Tuesday, April 16, 2024
বাড়িরাজ্যবিরোধী দলনেতার দায়িত্ব নিলেন জিতেন্দ্র চৌধুরী

বিরোধী দলনেতার দায়িত্ব নিলেন জিতেন্দ্র চৌধুরী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২০ মার্চ : ২০২৩ বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকে রাজ্যের প্রধান বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করেছিল তিপরা মথা। এবং দলের বিরোধী দলনেতা ছিলেন অনিমেষ দেববর্মা। সম্প্রতি ত্রিপাক্ষিক চুক্তির পর বিরোধী আসন থেকে সরাসরি ট্রেজারি বেঞ্চে এসে যোগ দিয়েছে প্রধান বিরোধী দল মথা। মন্ত্রিত্ব পেয়েছেন বিরোধী দলনেতার দায়িত্বপ্রাপ্ত অনিমেষ দেববর্মা।

 বিরোধী দলনেতার পদ থেকে পদত্যাগ করে মন্ত্রী সভার সদস্যের জন্য রাজ ভবনের দরবার হলে শপথ গ্রহণ করেন। তারপর থেকে বিরোধী দলনেতার আসনটি শূন্য ছিল। বুধবার সেই শূন্য আসনে বিরোধী দলনেতার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে জিতেন্দ্র চৌধুরীকে। বিধানসভার অধ্যক্ষ বিশ্ববন্ধু সেন বিরোধী দলনেতার দায়িত্ব জিতেন্দ্র চৌধুরীর কাছে তুলে দেন। তিনি সিপিআইএম দলের হয়ে লড়াই করে সাব্রুম বিধানসভা কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছিলেন ২০২৩ সালে। পাশাপাশি তিনি সিপিআইএমের রাজ্য সম্পাদকের দায়িত্ব রয়েছেন। দলের পক্ষ থেকে বিরোধী দলনেতার দায়িত্ব জিতেন্দ্র চৌধুরীর হাতে তুলে দেওয়ার জন্য প্রস্তাব পাঠানো হয়েছিল। মেলার মাঠের সেই প্রস্তাব গ্রহণ করলেন বিধানসভার অধ্যক্ষ বিশ্ববন্ধু সেন। বিশ্ববন্ধু সেন বলেন, তিপরা মথা যখন শাসক দলকে সমর্থিত করেছে তখন তারা বিরোধী আসন থেকে শাসক দলে চলে এসেছে। তিপরা মথার পর বিরোধী দলের ভূমিকার জন্য সিপিআইএমের নাম আসার কারণ হলো দশটি আসনে তাদের বিধায়ক রয়েছেন।

জিতেন চৌধুরীর নাম প্রস্তাবে আসার পর বিরোধী দলনেতার জন্য স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে বলে জানান অধ্যক্ষ। এদিকে জিতেন্দ্র চৌধুরী সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বলেন, এতদিন প্রাক্টিক্যাল ভাবে তিনিই বিরোধী দলনেতার দায়িত্ব পালন করে গেছেন, শুধুমাত্র টেকনিক্যালভাবে তিনি বিরোধী দলনেতা ছিলেন না। কারণ জনগণের সমস্যা নিয়ে তৎকালীন বিরোধী দলনেতা থেকে বেশি আওয়াজ তুলেছিলেন তিনি। তবে এর আগের বিরোধী দলনেতাও চেষ্টা করেছেন বলে জানান তিনি। তিনি আরো বলেন, বিরোধী দলনেতা মানে সরকারের বিরোধিতা করা নয়। বিরোধী দল নেতা মানে সরকারের উন্নয়নমূলক কাজের সমর্থন করা এবং এ বিষয়ে আওয়াজ তোলা। পাশাপাশি শাসক দলের কোন ত্রুটি থাকলে সেটা তাদের দৃষ্টিতে স্বীকার করা মুশকিল হয়। এবং শাসক দলের বিধায়কদের নজরে আসলেও সেটা নিয়ে তারা আওয়াজ তুলতে পারে না। তাই বিরোধী দলনেতা হিসেবে দায়িত্ব হবে সরকারের সেই দুর্বলতা এবং ভুলত্রুটিগুলি জনসম্মুখে তুলে ধরা। তিনি আরো বলেন আগামী দিন মানুষের স্বার্থে তিনি দায়িত্ব পালন করবেন। এদিন জিতেন্দ্র চৌধুরীর সঙ্গে ছিলেন সিপিআইএমের অন্যান্য বিধায়করা।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য