Wednesday, February 8, 2023
বাড়িরাজ্যএক্স -রে পরিষেবা নিয়ে দুর্ভোগ জিবি হাসপাতালে

এক্স -রে পরিষেবা নিয়ে দুর্ভোগ জিবি হাসপাতালে

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১১ ডিসেম্বর : প্রধান রেফারেল হাসপাতালে এক্স-রে পরিষেবা প্রায় অচল হয়ে পড়ছে। দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হয় রোগীর পরিজনদের। জিবি হাসপাতালে দুটি এক্সরে কক্ষ থাকলেও রোগীর ভিড় সামাল দেওয়া অসম্ভব হয়ে পড়ছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় অভিযোগ হলো এক্স -রে মেশিনের প্লেট গুলি প্রায় সমস্যা সৃষ্টি করে। যার ফলে ঘন্টার পর ঘন্টা এক্স এর কক্ষের বাইরে স্ট্র্যাচারে বা হুইল চেয়ারের রোগীদের অপেক্ষা করতে হয়।

দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালে এক্স রে পরিষেবা নিয়ে এ ধরনের অভিযোগ উঠলেও স্বাস্থ্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হচ্ছে না কোন ধরনের ব্যবস্থা। এবং হাসপাতালে কখনো কখনো পরিষেবার এতটা বেহাল দশা দেখে রোগীর পরিজনেরা ক্ষোভের ফেটে পড়ে। হাসপাতালে রোগীদের পরিষেবা দেওয়ার জন্য আরো মেশিনের প্রয়োজন রয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এবং রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর সম্পূর্ণভাবে উদাসীনতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছে। এই বিষয়ে অবগত রয়েছেন রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীও। হাসপাতালে পরিষেবা সঠিকভাবে প্রদান করার জন্য কোন হেলদোল নেই। সবচেয়ে বড় বিষয় হলো হাসপাতালে পরিষেবা বিশেষ করে দুর্ঘটনাগ্রস্হ সংকটাপন্ন রোগীদের জন্য দ্রুত এক্স -রে প্রয়োজন হয়। কিন্তু দেখা যায় চিকিৎসক প্রেসক্রাইব করে দেওয়ার পর এক্সে রুমে এসে রোগীকে নিয়ে লাইন ধরে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। আর এই সময়ের মধ্যে অধিকাংশর রোগী অবস্থা এতটাই গুরুতর হয়ে পড়ে যে চিৎকার শোনা যায়। চিকিৎসক ও নার্স বিষয়টি প্রত্যক্ষ করলেও কোন কিছুই করতে পারে না। এমনই এক চিত্র দেখা গেল জিবি হাসপাতালে। ধৈর্যের বাঁধ ভেঙ্গে যায় রোগীর পরিজনদের। শেষ পর্যন্ত এক্সরে কক্ষের সামনে বিক্ষোভ দেখায় রোগীর পরিজনেরা। নিরাপত্তা কর্মীরা ছুটে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। রোগীর পরিজনদের বক্তব্য যতক্ষণ না এক্সরে রিপোর্ট হাতে আসবে ততক্ষণ চিকিৎসার কাজে হাত লাগায় না কোন চিকিৎসক। এভাবে ঠেলা দিয়ে চলছে হাসপাতালে পরিষেবা। রাজ্য সরকার রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবার উন্নয়ন ঘটেছে বলে জপ মালা গুনছে। রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সরকারে প্রতিষ্ঠিত হয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন পাঁচ বছরের মধ্যে ত্রিপুরায় স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে হাব তৈরি করা হবে। দুমাস পর বিধানসভা নির্বাচন। যতটাই ঢাক ঢোল বাজানোর চেষ্টা করুক না কেন হাসপাতালে যারা চিকিৎসার জন্য যাচ্ছেন তারাই ভালো বলতে পারবে এই পরিষেবারয় কতটা সন্তুষ্ট তারা।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য