Wednesday, May 29, 2024
বাড়িরাজ্যকংগ্রেস, সিপিআইএম কাছাকাছি আসা সময়ের দাবি এবং পরিস্থিতির চাহিদা : মানিক

কংগ্রেস, সিপিআইএম কাছাকাছি আসা সময়ের দাবি এবং পরিস্থিতির চাহিদা : মানিক

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ৬ এপ্রিল : কেউ যদি ভাবে কাস্তে হাতরি বা হাত চিহ্ন ছাড়া ভোট দেবে না তাহলে তারা বিজেপি -কে সুবিধা করে দিচ্ছে। তাই রাষ্ট্রের স্বার্থে ও জনগণের স্বার্থে ইন্ডিয়া জোট প্রার্থীকে ভোট দিতে হবে। এ নিয়ে দ্বিধা দন্ড থাকলে চলবে না। কংগ্রেস, সিপিআইএম কাছাকাছি আসা সময়ের দাবি এবং পরিস্থিতির চাহিদা। আর এতে সাড়া দিতে না পারলে জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবেন।

আগামী দিনে বিপ্লবী সংগ্রামে মানুষ পাবেন না। তাই আসন্ন নির্বাচন জাতীয় প্রেক্ষাপটে লড়াই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে কংগ্রেস ও সিপিআইএম কর্মীদের উদ্দেশ্যে দাবি করলেন পলিটব্যুরোর সদস্য মানিক সরকার। শনিবার বনকুমারী নেতাজি সংঘের মাঠে আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি সিপিআইএম এবং কংগ্রেস কর্মীদের উদ্দেশ্যে এই কথা বলেন। এইদিন আশিস সাহার সমর্থনে জনসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি আরো বলেন রাজ্যে অরাজকতা চলছে। এই অবস্থার পরিবর্তন করতে হলে দিল্লিতে সরকার পরিবর্তন করতে হবে।

সাহস করে বের হতে হবে। মানিক সরকার এইদিন সিপিআইএম কর্মী সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বলেন কোন দিন হাত চিহ্নে ভোট না দিলেও এইবার দিতে হবে। বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস কর্মী সমর্থকরাও সিপিআইএম প্রার্থীকে ভোট দিয়েছে। দেশের স্বার্থে জনগণের স্বার্থে এইবার পশ্চিম আসনে হাত চিহ্নে ভোট দিতে হবে। রাজনীতিতে সংকীর্ণতা ও শেষ বলার কোন সুযোগ নেই। বাস্তবিকতার মধ্য দাড়িয়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। বাঁচতে হলে ও অস্তিত্ব রক্ষা করতে হলে বিজেপি সরকারকে ছুড়ে ফেলার জন্য আহ্বান জানান মানিক সরকার। একই সাথে গণতান্ত্রিক, ধর্ম নিরপেক্ষ, জনমুখী বিকল্প সরকার প্রতিষ্ঠা করার আহ্বান জানান তিনি। তিনি নাম না করে তিপ্রা মথাকে উদ্দেশ্য করে বলেন ২০২৩ সালের বিধানসভা নির্বাচনে তারা যদি জনজাতি সংরক্ষিত আসনে প্রার্থী না দিত, তাহলে এইবার বিজেপি সরকার প্রতিষ্ঠা হতো না। বিজেপি ভয় পেলে চলবে না। বিজেপি ভয় পেয়েছে।

তার জন্য অগণতান্ত্রিক স্বৈরাচারী কায়দা অনুসরণ করছে তারা। ২০২৩ সালের বিধানসভা নির্বাচনে যারা বিশ্বাস ঘাতকতা করেছে, বেশি দিন সময় লাগেনি, তারা সামনে চলে এসেছে। এইদিনের জনসভায় মানিক সরকার ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন পশ্চিম আসনের ইন্ডিয়া জোটের প্রার্থী আশীষ কুমার সাহা সহ অন্যান্য নেতৃত্ব। জনসভায় এইদিন কংগ্রেস ও সিপিআইএম কর্মীদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। সে যাই হোক শেষ পর্যন্ত মানিক সরকার হাত চিহ্নে ভোট দেওয়ার জন্য প্রচারে নামলেন। এইদিন শুধুমাত্র তিনি ভোট প্রচারে নামলেন না, রীতিমতো সিপিআইএম কর্মী সমর্থকদের পশ্চিম আসনে হাত চিহ্নে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান। রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন চলছে দলীয় চাপে পড়ে শেষ পর্যন্ত নিজের নীতি আদর্শকে ত্যাগ করে কংগ্রেস প্রার্থীর হয়ে ভোট প্রচারে নেমেছেন মানিক সরকার।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য