াও নেশা মুক্তি কেন্দ্রে সব কিছু এলোমেলো। সিলিং ফ্যানের পাখাগুলো বাঁকানো। প্রত্যেকের একই অভিযোগ, তাদেরকে মেয়াদ উত্তীর্ণ ঔষধ দিয়ে জ্ঞানহীন করা হচ্ছে। তাদের উপর একপ্রকার অত্যাচার চালানো হচ্ছে প্রতিনিয়ত। ঠিকঠাক ভাবে খাবার দেওয়া হয়না।

 পরিবারের লোকজনদের সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হয় না। ভেতরে এক প্রকার দম বন্ধ কর পরিবেশে দিন কাঁটাচ্ছেন তাঁরা। সব শেষে পুলিশের হস্তক্ষেপে নেশা মুক্তি কেন্দ্রে থাকা তরুন যুবকরা পরিবারের দেখা পায়। অনেকেই পরিবারের লোকজনদের সঙ্গে চলে যান। আবার অনেকেই পরিবারের লোকজনদের কাছে খবর পাঠান তাদের বাড়ি নিয়ে যাবার জন্য। সব মিলিয়ে গোটা এলাকায় একপ্রকার চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। রাজ্যে এমন বহু নেশা মুক্তি কেন্দ্র রয়েছে যেখানে কোনো ধরনের শৃঙ্খলা নেই। লুটে পুটে নেওয়া হচ্ছে নেশায় আসক্তদের পরিবারগুলোকে। গাইড লাইন না মেনে খোলা হচ্ছে নেশা মুক্তি কেন্দ্র। সরকার কী ভাবে নেশা মুক্তি কেন্দ্র খোলার অনুমতি দিলো তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। কারন জন পরিবর্তন ফাউন্ডেশনের চিত্রটা দেখলেই পরিষ্কার যে নুন্যতম পরিষেবা দেওয়া হচ্ছে না। বাইরে থেকে দেখলে মনে হবে সত্যিই রি হ্যাব সেন্টার। আর ভেতরে গেলে মনে হবে পাগলা গারদ ও এর চাইতে আরো ভালো অবস্থায় থাকবে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য