Wednesday, May 18, 2022
বাড়িরাজ্যজনজাতিদের মুক্তি দিতে পারে কংগ্রেস : গোপাল রায়

জনজাতিদের মুক্তি দিতে পারে কংগ্রেস : গোপাল রায়

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১১ এপ্রিল : বিপ্লব এন্ড কোম্পানি ত্রিপুরাবাসীর সাথে যে প্রতারণা করেছে তা রাজ্যের ইতিহাসে আর কোন সরকার করেনি। বিজেপি হলো জাতি জনজাতির শত্রু। ফলে পাহাড়ে হাহাকার চলছে। জনজাতিদের সুযোগ সুবিধা বঞ্চিত করে চলেছে। সোমবার ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেস কমিটি এবং ত্রিপুরা আদিবাসী কংগ্রেসের যৌথ উদ্যোগে আদিবাসী সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন এভাবেই তোপ দাগলেন প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি গোপাল রায়। এদিন সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয় আগরতলা মুক্তধারা অডিটোরিয়ামে।

তিনি এদিন বলেন রেগা মজুরি ৩৪০ টাকা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল বিজেপি। কিন্তু সরকারের শেষ বাজেটেও মজুরী বৃদ্ধির কোনো উল্লেখ নেই। কিন্তু জনজাতিদের উন্নয়নের জন্য কংগ্রেস যা করে গেছে তা অন্য কোনো রাজনৈতিক দল করে দেখাতে পারেনি। প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী এডিসি ঘোষণা করেছিলেন। যাতে জনজাতিদের শিক্ষার দিকে বিকাশ হয়। ১৯৮৮-৯৩ পর্যন্ত জনজাতিদের ঘরে কোন গ্যাজুয়েট ছেলে ছিল না। কংগ্রেসের উদ্যোগে জনজাতিরা পরবর্তী সময় শিক্ষার দিকে এগিয়ে গেছে। কিন্তু বর্তমানে ডাবল ইঞ্জিনের সরকার চলছে রাজ্যে। ডাবল ইঞ্জিন খারাপ হওয়ায় রেল গাড়ি চলছে না বলে কেন্দ্র সরকার এবং রাজ্য সরকারকে গোপাল রায় কটাক্ষ করেন এদিন। ত্রিপুরা রাজ্যে আগামী দিনে ইঞ্জিন বদল করে কংগ্রেসের সরকার হবে বলে জানান গোপাল রায়। ত্রিপুরা রাজারা হতে পারেন উপজাতি।

 কিন্তু ত্রিপুরার রাজ ভাষা ছিল বাংলা। কিন্তু দেখা গেছে ত্রিপুরায় কমিউনিস্ট সরকার আসতেই জাতি জনজাতিদের সু-ভ্রাতৃত্ব সম্পর্কের মধ্যে ফাটল ধরেছে। এ ফাটল ধরাতে কমিউনিস্টরা বীজ রোপন করেছিল। সুতরাং বর্তমানে তাই হচ্ছে। তাই এদিন সিপিআইএম এবং বিজেপিকে এক কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বীরজিৎ সিনহা। তিনি বলেন এর থেকে একমাত্র মুক্তি দিতে পারে কংগ্রেস। তাই আদিবাসীদের শিক্ষা এবং আর্থিক দিকে উন্নয়নের জন্য কংগ্রেস আন্দোলনে নেমেছে বলে জানান শ্রী সিনহা। এদিন সম্মেলন শুরু হওয়ার আগে প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান উপস্থিত কংগ্রেসের নেতৃবৃন্দ ও কর্মী সমর্থকরা। সম্মেলনে এদিন এছাড়া উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন বিধায়ক আশীষ কুমার সাহা, প্রদেশ কংগ্রেসের পর্যবেক্ষক সারিতা লাইফ্রাং সহ অন্যান্য নেতৃত্ব। সম্মেলনের পর মুক্তধারা থেকে একটি মিছিল সংঘটিত করে কংগ্রেস। মিছিলটি বিভিন্ন পথ পরিক্রমা করে প্রদেশ কংগ্রেস ভবনের এসে সমাপ্ত হয়।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য