Wednesday, May 18, 2022
বাড়িরাজ্যড. আম্বেদকরের আদর্শকে নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে :...

ড. আম্বেদকরের আদর্শকে নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে : তফশিলি জাতি কল্যাণ মন্ত্রী

আগরতলা, ১৪ এপ্রিল (হি.স.) : যথাযোগ্য মর্যাদায় আজ রাজ্যে ভারতরত্ন ও সংবিধান প্রণেতা বাবাসাহেব ড. ভীমরাও রামজি আম্বেদকরের ১৩২-তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন করা হয়েছে। সকালে ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলায় রাজ্যভিত্তিক মূল অনুষ্ঠানটি আয়োজিত হয়েছে উজ্জয়ন্ত প্রাসাদ প্রাঙ্গণে। তফশিলি জাতি কল্যাণ দফতর এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। অনুষ্ঠানে ড. আম্বেদকরের মর্মর মূর্তিতে মাল্যদান করে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন তফশিলি জাতি কল্যাণ মন্ত্রী ভগবানচন্দ্র দাস।

এর পর ড. আম্বেদকরের মূর্তিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন বিধানসভার মুখ্য সচেতক বিধায়ক কল্যাণী রায়, বিধায়ক রেবতীমোহন দাস, জিরানিয়া নগর পঞ্চায়েতের চেয়ারপার্সন রতনকুমার দাস, তফশিলি জাতি কল্যাণ দফতরের বিশেষ সচিব অভিষেক চন্দ্রা, অধিকর্তা সন্তোষ দাস, পশ্চিম জেলার অতিরিক্ত জেলাশাসক অসীম সাহা, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতরের অতিরিক্ত সচিব শুভাশিস দাস, ওবিসি কল্যাণ দফতরের অধিকর্তা কুন্তল দাস, খাদ্য, জনসংভরণ ও ভোক্তা বিষয়ক দফতরের অধিকর্তা তপনকুমার দাস, সমাজসেবী সুব্রত চক্রবর্তী সহ শিল্পী, সাহিত্যিক, লেখক, বিভিন্ন ছাত্রাবাস, ছাত্রী নিবাসের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও ছাত্রছাত্রীগণ।

অনুষ্ঠানের পর সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময় তফশিলি জাতি কল্যাণ মন্ত্রী ভগবানচন্দ্র দাস বলেন, ড. আম্বেদকর সারাজীবন তফশিলি জাতি সম্প্রদায়ের অধিকার আদায়ের জন্য লড়াই করে গেছেন। এজন্য তিনি বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিলেন। যার কারণে তফশিলি জাতিভুক্ত মানুষের আজ সম্মান বেড়েছে। তিনি বলেন, অনেক ঘাত-প্রতিঘাত সহ্য করে ড. আম্বেদকর নিজেকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন।

মন্ত্রী দাস বলেন, বাবাসাহেব ড. আম্বেদকর খুব মেধাবী ছিলেন। ড. আম্বেদকরের আদর্শকে নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে এ বছর আজ থেকে সারা রাজ্যে সপ্তাহব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। কর্মসূচি অনুযায়ী আগামী ১৬ এপ্রিল সকাল ১০টায় এনএসআরসিসি-তে আয়োজিত হবে ব্যাডমিন্টন ও যোগাসন প্রতিযোগিতা। দুপুর ২-টায় উমাকান্ত মাঠে ফুটবল প্রতিযোগিতা। ১৭ এপ্রিল উমাকান্ত মিনি স্টেডিয়ামে বিকেল ৩:৩০ মিনিটে আয়োজিত হবে ফুটবল প্রতিযোগিতা। ১৮ এপ্রিল সকাল ১০টায় জেলাভিত্তিক আলোচনাচক্র, খেলাধুলা, আর্ট ও অন্যান্য প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। ১৯ এপ্রিল প্রতিটি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় স্তরে আলোচনাচক্র অনুষ্ঠিত হবে। ২০ এপ্রিল সকাল ১১:৩০ মিনিটে রবীন্দ্র শতবার্ষিকী ভবনের ১ নম্বর প্রেক্ষাগৃহে আয়োজিত হবে রাজ্যভিত্তিক আলোচনাচক্র ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য