Tuesday, April 16, 2024
বাড়িরাজ্যইন্ডিয়া জোটকে অশুভ জোট বললেন মুখ্যমন্ত্রী

ইন্ডিয়া জোটকে অশুভ জোট বললেন মুখ্যমন্ত্রী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২৫ মার্চ : ইন্ডিয়া জোট এখন ইন্ডি হয়ে গেছে। কারণ একজন ইতিমধ্যে জেলে চলে গেছেন। শেষ পর্যন্ত ইন্ডিয়া জোটের আই থাকবে বলে দাবি করেন মুখ্যমন্ত্রী। সোমবার ৪ বড়জলা বিধানসভা কেন্দ্রে পশ্চিম ত্রিপুরা আসনের মনোনীত বিজেপি প্রার্থী বিপ্লব কুমার দেবের সমর্থনে মতবিনিময় সভায় দিল্লি মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজুয়ালকে কটাক্ষ করতে গিয়ে এই কথা বললেন মুখ্যমন্ত্রী ডাক্তার মানিক সাহা।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, তাদের এই অশুভ জোট মানুষ মেনে নেবে না। রাজ্যে একটা সময় কংগ্রেসের সুযোগ ছিল। কিন্তু তারা সেই সুযোগ হাতছাড়া করেছে। দিল্লিতে তারা দোস্তি করত, আর রাজ্যে কুস্তি করত। অবশেষে মানুষ বুঝে গিয়েছিল কংগ্রেস দিয়ে কিছুই হবে না। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে গত ১০ বছরে দেশে উন্নয়ন হয়েছে। ২০১৪ সালের আগে দেশ থাকবে কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিয়তা ছিল না। কিন্তু ২০১৪ সালের পর দেশের চেহারা বদলে গেছে নরেন্দ্র মোদীর সরকারের আমলে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশকে সুরক্ষিত করার পাশাপাশি ইনফ্রাস্ট্রাকচারের দিকে গুরুত্ব দিয়েছেন। যাতে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়। মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ত্রিপুরা রাজ্যে বিরোধীরা আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে নানা সময়ে অভিযোগ তুলে। কিন্তু বিগত বছর ত্রিপুরা রাজ্য আইনশৃঙ্খলা দিকে নিচের দিক থেকে পঞ্চম স্থানে ছিল। বর্তমানে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। ২৮ টি রাজ্যের মধ্যে ত্রিপুরার আইন-শৃঙ্খলা অত্যন্ত ভালো পর্যায়ে রয়েছে। এটা রাজ্য সরকারের বক্তব্য নয়, সারা দেশের রিপোর্ট এই কথা বলছে।

 তবে মাঝে মধ্যে ত্রিপুরায় দু -একটি ঘটনা সংঘটিত হয়। তাদের জন্য পুলিশ প্রশাসন রয়েছে। দল মত নির্বিশেষে পুলিশ আইনত ব্যবস্থা গ্রহণ করে। এই ঘটনাগুলি সংগঠিত না হলে পুলিশের প্রয়োজন হতো না বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যের উন্নয়নের বিষয়ে বলতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন রাজ্যে বর্তমানে উন্নয়নের জোয়ার বইছে। বাইরে থেকে বহু মেডিক্যাল কলেজ বর্তমানে রাজ্যে আসতে চাইছে। ইতিমধ্যে রাজ্যে ডেন্টাল কলেজ চালু হয়ে গেছে। নার্সিং কলেজও হয়ে গেছে রাজ্যে। আগামী দিনে রাজ্যে হ্যোমিওপেথিক ও আয়ুর্বেদিক কলেজ করার চিন্তা ভাবনা রয়েছে রাজ্য সরকারের। রাজ্যে মেডিক্যাল হাব করার চিন্তা ভাবনা করছে রাজ্য সরকার। জেলা হাসপাতাল গুলিকে শক্তিশালী করার চেষ্টা চলছে। রাজ্যের মানুষের চিকিৎসা পরিষেবা সুনিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রী জন আরোগ্য যোজনার ন্যায় মুখ্যমন্ত্রী জন আরোগ্য যোজনা চালু করা হয়েছে। সমস্যা সমাধানের সরকার হচ্ছে ভারতীয় জনতা পার্টির সরকার। আগে রাজ্যে ক্ষমতায় ছিল সমস্যা সৃষ্টি করে ক্ষমতায় টিকে থাকার সরকার। আয়োজিত মত বিনিময় সভায় এদিন এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন এলাকার প্রাক্তন বিধায়ক ডাক্তার দিলীপ দাস সহ সংগঠনের অন্যান্য নেতৃত্ব। এইদিনের মত বিনিময় সভায় মুখ্যমন্ত্রী ডাক্তার মানিক সাহা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন বিধায়ক ডাক্তার দিলিপ দাস, প্রদেশ বিজেপির সদস্য রতন ঘোষ সহ অন্যান্যরা। মত বিনিময় সভায় এইদিন বহু ভোটার বিরোধী শিবির ত্যাগ করে বিজেপি দলে যোগদান করে। মুখ্যমন্ত্রী সহ অন্যান্য নেতৃত্ব নবাগতদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দিয়ে তাদেরকে বিজেপি দলে বরন করে নেন।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য