Sunday, June 23, 2024
বাড়িরাজ্যজ্বালানি তেলের ওয়াগন আসাম থেকে রওনা হয়েছে ত্রিপুরার উদ্দেশ্য, আশার আলো দেখছে...

জ্বালানি তেলের ওয়াগন আসাম থেকে রওনা হয়েছে ত্রিপুরার উদ্দেশ্য, আশার আলো দেখছে রাজ্যবাসী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১১ মে : শেষ পর্যন্ত আশার আলো দেখছে রাজ্যবাসী। মিটতে চলেছে জ্বালানি তেলের সংকট। গত ১৫ দিন ধরে জ্বালানি তেলের চরম সংকট চলছে রাজ্যে। পেট্রোল পাম্প গুলিতে দীর্ঘ লাইন লক্ষ্য করা গেছে শনিবার পর্যন্ত। পরীক্ষামূলকভাবে জ্বালানি তেলের ওয়াগন আসামের এই রাস্তা ধরে ত্রিপুরার উদ্দেশ্যে রওয়না হয়েছে।

৪৯ বগির মধ্যে ১৯ টিতে ডিজেল এবং ৩০ টির মধ্যে পেট্রোল রয়েছে বলে খবর। শনিবার সন্ধ্যার মধ্যেই এই ট্রেন ত্রিপুরার ধর্মনগর প্রবেশ করবে। তারপর ধর্মনগর থেকে সড়ক পথে রাজ্যের বিভিন্ন পাম্পে জ্বালানি পৌঁছে যাবে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে রবিবার বিকেল থেকে রাজ্যে পেট্রোলের জোগান প্রায় স্বাভাবিক হয়ে যেতে পারে। এদিকে মুখ্যমন্ত্রী সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করে জানিয়েছেন গত ২৬শে এপ্রিলের পর আজ প্রথম পি ও এল রেক আসামের জাটিঙ্গা-হারাঙ্গার মধ্যে ভূমিধ্বসে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা অতিক্রম করেছে। আজ রাতেই ত্রিপুরায় পৌঁছবে এই ওয়াগন। কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণবকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান এই সমস্যাটি দ্রুত নিরসনে উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য। পাশাপাশি রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ সহ যে সমস্ত শ্রমিকেরা খারাপ আবহাওয়ার মধ্যেও রাতদিন নিরলসভাবে কাজ করে অতি দ্রুততার সাথে রেল চলাচল স্বাভাবিক করেছে, এর জন্যও ধন্যবাদ জানান মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি রাজ্যবাসীকে শুভেচ্ছা জানান, কারণ অস্বাভাবিক পরিস্থিতিতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য।

উল্লেখ্য, আসাম ডিমাহাসাও জেলায় রেললাইন ক্ষতিগ্রস্ত থাকায় গত প্রায় ১৫ দিন যাবত রাজ্যে পণ্যবাহী ভারী ট্রেন চলাচল করতে পারেনি। বিশেষত জ্বালানিবাহী ওয়াগন রাজ্যে ঢুকতে পারেনি বলে পেট্রোল এবং ডিজেলের তীব্র সংকট দেখা দেয়। সংকট মেটাতে কেন্দ্রীয় রেল মন্ত্রকে চিঠি দিয়েছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডাক্তার মানিক সাহা। মুখ্যমন্ত্রীর চিঠি পাওয়ার পর কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রক তৈরি করি রাজ্যে পণ্যবাহী রেল ওয়াগন চলাচল স্বাভাবিক করার উদ্যোগ নেয়। সেই তৎপরতায় রেললাইন সারাইয়ের পর পরীক্ষামূলকভাবে জ্বালানিবাহী ওয়াগন রাজ্যে ঢুকছে। তবে সবকিছু ঠিকঠাকভাবে রাজ্যে ওয়াগনার যদি প্রবেশ না করতে পারে তাহলে চরম সংকটের মুখে পড়বে রাজ্য। জ্বালানী তেল শূন্য হয়ে আছে সিংহভাগ পেট্রোল পাম্প। দিশেহারা হয়ে পড়ছে মানুষ। গত কয়েক দিনে পেট্রোলের জন্য উত্তেজনা মূলক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য