Wednesday, November 30, 2022
বাড়িরাজ্যবিজেপি'র বিরুদ্ধে লড়াই করে জনগণের ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত করতে হবে : সীতারাম ইয়েচুরি

বিজেপি’র বিরুদ্ধে লড়াই করে জনগণের ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত করতে হবে : সীতারাম ইয়েচুরি

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২১ অক্টোবর : ২০২৩ -এর বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে ময়দানে ভোটের দামামা বাজালো রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল সিপিআইএম। বিজেপিকে রাজ্য থেকে তাড়াবে জেদ নিয়ে শুক্রবার স্বামী বিবেকানন্দ ময়দানে জন সমাবেশ সংঘটিত করেছে। এদিন সমাবেশ থেকে বরাবরই বর্তমান সরকারের উপর গত সাড়ে চার বছরের ব্যর্থতা অভিযোগ তুলে আক্রমণ সংঘটিত করেছেন সিপিআইএম কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি।

তিনি বলেন, রাজ্যবাসীর রায়ে পুনরায় সিপিআইএম ক্ষমতায় আসবে। কারণ বিজেপি সরকার জনগণের কথা শুনছে না। আর যারা জনগণের কথা শুনবে না তারা সরকারেরও থাকতে পারবে না। কিন্তু নির্বাচন আসলে তারা মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য বিভিন্ন ভাবে প্রচার করে। কিন্তু মানুষের মধ্যে এই সরকারের উপর তীব্র আক্রোশ এবং অসন্তোষ সৃষ্টি হয়ে আছে বলে জানান তিনি। আরো বলেন, পেট্রোল ডিজেল রান্নার গ্যাস থেকে শুরু করে সমস্ত নিত্য প্রয়োজনীয় মূল্য লাফিয়ে বাড়ছে এই সরকারের আমলে। ফলে গরিবত্ব বেড়েছে। এতে ভারতে সবচেয়ে বেশি মানুষ অভাবের কারণে মৃত্যুর শিকার। আর এই কর্মসংস্থানের অভাব এবং খাদ্যের অভাবে মৃত্যুর সংখ্যা দিন দিন বেড়ে চলেছে। দেশের সম্পত্তি বিক্রি করে পুঁজিপতিদের আয় বৃদ্ধি করছে। কিন্তু এ সরকার হলো দেশের ম্যানেজার। দেশের মালিক হলো জনগণ। মালিকের অনুমতি ছাড়া দেশের সম্পত্তি বিক্রি করার কোন অধিকার নেই ম্যানেজারের। তারপরও মালিকের সম্পত্তি বিক্রি করে যে অর্থ রাশি বিজেপি অর্থাৎ দেশের ম্যানেজারের মিলছে সেই টাকা দিয়ে তারা নির্বাচন লড়াই করছে। কিন্তু বিজেপির এই নীতি এখন গুজরাট রাজ্যে সফল হচ্ছে না। তাই নির্বাচন গুজরাট রাজ্যে ঘোষণা করতে ভয় পাচ্ছে বিজেপি বলে অভিমত ব্যক্ত করেন তিনি।

দেশে ধনী আরো বেশি ধনী হচ্ছে, গরিব আরও বেশি গরিব হচ্ছে। আর এগুলি নিয়ে প্রতিবাদে সামিল হলে মানুষের উপর আক্রমণ নামিয়ে আনছে। সবচেয়ে বড় বিষয় হলো বিজেপি ভোটে জয়ী না হলেও বিরোধী দলের বিধায়কদের কিনে ক্ষমতার বসতে চায়। কিন্তু বিরোধী দলের বিধায়ক যদি সাড়া না দেয় তাহলে সেই বিধায়কের উপর কেন্দ্রীয় সংস্থা ইডি এবং সিবিআই দ্বারা মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে জেলে ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তবে এ নীতি অনুসরণ করে নির্বাচনে পরাজিত হয়েও বিজেপি গোয়া, কর্ণাটক শহর বেশ কয়েকটি রাজ্যে সরকার প্রতিষ্ঠিত করেছে। তাই ত্রিপুরার বিধায়কদের ও সচেতন থাকতে হবে জনগণের সাহসের উপর যদি প্রভাব ফেলতে চায়, তাহলে যেভাবে ভগৎ সিং -এর নীতি অনুসরণ করে জনগণের ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে হবে বলে জানান সীতারাম ইয়েচুরি। আরো বলেন মানুষের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করে হিংসা তৈরি করতে সাম্প্রদায়িকতার সুযোগ নিতে চাইছে বিজেপি। আর এটা দেশের জন্য বড় ক্ষতি। আর এর বিরুদ্ধে কেউ কিছু বললে দেশদ্রোহী মামলা দিয়ে জেলে ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে। সরকারকে যেভাবেই হোক গণতান্ত্রিকভাবে রুখতে হবে এবং দেশবাসীর ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে হবে বলে কর্মীদের কাছে আহ্বান জানান ইয়েচুরি।

কিন্তু এদিন পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী রাজধানীর স্বামী বিবেকানন্দ ময়দানে বামেদের জনসমাবেশ রেল দিয়ে রাজ্যের বিভিন্ন মহকুমা থেকে সিপিআইএম কর্মীরা বাধারঘাট রেলস্টেশনে এসে গাড়ি না পেয়ে পায়ে হেঁটে দীর্ঘ পথ অতিক্রম করে কাতারে কাতারে স্বামী বিবেকানন্দ ময়দানে পৌঁছায়। স্বামী বিবেকানন্দ ময়দানে যাতে কর্মীরা পৌছাতে না পারে, তার জন্য গাড়ি বন্ধ করে দিয়েছে শাসক দল। এমনটাই অভিযোগ উঠে সিপিআইএম নেতৃবৃন্দদের পক্ষ থেকে। কিন্তু কর্মীদের এ ধরনের মনোবলতার কুর্নিশ জানান সীতারাম ইয়েচুরি। এদিনের সমাবেশে এছাড়ো উপস্থিত ছিলেন পুলেটব্যরোর সদস্য মানিক সরকার, সিপিআইএম রাজ্য সম্পাদক জিতেন্দ্র চৌধুরী সহ রাজ্য স্তরের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য