Monday, May 16, 2022
বাড়িরাজ্যরাতের অন্ধকারে ষড়যন্ত্র তৈরি করতে সক্রিয় কমিউনিস্টরা : মুখ্যমন্ত্রী

রাতের অন্ধকারে ষড়যন্ত্র তৈরি করতে সক্রিয় কমিউনিস্টরা : মুখ্যমন্ত্রী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ৭ মে : রাজ্যে একটা সময় রাজনীতি ব্যবসা ছিল, এখন রাজনীতি ব্যবসা চলে না, রাজনীতি মানে উন্নয়নের স্বার্থে কাজ করা। শনিবার কমলপুর মহাবীর টি ই-স্টেট এস বি স্কুলের মাঠে মুখ্যমন্ত্রী চা শ্রমিক কল্যাণ প্রকল্প স্কিমের উদ্বোধন করে একথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব।কমিউনিস্ট সরকার থাকতে ২.০৪ শতাংশ জল সংযোগ পয়সা দিয়ে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিয়েছিল।

আর বিপ্লব দেব, নরেন্দ্র মোদি বিনা পয়সায় দুবছরে ৫৫ শতাংশ বাড়িতে জলের সংযোগ পৌঁছে দিয়েছে। তারপরও রাস্তার মধ্যে বসে যায় পথ অবরোধ করতে কিছু মানুষ। তারা কারা। বিরোধীদল কমিউনিস্টরা চক্রান্ত করে রাস্তায় বসিয়ে দেয়। এই রাজনীতি ত্রিপুরা রাজ্যে হবে না বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। ব্যক্তি আক্রমণ মানে সঠিক দিশা এগিয়ে যাওয়া। এর উদাহরণ দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। নরেন্দ্র মোদির সঠিক দিশা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন বলে তিনি বারবার ব্যক্তি আক্রমণ হচ্ছেন। আর যত বেশি প্রধানমন্ত্রী আক্রমণ হচ্ছেন, তত বেশি বিজেপি অধিকার নিয়ে ক্ষমতায় আসছে। পূর্বে যারা চা শ্রমিক, কৃষকদের কথা বলে রাজনীতি করতেন তারা আজও সক্রিয় আছেন।

রাতের অন্ধকারে ষড়যন্ত্র তৈরি করেন। কিন্তু নরেন্দ্র মোদী এবং বিপ্লব কুমার দেব ষড়যন্ত্র তৈরি করেন না। আগে কৃষকদের দিয়ে শুধু আন্দোলন করানো হতো। আর এর জন্য কৃষকদের ১০ পয়সাও মিলত না। আজ তারা কৃষকদের নিয়ে এ ধরনের ষড়যন্ত্র করতে চায়। কিন্তু বর্তমান সরকারের আমলে সব কিছু না হলেও, অনেক কিছুই সম্পন্ন হয়েছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। ৩২৫০ জন সুবিধাভোগী প্রধানমন্ত্রী কিষান নিধি যোজনার মাধ্যমে জেলায় ৬৮ কোটি ২৪ লক্ষ টাকার সুবিধা পেয়েছে।

 তিনি বলেন, বর্তমান সরকার সপ্তম বেতন কমিশন প্রদান করেছে, দুই টাকা করে সামাজিক ভাতা প্রদান করতে চাইছে সরকার, বিনামূল্যে বাড়ি বাড়ি জল পৌঁছে দেওয়ার কাজ সম্পন্ন করছে সরকার, অতিমারির জন্য ৫ কিলো করে গরিবদের চাউল প্রদান করা হচ্ছে। এগুলো বর্তমান সরকারের আছে বলেই সম্ভব হয়েছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী বলেন বর্তমান সরকারের সবচেয়ে বেশি মহিলাদের স্বনির্ভর করতে গুরুত্ব দিয়ে চলেছে। বাড়ির মালিক যখন মহিলা হবে তখন সমাজ এগিয়ে যাবে। এর জন্য মহিলাদের স্বনির্ভর করতে সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। পাশাপাশি চাকরির ক্ষেত্রেও ৩৩ শতাংশ সংরক্ষণ চালু করেছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। এদিন অনুষ্ঠানে এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী মনোজ কান্তি দেব, স্থানীয় বিধায়ক সহ ত্রিপুরার চা উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান সন্তোষ সাহা।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য