Wednesday, February 8, 2023
বাড়িরাজ্যআশা কর্মীর রহস্যজনক মৃতদেহ উদ্ধার জঙ্গলে

আশা কর্মীর রহস্যজনক মৃতদেহ উদ্ধার জঙ্গলে

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১২ জানুয়ারি : সাত সকালে উওর জেলার পানিসাগর মহকুমার অন্তর্গত জলাবাসা এলাকায় অগ্নি দগ্ধ হয়ে মৃত্যু আশা কর্মীর। ঘটনার বিবরণে জানা যায় যে, জলাবাসা এলাকার পুর্ব রৌয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের চার নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মিনতি দাস প্রতিদিনের ন্যায় প্রাতঃভ্রমনে বের হয়। অনেকটা সময় কেটে গেলেও বাড়িতে ফিরেনি। এরই মধ্যে মিনতি দেবির বড় মেয়ে বাড়ির পাশে জল আনতে গিয়ে রাস্তার পাশে জঙ্গলে ধোয়া নির্গত হতে দেখে চিৎকার শুরু করে। ছুটে আসে পরিবারে অন্যান্য লোকজনেরা।

 কিন্তু ততক্ষণে মিনতি দাসীর দেহ অনেকটাই জলসে যায়। পরে মিনতি দাসের হাতের স্বর্ণালংকার দেখে সনাক্ত করে পরিবারের লোকজনেরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে দমকল কর্মীরা পৌঁছায়। নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। কিন্তু কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন। ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে আসে পানিসাগর থানার পুলিশ। মৃতদেহ ময়না তদন্তের জন্য পানিসাগর মহকুমা হাসপাতালে মর্গে নিয়ে যাওয়া হয়। এলাকাবাসীদের সুএে জানা যায়, বিগত প্রায় বছর দশেক পূর্বে মৃত্যু হয় মিনতি দেবির স্বামীর।

এক পুত্র ও দুই কন্যা সন্তানকে নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েন তিনি। স্বামীর মৃত্যুর পর মিনতি দেবি আশাকর্মী হিসেবে কাজে যোগ দিলেও চার জনের সংসারের ভরন পোষন, ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার খরচ সহ চিকিৎসা সংক্রান্ত খরচ যোগাতে প্রতিনিয়ত বেসামাল হয়ে পরতেন। রাত দিন সবসময় এই নিয়ে ভাবতে ভাবতে মানুষিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। ধারণা করা হচ্ছে এই কারণবশত তিনি আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। কিন্তু আবার অনেকে এ ঘটনার পর অনেকটা সংশয় প্রকাশ করেছেন। কারণ মৃতদেহের পাশে একটি কেরোসিনের ড্রাম উদ্ধার করা হয়েছে। যদি প্রাতঃ ভ্রমণে বের হয়ে থাকেন তাহলে কেন কেরোসিনের ড্রাম নিয়ে বাড়ি থেকে বের হবেন আশা কর্মী মিনতি দাস। আসলে আত্মহত্যা নাকি খুন করা হয়েছে তা নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে গুঞ্জন। পুলিশের তদন্তে বের হয়ে আসবে ঘটনার আসল রহস্য।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য