Wednesday, April 24, 2024
বাড়িবিশ্ব সংবাদহুন মানেটকে ক্যাম্বোডিয়ার প্রধান মন্ত্রী করতে রাজ ডিক্রি জারি

হুন মানেটকে ক্যাম্বোডিয়ার প্রধান মন্ত্রী করতে রাজ ডিক্রি জারি

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক,৭ আগস্ট: রাজকীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়েছে, এবার শুধু পার্লামেন্টে অনুমোদনের অপেক্ষা। সেটা পেলেই ক্যাম্বোডিয়ার পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হবেন হুন সেনের বড় ছেলে হুন মানেট।বিবিসি জানায়, কয়েক দিন আগে প্রধানমন্ত্রী হুন সেন ক্যাম্বোডিয়ার রাজা নরোদাম সিহামনির কাছে এ সংক্রান্ত অনুরোধ জানিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন।যার ভিত্তিতে সোমবার ক্যাম্বোডিয়ার রাজা দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে হুন মানেটের নিয়োগ অনুমোদন করে একটি ডিক্রি জারি করেন। এতে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী হুন সেনের স্থলাভিষিক্ত হবেন হুন মানেট।হুন সেন গত ৩৮ বছর ধরে ক্যাম্বোডিয়া শাসন করছেন। গত ৫ অগাস্ট ছিলো এই খেমার রুজ গেরিলার ৭১তম জন্মদিন।বয়স হয়ে যাওয়ায় ক্ষমতা ছাড়তে হবে, তাই গত কয়েক বছর ধরেই বড় ছেলে হুন মানেটের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য মঞ্চ প্রস্তুত করছিলেন তিনি।গত ২৩ জুলাই জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কয়েক দিনেই মধ্যেই তিনি ক্ষমতা ছাড়ার ঘোষণা দেন।

যদিও হুন মানেট শীঘ্রই বাবার স্থলাভিষিক্ত হতে যাচ্ছেন, সে আভাস নির্বাচনী প্রচারের সময়ই পাওয়া যাচ্ছিল। নির্বাচনের আগে বেশিরভাগ জনসমাবেশেই বাবা পাশে পাশে থেকেছেন তিনি।নির্বাচনে পাঁচটি বাদে ক্যাম্বোডিয়ার পার্লামেন্টের বাকি সব আসনে জিতেছে হুন সেনের দল। যদিও সমালোচকরা একে কোনো ভাবেই গণতান্ত্রিক নির্বাচন বলতে রাজি নন। বরং তারা একে হুন মানেটের রাজ্যাভিষেক বলছেন।নিজের ৩৮ বছরের শাসনামলে হুন সেন নির্দয়ভাবে বিরোধীমতকে দমন করেছেন। দেশটির বিরোধীদলের বেশিরভাগ নেতাই দেশ থেকে স্বেচ্ছা নির্বাসনে বাধ্য হয়েছে। এবারের নির্বাচন তার দলের সঙ্গে বাকি যে ১৭টি দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে তাদের কারো পক্ষেই, এমনকি সম্মিলিতভাবেও হুন সেনের দলকে ছাড়িয়ে যাওয়ার সক্ষমতা তাদের ছিল না।তাই নির্বাচনে প্রত্যাশিত ফলাফল পেতে হুন সেনের দলকে মোটেও বেগ পেতে হয়নি। ভোটে জেতার পর শুরু হয়েছে দায়িত্ব হস্তান্তর প্রক্রিয়া।৪৫ বছর বয়সী হুন মানেট রয়্যাল ক্যাম্বোডিয়ান আর্মির কমান্ডার হিসেবে এতদিন দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। তার পাশাপাশি চলছিল প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণের প্রস্তুতি।রাজ ডিক্রি জারি হলেও প্রধানমন্ত্রী হতে হুন মানেটকে এখনো দেশটির ১২৫ আসনের পার্লামেন্টের অনুমোদন পেতে হবে। আগামী ২২ অগাস্ট পার্লামেন্টে ভোট হবে এবং নিশ্চিতভাবেই হুন মানেট অনুমোদন পাবেন। কারণ, ১২৫টি আসনের মধ্যে ১২০টিতেই রয়েছে তার বাবার দল ক্যাম্বোডিয়ান পিপলস পার্টির নিয়ন্ত্রণ।

হুন মানেটের নতুন মন্ত্রিসভায় নতুন মুখ জায়গা পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।১৯৭০ ও ৮০’র দশকে খেমার রুজ বিপ্লব এবং ক্যাম্বোডিয়ায় গৃহযুদ্ধের সময় হুন সেনের সঙ্গে যারা বেড়ে উঠেছেন তাদের অনেকেই তার সরকার ব্যবস্থায় ছিলেন।হুন সেনের মত তাদেরও বয়স হয়েছে এবং ধীরে ধীরে দায়িত্ব ছেড়ে দিচ্ছেন। তাদের বেলাতেও অনেকে সন্তানদের হাতে দায়িত্ব হস্তান্তর করেছেন।প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দিলেও দলের নেতৃত্ব হুন সেনের হাতেই রয়েছে। যার ফলে ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণ মূলত তার হাতেই থেকে যাচ্ছে বলে মত রাজনীতি বিশ্লেষকদের।হুন সেন নিজেও সে কথা স্পষ্ট করেই বলেছেন। সোমবার টেলিগ্রামে এক পোস্টে তিনি লেখেন, “এখনো শেষ হওয়া বাকি আছে। আমি অন্যান্য পদে এখনো অন্তত ২০৩৩ সাল পর্যন্ত সেবা দিয়ে যাব।”হুন মানেট বাবার মত কর্তৃত্ববাদী শাসক হবেন নাকি তার আমলে ক্যাম্বোডিয়া সত্যিকারের গণতন্ত্রের পথে পরিচালিত হবে, তা সময়ই বলে দেবে। যদিও তিনি বাবার থেকে খানিকটা উদার শাসক হওয়ার আভাস আগেই দিয়েছেন।ব্রিস্টোল বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করা হুন মানেট ইউএস মিলিটারি অ্যাকাডেমি ওয়েস্ট পয়েন্ট এ অংশ নিয়েছেন।হুন সেনের ক্যাম্বোডিয়া চীন ঘনিষ্ঠ ছিল। পশ্চিমাদের সঙ্গে সম্পর্কে ছিল ছাড়া ছাড়া ভাব। কিন্তু পশ্চিমা সংস্কৃতিতে বেড়ে ওঠা হুন মানেট বাবার পথেই হাঁটবেন নাকি পশ্চিমাদের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটাবেন, অনেকের মনে এ প্রশ্নও রয়েছে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য