Tuesday, February 7, 2023
বাড়িবিশ্ব সংবাদপেরুতে বিক্ষোভ: ক্ষুব্ধ ক্যাস্তিয়ো সমর্থকদের সড়ক, বিমানবন্দর অবরোধ

পেরুতে বিক্ষোভ: ক্ষুব্ধ ক্যাস্তিয়ো সমর্থকদের সড়ক, বিমানবন্দর অবরোধ

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ১৩ ডিসেম্বর: পেরুতে সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীরা দেশটির দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর আরেকিপার একাধিক সড়ক আটকে বিক্ষোভ দেখানোর পাশাপাশি আন্তর্জাতিক একটি বিমানবন্দরে হানা দিয়ে সেখানকার কার্যক্রমেও ব্যাঘাত ঘটিয়েছে।পেদ্রো ক্যাস্তিয়োকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেওয়ার পর দেশটিতে চলমান প্রাণঘাতী অস্থিরতা সোমবার আরও তীব্র হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।বামপন্থি সাবেক প্রেসিডেন্টের অভিশংসন এবং পরে তাকে গ্রেপ্তারে ক্ষুব্ধ সমর্থকরা দেশটির বিভিন্ন অংশে সড়ক আটকে বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছে।ক্যাস্তিয়োর সাবেক ডেপুটি এবং বর্তমানে পেরুর প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করা দিনা বলুয়ার্তে বিক্ষোভকারীদের শান্ত করতে আগাম নির্বাচনের প্রস্তাব দিয়েছেন। তিনি এখন বলছেন, ২০২৪ সালের এপ্রিলে সাধারণ নির্বাচন দিতে আগ্রহী তিনি।তবে ক্যাস্তিয়ো এ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে বলুয়ার্তের পরিকল্পনাকে ‘নোংরা নাটক’ অ্যাখ্যা দিয়েছেন।গত সপ্তাহে ক্যাস্তিয়োকে অভিশংসনের মাধ্যমে ক্ষমতাচ্যুত করার পর শুরু হওয়া বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত ৭ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।বামপন্থি ক্যাস্তিয়োর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছেন তার বিরোধীরা।অভিশংসন নিয়ে ভোটের কয়েকঘণ্টা আগে বিরোধী নিয়ন্ত্রিত পার্লামেন্ট বিলুপ্তের চেষ্টার অভিযোগে তাকে আটকও করা হয়েছে।সোমবার টুইটারে পোস্ট করা হাতে লেখা চিঠিতে ক্যাস্তিয়ো বর্তমান প্রেসিডেন্ট বলুয়ার্তেকে ‘ক্ষমতা দখলকারী’ অ্যখ্যা দিয়েছেন। বলেছেন, তাকে (ক্যাস্তিয়ো) ‘অপহরণ’ ও অপমান করা হয়েছে।ক্যাস্তিয়োর সমর্থকরা বলছেন, বলুয়ার্তে জনগণের ভোটে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট নন। তারা নতুন নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন।অনেক বিক্ষোভকারী কংগ্রেস ভেঙে দিতে এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট ক্যাস্তিয়োকে মুক্তি দেওয়ারও আহ্বান জানিয়েছেন।

বিবিসি জানিয়েছে, সোমবারও বিক্ষোভকারীরা একাধিক সড়ক আটকে রাখে, যানবাহনে আগুন ধরিয়ে দেয়।হাজার দুয়েক বিক্ষোভকারী দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর আরেকিপার বিমানবন্দরে ঢুকে এর রানওয়ে অবরুদ্ধ করে রাখলে কর্তৃপক্ষ বিমান চলাচল কয়েক ঘণ্টা বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়। পুলিশ পরে কাঁদুনে গ্যাস ছুড়ে ওই বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে।এর আগে টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে পেরুর প্রেসিডেন্ট পদে থাকা প্রথম নারী বলুয়ার্তে বলেন, তিনি ২০২৬ সালের এপ্রিলের বদলে ২০২৪ এর এপ্রিলে সাধারণ নির্বাচন দিতে কংগ্রেসে একটি বিল আনতে যাচ্ছেন।অথচ গত সপ্তাহের বুধবার প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেওয়ার পরপরই এ নারী বলেছিলেন, তিনি ক্যাস্তিয়োর ৫ বছরের বাকি মেয়াদ শেষ করে তবেই নির্বাচন দেবেন।বিক্ষোভের মুখে তাকে আগের ওই অবস্থান থেকে পিছু হটতে হল বলেই ধারণা বিশ্লেষকদের।কয়েকদিন আগে পেরুর আদালত ক্যাস্তিয়োকে প্রাথমিকভাবে ৭ দিনের আটকাদেশ দেয়; তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহের অভিযোগ আনা হবে কিনা, তা নিয়ে তদন্তও চলছে।ক্যাস্তিয়ো সমর্থকদের এই বিক্ষোভকে বলুয়ার্তের জন্য বড় ধরনের পরীক্ষা হিসেবেই দেখা হচ্ছে, তিনি ২০২৪ সালের এপ্রিল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকতে পারবেন কিনা বিক্ষোভ থেকে সে ব্যাপারেও খানিকটা আন্দাজ পাওয়া যাবে।দক্ষিণ আমেরিকার এ দেশটিতে দীর্ঘদিন ধরেই রাজনৈতিক অস্থিরতা দেখা যাচ্ছে; দেশটির আইন ও শাসন বিভাগের মধ্যে রেষারেষিও অব্যাহত আছে। ছয় বছরের মধ্যে দেশটি বলুয়ার্তেসহ ছয়জনকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে পেয়েছে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য