Saturday, June 15, 2024
বাড়িরাজ্যবর্ষার মরশুমে ত্রিপুরাকে সংকটের মুখ থেকে রক্ষা করতে বৈঠক করলেন মন্ত্রী সুশান্ত...

বর্ষার মরশুমে ত্রিপুরাকে সংকটের মুখ থেকে রক্ষা করতে বৈঠক করলেন মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ৩১ মে: নির্ধারিত সময়ের অনেক আগেই রাজ্যে প্রবেশ করেছে বর্ষা। ভৌগলিক অবস্থানের জন্য বর্ষার মরশুমে বিগত সময়ে দেখা গেছে আসাম ও মেঘালয়ে ধস এবং বন্যার ঘটনা। ফলে সড়ক ও রেল পরিষেবা ব্যহত হওয়ার কারণে সমস্যা সম্মুখীন হয় রাজ্যের মানুষ। বর্ষার মরশুমে রাজ্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর মূল্য সহ পেট্রোপণ্য, এলপিজি গ্যাসের সিলিন্ডার সরবরাহ যেন স্বাভাবিক থাকে তার জন্য আগাম উদ্যোগ গ্রহণ করেছে খাদ্য দপ্তর। বর্ষার মরশুমে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে যান চলাচল ব্যাহত হলে বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর মূল্য কোন ভাবে যেন স্বাভাবিকের চেয়ে বৃদ্ধি না পায় এবং অত্যাবশকীয় সামগ্রীর কালবাজারী প্রতিরোধে রাজ্যের খাদ্য দপ্তর সচেষ্ট।

এই বিষয় গুলিকে সামনে রেখে শুক্রবার রাজধানীর গোর্খাবস্তিস্থিত খাদ্য দপ্তরের কনফারেন্স হলে মহকুমা শাসক, খাদ্য দপ্তরের আধিকারিক, মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের প্রতিনিধিদের নিয়ে পর্যালোচনা বৈঠক করেন খাদ্যমন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী। সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী জানান উত্তরপূর্ব ভারতে বর্ষার কারনে আসাম -আগরতলা জাতীয় সড়ক ও রেলপথে মালবাহী ট্রেন ও যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে মাঝে মাঝে ব্যাঘাত ঘটে। ফলে বহিঃরাজ্য থেকে পণ্য সামগ্রী আমদানি করতে কিছুটা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। তাই আগাম প্রস্তুতি হিসেবে রাজ্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রির বাফার স্টক বানিয়ে রেখা হয়েছে। বর্তমানে যতটুকু নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বাজারের গোডাউনে মজুদ আছে তা দিয়ে আগামী বেশ কয়েকদিন চলে যাবে। ফলে ক্রেতাদের বাজারে গিয়ে কোন রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে না।

 এবং ক্রেতারা নির্দ্বিধায় নির্বিঘ্নে চাহিদা মত জিনিসপত্র ক্রয় করতে পারবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী। তিনি অসাধু ব্যবসায়ীদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন তারা যেন সাধারণ মানুষের সাথে কোনরকম সমস্যার সৃষ্টি না করে। সাধারণ মানুষ যেন হয়রানির শিকার না হয়। তিনি আরও বলেন রাজ্যে মজুতদাররা যেন কোনভাবে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর মূল্যবৃদ্ধি ঘটাতে না পারে এবং মেয়াদ উত্তীর্ণ সামগ্রী বিক্রয় করতে না পারে সেজন্য রাজ্যের বাজার গুলিতে নিয়মিত অভিযান জারি রেখেছে খাদ্য দপ্তর। মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী আরও বলেন নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী সহ পেট্রোল ও ডিজেল নিয়ে অযথা উদ্বিগ্ন হওয়ার কোন কারণ নেই। প্রায় ছয় থেকে সাত দিনের পেট্রোল ও ডিজেল মজুত রয়েছে রাজ্যে। তবে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে আংশিক ক্ষতি হয়েছে বদরপুর, লামডিং রেল স্টেশনের রেললাইন। কিছু কিছু জায়গায় কাঁদা ও জল জমে গেছে। এই বিষয়ে এনএফ রেলওয়ের সাথে যোগাযোগ রাখা হয়েছে। তিনি নিজে এনএফ রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজারের সাথে কথা বলেছেন। আগামী দুই দিনের মধ্যে রেল পরিষেবা চালু হয়ে যাবে। উদ্ভূত সমস্যার  সমাধান করতে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় কাজ চলছে। পর্যালোচনা বৈঠকে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন খাদ্য দপ্তরের সচিব, অধিকর্তা সহ বিভিন্ন মহকুমার মহকুমা শাসকগন।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য