Tuesday, July 23, 2024
বাড়িরাজ্যগৃহবধূকে পুড়িয়ে হত্যা অভিযোগ

গৃহবধূকে পুড়িয়ে হত্যা অভিযোগ

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ৬ জুন : এক গৃহবধূকে পুড়িয়ে হত্যা করার অভিযোগ বাপের বাড়ির লোকজনদের। মৃত গৃহবধূর নাম সুপর্ণা সরকার, (২৫)। বৃহস্পতিবার সকালে জিবি হাসপাতালে মৃত্যু হয় সুপর্ণার। মৃতার স্বামীর নাম প্রবাল সরকার। বাড়ি তেলিয়ামুড়া বাঁদর চৌমুহনী এলাকায়। ন্যায় বিচারের দাবি জানান মৃতার বাপের বাড়ির লোকজন। জানা যায়, ধলাই জেলার ছৈলেংটা এলাকার বাসিন্দা সুপর্ণা সরকারের সাথে তিন বছর পূর্বে সামাজিক ভাবে বিয়ে হয় তেলিয়ামুড়া বাঁদর চৌমুহনী এলাকার বাসিন্দা প্রবাল সরকারের। প্রবাল সরকার পেশায় একটি বেসরকারি স্কুলের শিক্ষক।

অভিযোগ বিয়ের পর থেকে স্বামী প্রবাল সরকার সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন সুপর্ণা সরকারের উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করে। এরই মধ্যে সুপর্ণা এক সন্তানের জন্ম দেয়। বর্তমানে সুপর্ণার সন্তানের বয়স দুই বছর। কিন্তু সুপর্ণার উপর নির্যাতন ধারাবাহিক ভাবে চলতে থাকে। সন্তানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে নির্যাতন সহ্য করে শ্বশুর বাড়িতে দিন যাপন করতে থাকে সুপর্ণা। মাঝে এলাকার লোকজন একবার শালিসি সভাও করে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। বাপের বাড়ি থেকে বক্স খাট, নগদ অর্থ নিয়ে আসার জন্য সুপর্ণার উপর প্রতিনিয়ত নির্যাতন চালাতে থাকে স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন। এরই মধ্যে ২১ মে শ্বশুর বাড়িতে রহস্য জনক ভাবে আগ্নিদগ্ধ হয়ে গুরুতর ভাবে আহত হয় সুপর্ণা। সাথে সাথে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় তেলিয়ামুড়া মহকুমা হাসপাতালে। সেখান থেকে তাকে রেফার করে দেওয়া হয় জিবি হাসপাতালে। জিবি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার ভোরে প্রয়াত হয় সুপর্ণা।

সুপর্ণার বাবা ও ভাই সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানান সুপর্ণার উপর তাঁর স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন প্রতিনিয়ত নির্যাতন চালাতো। শেষ পর্যন্ত সুপর্ণার শরীরে কেরোসিন ঢেলে দিয়ে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন। যার কারনে মৃত্যু হয়েছে সুপর্ণার। তারা সুপর্ণার স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন কঠোর শাস্তির দাবি জানান। মৃত সুপর্ণার মা জিবি হাসপাতাল চত্বরে কান্না করতে করতে জানান সুপর্ণাকে প্রতি সময় স্বামী মারধর করতো। একটা সময় সুপর্ণা স্বামীকে ডিভোর্স দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু সন্তানের কথা চিন্তা করে সুপর্ণা স্বামীর বাড়ি ত্যাগ করে নি। সুপর্ণাকে নানান অপবাদ দিয়ে মারধর করতো স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন। বাপের বাড়ি থেকে নগদ টাকা নিয়ে আসার জন্য সুপর্ণাকে মারধর করতো স্বামী। সুপর্ণার শরীরে কেরোসিন ঢেলে দিয়ে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন। এমনটা অভিযোগ করেন সুপর্ণার মা।বৃহস্পতিবার ময়না তদন্ত শেষে সুপর্ণার মৃতদেহ পরিবারের লোকজনদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। জানা যায় সুপর্ণাকে আশঙ্কা জনক অবস্থায় জিবি হাসপাতালে নিয়ে আসার পর জিবি হাসপাতাল থেকে গা ঢাকা দেয় সুপর্ণার স্বামী। যদিও পরবর্তী সময় তেলিয়ামুড়া থানার পুলিশ অভিযুক্ত স্বামীকে আটক করেছে বলে জানা যায়। মৃত সুপর্ণার বাপের বাড়ির লোকজন সুপর্ণার স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজনদের কঠোর শাস্তির দাবি জানান। এখন দেখার পুলিশ কি ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য