Wednesday, May 18, 2022
বাড়িরাজ্যঅ্যাম্বুলেন্স না পেয়ে রোগীর মৃত্যু

অ্যাম্বুলেন্স না পেয়ে রোগীর মৃত্যু

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২ এপ্রিল : হাসপাতালে চিকিৎসক আছে, অ্যাম্বুলেন্স আছে। কিন্তু দেখা নেই অ্যাম্বুলেন্স চালকের, এবং দায়িত্ব নিলেন না চিকিৎসক। রেফার করা রোগীকে দীর্ঘ এক ঘন্টা ফেলে রাখার পর মৃত্যু হলো বিনা চিকিৎসায়। এমনটাই অসহায় চিত্র বিশালগড় মহকুমা হাসপাতালে। কান্নায় ভেঙে পড়ল পরিবার-পরিজন। জানা গেছে স্বদেশ ঘোষ নামে এক ব্যাক্তি প্রচন্ড পেটব্যথা এবং শ্বাসকষ্ট নিয়ে বিশালগড় মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি হয়।

 উনার অবস্থা এতটাই আশঙ্কাজনক ছিল যে কর্তব্যরত চিকিৎসকদের সঙ্গে সঙ্গেই অক্সিজেন সাপোর্ট দিতে হয়েছে এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য হাপানিয়াস্থিত টিএমসি হাসপাতালে রেফার করে। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হলো রোগীকে নিয়ে যাওয়ার জন্য হাসপাতাল পরিসরে অ্যাম্বুলেন্স দাঁড়িয়ে থাকলেও অ্যাম্বুলেন্সের চালক ছিল বেহদিশ। একঘন্টা ধরে রোগীর আত্মীয়রা অ্যাম্বুলেন্স চালককে বহুু খোঁজাখুঁজি করে কোথাও পায়নি বলে অভিযোগ। বিশালগড় মহকুমা হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে মোট তিনটি।

এর মধ্যে দুটি এম্বুলেন্স বিশালগড় মহাকুমা হাসপাতালের এবং অপর অ্যাম্বুলেন্সটি ১০২ নম্বরের। শনিবার সকালে চিকিৎসক যখন রোগীকে হাপানীয়া হাসপাতালে রেফার করে তখন হাসপাতালের একটি এম্বুলেন্স অন্য একটি রোগী রেফার নিয়ে অন্যএ চলে যায়। আর ১০২ নম্বরের অ্যাম্বুলেন্সটি অপর এক রোগীকে বাড়ি থেকে আনার জন্য যায়। কিন্তু হাসপাতালে থাকা এম্বুলেন্সের চালককে খুঁজে পাওয়া যায় না। অথচ মহকুমা স্বাস্থ্য আধিকারিক তথা বিশালগড় হাসপাতালের ইনচার্জ ডা: জে. এম দাস হাসপাতাল চত্বরে থাকলেও তিনি ছিলেন অফিস টাইমে প্রাইভেট রোগী নিয়ে ব্যাস্ত। তাই হাসপাতালে থাকা সত্ত্বেও বিষয়টিকে গুরুত্ব দেন নি বলে অভিযোগ। রোগীর আত্মীয় পরিজনদের জানিয়ে দেওয়া হয় কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি রোগীর। বিশালগড় মহকুমা হাস্পাতাল থেকে চিকিৎসকদের রোগী রেফার করার প্রবণতা বাড়ছে। সম্ভব হলে গেইট থেকেই রেফার দিয়ে দায়িত্ব খালাস করার মতো অবস্থা হয়ে দাঁড়িয়েছে এই হাসপাতালের চিকিৎসকদের। কারণ রোগী পরিজনদের কাছ থেকে জানা যায় হাসপাতালের চিকিৎসকরা পাইভেট রোগী দেখায় ব্যস্ত থাকতেই ভালোবাসেন। ফলে পরিষেবা লাটে উঠেছে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য