Tuesday, November 29, 2022
বাড়িবিশ্ব সংবাদবার্ড ফ্লুর ভয়াবহ প্রাদুর্ভাব, বিপাকে যুক্তরাষ্ট্র

বার্ড ফ্লুর ভয়াবহ প্রাদুর্ভাব, বিপাকে যুক্তরাষ্ট্র

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক, আগরতলা, ১৯ অক্টোবর: এভিয়ান ফ্লু বা বার্ড ফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে এবছর যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় রেকর্ড সংখ্যক মুরগী ও টার্কি মারা গেছে। কর্মকর্তারা জানান, অতীতে খামারিদের ভাইরাসের যে ধরণ মোকাবেলা করতে হয়েছে এবারের ধরণ তার থেকে খানিকটা ভিন্ন।এ বছর বার্ড ফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে চার কোটি ৭০ লাখের বেশি পাখি মারা গেছে। ফলে রপ্তানি নিষিদ্ধ করতে হয়েছে, ডিম ও টার্কির উৎপাদন কমে গেছে এবং যুক্তরাষ্ট্রে ছুটির মৌসুম শুরুর আগে এসবের দাম রেকর্ড পরিমাণ বেড়ে গেছে।পণ্যমূল্যের চরম উর্ধ্বগতিতে দিশেহারা ক্রেতাদের উপর এর প্রভাব আরও দুর্ভোগ বয়ে এনেছে।এর আগে ২০১৫ সালে বার্ড ফ্লুর প্রাদুর্ভাবে যুক্তরাষ্ট্রে রেকর্ড পাঁচ কোটি পাঁচ লাখ পাখির মৃত্যু হয়। যা দেশটিতে পশু-স্বাস্থ্য খাতে সবথেকে খারাপ আঘাত ছিল।এবার খামারিদের ভাইরাসের এইচ৫এন১ ধরণের যে উপধরণের মোকাবেলা করতে হচ্ছে সেটি গরমের মৌসুমেও টিকে থাকতে সক্ষম হয়েছে বলে জানান যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি মন্ত্রণালয়ের পশু বিষয়ক কর্মকর্তা রোজমেরি সিফোর্ড। যেখানে তাপমাত্রা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সাধারণত এভিয়ান ফ্লুর আক্রমণের ধার কমে যায়।এক সাক্ষাৎকারে ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, ভাইরাসের ওই উপধরণটি ইউরোপেও ছড়িয়েছে।‘‘ইউরোপ এবার এভিয়ান ফ্লুর সবচেয়ে মারাত্মক প্রাদুর্ভাব মোকাবেলা করছে। এরই মধ্যে সেখানে প্রায় পাঁচ কোটি পোলট্রি মারা গেছে।”কর্মকর্তারা অতীতের তুলনায় এবার বুনো হাঁসের মত বন্য পাখিদের মধ্যে ভাইরাসের ওই উপধরণটি বেশি পেয়েছেন এবং পাখির দেহে এটি ধারণার চেয়ে বেশি সময় বেঁচে থাকছে।যা সংক্রমণের ঝুঁকি আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে এবং খুব সম্ভবত ২০২৩ সালের গ্রীষ্মকাল পর্যন্ত এটি স্থায়ী হবে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন পশু কর্মকর্তা সিফোর্ড।এভিয়ান ফ্লু সংক্রমণ প্রতিরোধে যুক্তরাষ্ট্র ‘ফ্লাইওয়ে’ নামে পরিচিত চারটি অভিবাসন পথে বন্য পাখিদের চলাচল পর্যবেক্ষণ করছে। আগের দুটি পথ পর্যবেক্ষণে রাখা হত। আগামী বছরও দেশটি একই কাজ করার পরিকল্পনা করেছে।সিফোর্ড বলেন, ‘‘অদূর ভবিষ্যতেও এ ভাইরাস বন্য পাখিদের মধ্যে উপস্থিত হতে পারে। এটি নিশ্চিতভাবেই ভিন্ন হবে।”গত ফেব্রুয়ারি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ৪২টি রাজ্যে এই ভাইরাস সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে। যা ২০১৫ সালের তুলনায় দ্বিগুণ। এছাড়া, সেবার গ্রীষ্মকালে ভাইরাস সংক্রমণ বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এবার গরমে সংক্রমণ খানিকটা ধীরগতি পেলেও পুরোপুরি বন্ধ হয়নি।অবাক করার মতো বিষয় হচ্ছে, বেশির ভাগ মানুষই এটা জানেন না।অবশ্যই এসব অস্ত্রের ব্যবহার করাটা হবে পাগলামো, কিন্তু এখন যে পরিস্থিতি বিরাজ করছে সেটিও আসলে পাগলামো।”সেখানে আরো অনেকে পক্ষে-বিপক্ষে নানা মন্তব্য করেন।মাস্ক সেখানে আবার টুইট করেন। এবার তিনি লেখেন, ‘‘‍অবশ্যই কোনো দায়িত্ববান ব্যক্তি পারমাণবিক যুদ্ধ শুরু করতে চাইবেন না। কিন্তু এই যুক্তির সমস্যাটা হলো, যদি দায়িত্ববান মানুষদের সঙ্গেই আমাদের কাজ চলতো, তবে যুদ্ধ আমাদের তালিকায় প্রথমে থাকতো না।”গত ৩ অক্টোবর পরপর কয়েকটি টুইটে ইউক্রেইন-রাশিয়া যুদ্ধে মৃতের সংখ্যা বাড়তেই থাকবে এবং শেষ পর্যন্ত পারমাণবিক হামলার আশঙ্কা উল্লেখ করে রাশিয়া ও ইউক্রেইনের মধ্যে ‘শান্তির ডাক’ দিয়েছেন মাস্ক।তারপরের টুইটে জরিপ চালু করেছেন তিনি। জরিপের প্রশ্নে ইউক্রেইন আর রাশিয়ার মধ্যে শান্তির জন্য চারটি ‘শর্তের’ কথা উল্লেখ করে তার পক্ষে-বিপক্ষে টুইটার ভক্তদের মতামত চেয়েছিলেন টেসলা ও স্পেসএক্স প্রধান।জরিপে শান্তির জন্য মাস্ক যে চারটি ‘শর্ত’ উল্লেখ করেছেন, সেগুলো হলো:

  • রাশিয়ার দখলকৃত অঞ্চলগুলোতে জাতিসংঘের অধীনে নতুন নির্বাচন। নির্বাচনে হারলে ওই অঞ্চলগুলো ছাড়তে হবে রাশিয়াকে।
  • আনুষ্ঠানিকভাবে রাশিয়ার অন্তর্ভূক্ত হবে ক্রাইমিয়া; ১৭৮৩ থেকে যেমনটা ছিল।
  • ক্রাইমিয়ায় পানির সরবরাহ নিশ্চিত করা।
  • নিরপেক্ষ থাকবে ইউক্রেইন। (নেটো জোটভুক্ত হবে না দেশটি)।
  • মাস্ক যে শর্তগুলো উল্লেখ করেছেন তার সবগুলো কার্যত রাশিয়ার পক্ষে যায়।
  • বেশিরভাগ মানুষ মাস্কের ওই ডাকের বিরোধীতা করেছেন।
সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য