Wednesday, June 19, 2024
বাড়িরাজ্যডেঙ্গু নিয়ে সতর্ক করলেন জিবি হাসপাতালে চিকিৎসক মহল, শুরু হয়েছে বিশালগড়েও দৌড়ঝাঁপ

ডেঙ্গু নিয়ে সতর্ক করলেন জিবি হাসপাতালে চিকিৎসক মহল, শুরু হয়েছে বিশালগড়েও দৌড়ঝাঁপ

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ৪ আগস্ট : রাজ্যে ক্রমশ উদ্বেগ জনক ডেঙ্গুর পরিস্থিতি। এখন শুধু বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী ধনপুরে ডেঙ্গু সীমাবদ্ধ নেই। ধীরে ধীরে ডেঙ্গু রাজ্যের অন্যান্য জায়গায়ও ছড়াতে শুরু করেছে। বহু রোগী ভর্তি রয়েছে রাজ্যের জিবি হাসপাতালে। বৃহস্পতিবার জিবি হাসপাতালের এম এস শংকর চক্রবর্তী সহ অন্যান্য চিকিৎসকরা সি এম ও অফিসে এক সাংবাদিক সম্মেলন করে জানান, ডেঙ্গু রোগীদের জন্য গত ২৮ জুলাই মাইক্রোবায়োলজি ডিপার্টমেন্ট, কমিউনিটি মেডিসিন ডিপার্টমেন্ট, ইমারজেন্সি মেডিসিন ডিপার্টমেন্ট সহ অন্যান্য ডিপার্টমেন্টের স্বাস্থ্য কর্মীদের নিয়ে জরুরী কালীন বৈঠক করা হয়। প্রথম রোগী আসতে শুরু হয় শনিবার থেকে।

 যখন রোগী লাগাতার আসতে শুরু হয় তখন কোভিড ওয়ার্ডে ৩০ টি শয্যা আলাদা করে রাখার ব্যবস্থা করা হয়। এখন পর্যন্ত ৫০ জনের অধিক রোগী হাসপাতালে এসেছে। বর্তমানে ভর্তির আছে ৩২ জন ডেঙ্গু রোগী। এর মধ্যে ১৮ বছর বয়সী একজন ডেঙ্গু রোগী রয়েছে আই সি ইউ -তে। তার পেটে ব্যথা হওয়ায় বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে চিকিৎসার জন্য আই সি ইউ তে ভর্তি করানো হয়েছে। বর্তমানে আই সি ইউ -তে আছে সে। তিনি আরো জানান, যেহেতু ডেঙ্গুর সংক্রমণ ছড়ানোর মশাগুলি অধিকাংশই দিনের বেলা মানুষকে কামড়ায় তার জন্য দেড় শতাধিক মশারির ব্যবস্থা করা হয়েছে। বর্তমানে যারা ভর্তি রয়েছে তাদের সকলের অবস্থা স্থিতিশীল। এবং বৃহস্পতিবার সবচেয়ে কম রোগীর হাসপাতাল এসেছে বলে জানান তিনি। অর্থাৎ এই দিন দুপুর পর্যন্ত একজন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

চিকিৎসকরা আরো জানান ধনপুরে পজিটিভ রোগের সংখ্যা ১৫৮ জন, কাঞ্চনমালা, মোহনপুর এবং বামুটিয়াতে স্ক্যানিং করে ২৪ জন রোগীর পজেটিভ পাওয়া গেছে। তারা আরও জানান এখন পর্যন্ত আগরতলা পুর নিগমে পজেটিভ কোন রোগী শনাক্ত হয়নি। নিগমের ৫১টি ওয়ার্ডই স্ক্যানিং চলছে। স্বাস্থ্য দপ্তরের কাছ থেকে জানা গেছে বিশালগড় মহকুমায় প্রথম ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর শনাক্ত হয়েছে। খবর পেয়ে দ্রুত রোগীর বাড়িতে ছুটে যান বিশালগড় মহকুমা স্বাস্থ্য আধিকারিক জ্যোতির্ময় দাস সহ মেডিকেল টিম। বিশালগড় মহকুমা স্বাস্থ্য আধিকারিক জানিয়েছেন, বিশালগড় ঘনিয়ামারা এক নং ওয়ার্ডের বীরচন্দ্র পাড়ার বাসিন্দা মানিকচন্দ্র রায় জ্বর নিয়ে দুদিন আগে বিশালগর মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিল। বয়স ৫৫ বছর। কিন্তু তার স্বাস্থ্যের কোন উন্নতি না হওয়ায় চিকিৎসকরা তাকে জিবি হাসপাতালে রেফার করা হয়। সেখানে চিকিৎসকরা ডেঙ্গু পরীক্ষা করলে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বর্তমানে তিনি জিবি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। খবর পেয়ে মহকুমা স্বাস্থ্য আধিকারিক সহ একটি মেডিকেল টিম আক্রান্ত রোগীর বাড়িতে ছুটে যায়। তারা ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে কথা বলেন। শুক্রবার সেই এলাকায় একটি ডেঙ্গু পরিক্ষার শিবির করা হবে বলে জানান। যদিও রাজ্যে স্বাস্থ্য দপ্তর প্রথম থেকেই ডেঙ্গু নিয়ে চরম গাফিলতি করেছে। রোগীরা হাসপাতালে গেলে টাইফয়েড বলে ধারণা করে চিকিৎসা করেছেন চিকিৎসকরা। এবং সংবাদমাধ্যমের কাছেও বিষয়টি ধাপা চাপা দেওয়ার চেষ্টা করেছে। কিন্তু এখন যখন রোগীর সংখ্যা বাড়ছে তখন শুরু হয়েছে দৌড়ঝাঁপ। বাড়ি বাড়ি গিয়ে সচেতন করছে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য