Tuesday, July 16, 2024
বাড়িবিশ্ব সংবাদবাইডেনকে সরে দাঁড়ানোর আহ্বান জানালেন জর্জ ক্লুনি

বাইডেনকে সরে দাঁড়ানোর আহ্বান জানালেন জর্জ ক্লুনি

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ১১ জুলাই: যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাচনি দৌড় থেকে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে সরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তার সবচেয়ে বড় সমর্থকদের একজন এবং ডেমোক্র্যাটিক দলের শীর্ষ অর্থ সংগ্রাহক জর্জ ক্লুনি।এর কয়েক ঘণ্টা আগেই ঊর্ধ্বতন ডেমোক্র্যাট ও সাবেক হাউজ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসিও বাইডেনকে নির্বাচনে তার প্রার্থিতার বিষয়ে দ্রুতই সিদ্ধান্ত নেওয়ার তাগাদা দিয়েছিলেন।

তিনি বলেছিলেন, প্রেসিডেন্ট সরে দাঁড়াবেন কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার তার ব্যাপার। কিন্তু গত মাসের বিপর্যয়কর নির্বাচনী বিতর্কের পর আমরা তাকে প্রার্থিতার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বলছি। কারণ, হাতে খুব বেশি সময় নেই।এবার হলিউড অভিনেতা এবং ডেমোক্র্যাটিক পার্টির অর্থ সংগ্রাহক জর্জ ক্লুনির কণ্ঠেও শোনা গেল একই সুর। বুধবার তিনি বলেছেন, প্রেসিডেন্ট তার ক্যারিয়ারে অনেক লড়াইয়েই জিতেছেন। কিন্তু একটি লড়াইয়ে তিনি জিততে পারেননি। আর তা হচ্ছে সময়ের বিপরীতে লড়াই।”

দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস পত্রিকায় মতামত বিভাগে ক্লুনি লেখেন, “আমি জো বাইডেনকে একজন সিনেটর, ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং প্রেসিডেন্ট হিসাবে ভালবাসি। আমি তাকে বন্ধুও মনে করি। তার ওপর আমার বিশ্বাস আছে।”কিন্তু গত ১৫ জুনের অর্থ সংগ্রহ অনুষ্ঠানে তিনি যে বাইডেনকে দেখেছেন সে ২০১০ সালের বাইডেন, এমনকী ২০২০ সালের বাইডেনের মতোও ছিল না বলে ক্লুনি উল্লেখ করেন।তিনি বলেন, “বাইডেন হচ্ছেন সেই একই মানুষ যাকে আমরা সবাই নির্বাচনি বিতর্কে (২৭ জুন) দেখেছি। এটি বয়সের ব্যাপার। আমরা এই প্রেসিডেন্টকে নিয়ে নভেম্বরের নির্বাচনে জিততে পারব না।”

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে সমালোচিত নির্বাচনি বিতর্কের ১২ দিন পর বাইডেন এখন তার রাজনৈতিক অস্তিত্ব রক্ষার জন্য অভ্যন্তরীন ও বৈশ্বিক নজরদারির মধ্যে তীব্র লড়াই করছেন।সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে জুনে সিএনএন এর আটলান্টা স্টুডিওতে প্রথম মুখোমুখি বিতর্কে বাইডেনের শোচনীয় পরাজয়ের পর থেকেই লাভ-ক্ষতির হিসাব-নিকাশ করছেন ডেমোক্র্যাটরা।

গত কয়েকদিনে বাইডেন তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন। নির্বাচনি বিতর্কে হারার পর থেকেই বাইডেন ডেমোক্র্যাটদের উদ্বেগ নানাভাবে চেষ্টা করেও কমাতে পারছেন না।নির্বাচনি দৌড় থেকে বাইডেনের সরে যাওয়ার আহ্বান ক্রমেই জোরাল হচ্ছে। বাইডেনের মানসিক ও শারিরীক সক্ষমতা নিয়ে সংশয় সৃষ্টি হয়েছে ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে।বাইডেনকে সমর্থন করেন এমন বেশ কয়েকজন নির্বচনি প্রচারে জয়ের পথে এগুতে বাইডেনের কৌশল এবং সক্ষমতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য