Sunday, April 21, 2024
বাড়িখেলা‘ঘণ্টার পর ঘণ্টা’ অনুশীলনের ফসল মদ্রিচের এই গোল

‘ঘণ্টার পর ঘণ্টা’ অনুশীলনের ফসল মদ্রিচের এই গোল

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক,২৬ ফেব্রুয়ারি: লা লিগায় রোববার মদ্রিচের অসাধারণ গোলেই সেভিয়াকে হারিয়ে শীর্ষস্থান সংহত করে রেয়াল। বল পায়ে রাখার লড়াইয়ে অনেক এগিয়ে থেকেও যখন গোলের পথ পাচ্ছিল না তারা, তখনই ত্রাতা হয়ে আসেন ৩৮ বছর বয়সী মিডফিল্ডার। ৭৫তম মিনিটে বদলি হিসেবে তাকে মাঠে নামান কোচ কার্লো আনচেলত্তি। ৬ মিনিট পরই তার ওই গোল। সেভিয়ার এক ডিফেন্ডার হেড করে বিপদমুক্ত করার চেষ্টায় বল পাঠিয়ে দেন বক্সের বাইরে থাকা মদ্রিচের কাছে। তিনি বল ধরে সামনে থাকা ডিফেন্ডারের কাছ থেকে জায়গা বানাতে বল আলতো করে ডানে সরিয়েই শট নিয়ে ফেলেন। তীব্র গতির শট ডান পোস্ট ঘেঁষে আশ্রয় নেয় জালে।

এমনিতে চলতি মৌসুম খুব ভালো কাটছে না তার। এই ৩৮ বছর বয়সে শুরুর একাদশে নিয়মিত জায়গা না পাওয়াই স্বাভাবিক। তবে বদলি হিসেবে যতটুকু সুযোগ পাচ্ছিলেন, সেখানে ততটা প্রভাব রাখতে পারছিলেন না সাম্প্রতিক ম্যাচগুলোয়। অবশেষে নিজের চেনা ঝলক দেখালেন সেভিয়ার বিপক্ষে। এরকম গোল তার জন্য নতুন কিছু নয়। রেয়াল মাদ্রিদ ও ক্রোয়েশিয়ার হয়ে আলো ঝলমলে ক্যারিয়ারে বেশ কবারই বক্সের বাইরে থেকে গোল করেছেন। সেভিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ শেষে তিনি দাজনকে বললেন, অনেক সাধনার ফসল এসব। “প্রতিদিন, দিনের পর দিন অনেক অনেক অনুশীলন করেই এটা রপ্ত করতে হয়। প্রতিদিন ঘণ্টার পর ঘণ্টা দূর থেকে গোলে শট অনুশীলন করতে দেখে থাকবেন আমাকে…। ফুটবলে চেষ্টা করে যেতেই হবে, গোলে শট নিতে হবে। সেটিই আমি করেছি আজকে এবং বল ভেতরে গিয়েছে।” 

মদ্রিচের গোল ও রেয়ালের জয়ে সেই চেনা চরিত্রই ফুটে উঠেছে আবার। তিনি কিংবা তার ক্লাব, হাল ছাড়েন না। শেষের আগে কখনও শেষ বলে ধরে নেন না। মদ্রিচ বললেন, এই ম্যাচে পয়েন্ট না হারাতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিলেন তারা।“অধ্যাবসায় ও হাল না ছাড়া হলো আমাদের শক্তির একটি জায়গা। আমরা কখনোই থামি না। আমরা লড়ে যাই, সুযোগ তৈরি করি এবং শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত চেষ্টা করে যাই। আমরা জানতাম, আজকে কোনোভাবেই পয়েন্ট হারানো চলবে না আমাদের, কারণ বার্সেলোনা অনেক কাছে চলে আসছে। আমরা তা হতে দিতে পারি না।” “ম্যাচজুড়ে সেই জেদ ও তাড়নাই শেষ পর্যস্ত কাজে লেগেছে। এই লিগের জন্য আমাদের খুবই গুরুত্বপূর্ণ দিনটি পয়েন্ট এটি।” এই জয়ে বার্সেলোনার সঙ্গে ৮ পয়েন্টের ব্যবধান ধরে রাখল রেয়াল। ২৬ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ৬৫, বার্সেলোনার ৫৭। ২৫ ম্যাচে ৫৬ পয়েন্ট পাওয়া জিরোনা দুইয়ে উঠে আসতে পারে সোমবার রায়ো ভাইয়েকানোর বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য