Tuesday, July 23, 2024
বাড়িরাজ্যস্বামীর পর গৃহবধূ ও তাদের ১৯ দিনের সন্তানকে প্রাণে মারার চেষ্টার অভিযোগ

স্বামীর পর গৃহবধূ ও তাদের ১৯ দিনের সন্তানকে প্রাণে মারার চেষ্টার অভিযোগ

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২৮ জুন : স্বামীর পর গৃহবধূ ও তাদের ১৯ দিনের সন্তানকে প্রাণে মারার চেষ্টা করল গৃহবধূর শ্বশুরবাড়ি লোকজন। বর্তমানে আহত গৃহবধূ জিবি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গৃহবধুর নাম সোনিয়া আক্তার। তার শ্বশুরবাড়ি উদয়পুর মুড়াপাড়া জয়ন্তী এলাকায়। ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গত এক বছর আগে বাচ্চু মিয়ার সাথে তার মেয়ে সোনিয়া আক্তারকে সামাজিকভাবে দিয়ে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বিয়েটা হয়েছিল বাচ্চু মিয়ার পছন্দে। কিন্তু প্রথম থেকেই বাচ্চু মিয়ার পিতা এই বিয়েতে রাজি ছিলেন না।

 যার কারনে বিয়ের সময় বাচ্চু মিয়ার বাবার চাহিদা মত ১ লক্ষ টাকা নগদ সহ আসবাবপত্র এবং অন্যান্য যাবতীয় সামগ্রী দেওয়া হয়েছিল। তারপর বিয়ের পর দম্পতির জীবনে সবকিছু সুন্দরভাবে চলছিল। ছিল না কোন অশান্তির। কিন্তু শশুর কাসেম আলী এবং দেবর সিরাজ মিয়া সহ শাশুড়ি সানিয়া এবং কাকা শ্বশুর পনের দাবিতে নির্যাতন শুরু করে। এবং গৃহবধূকে প্রায়ই বলতো তাদের পছন্দ হয় না।এমনকি সোনিয়ার শ্বশুর এবং দেবর তার স্বামীকে দুদিন আগে প্রচন্ড মারধর করেছিল বলে অভিযোগ। শেষ পর্যন্ত এই নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে স্বামী বাচ্চু মিয়া গত বৃহস্পতিবার ফাঁসিতে আত্মহত্যা করেন। বাচ্চু মিয়ার আত্মহত্যার পর তাঁর বাবা, কাকা, ভাই ও মা গৃহবধূ সানিয়া আক্তারকে পিটিয়ে হত্যা করার চেষ্টা করেন । তাকে গলাটিপে খুনের চেষ্টা করা হয়।

 এমনকি সানিয়ার ১৯ বছরের ছেলে সন্তানকে বিছানায় ঢিল দিয়ে ফেলে হত্যার চেষ্টা হয় বলে অভিযোগ। পরবর্তী সময় গৃহবধূ সোনিয়ার চিৎকারে আশেপাশে র লোকজন ছুটে এসে উদ্ধার করে মা ও সন্তানকে। পাঠানো হয় হাসপাতালে। স্থানীয় হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসার পর গৃহবধুর আঘাত গুরুতর দেখে রেফার করা হয় জিবি হাসপাতালে। বর্তমানে গৃহবধূ চিকিৎসাধীন। এই ঘটনায় এলাকাতে অভিযুক্ত কাসেম আলী, সিরাজ মিয়া সহ তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যাপক ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। এলাকাবাসী দাবি তুলেছে অভিযুক্ত শ্বশুর বাড়ি লোকজনকে গ্রেফতার করে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করার জন্য।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য