Friday, May 31, 2024
বাড়িরাজ্যনির্বাচনী প্রচারে এসে কমিউনিস্ট এবং কংগ্রেসকে বাকরুদ্ধ করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ

নির্বাচনী প্রচারে এসে কমিউনিস্ট এবং কংগ্রেসকে বাকরুদ্ধ করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১৫ এপ্রিল : রাজ্যে নির্বাচনী প্রচারে এসে জনজাতিদের উন্নয়নের প্রসঙ্গ নিয়ে কংগ্রেস এবং কমিউনিস্ট সরকারকে খোঁচা দিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। বক্তব্যের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত এদিন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মুখে ছিল কমিউনিস্টদের বিরুদ্ধে তীব্র সমালোচনা এবং জনজাতি অংশের মানুষের জন্য ঢালাও প্রতিশ্রুতি।

পূর্ব ত্রিপুরা আসনের মনোনীত প্রার্থী কৃতি সিং দেববর্মার সমর্থনে আয়োজিত নির্বাচনী জনসভায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেন, ভরসা রাখুন! কেন্দ্র সরকার, রাজ্য সরকার এবং তিপরা মথার মধ্যে যে ত্রিপাক্ষিক চুক্তি হয়েছে তার মধ্যে সমস্ত সমস্যার সমাধান রয়েছে। সোমবার কুমারঘাট পি ডব্লিউ ডি ময়দানে আয়োজিত জনসভায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ আরো বলেন, দেশে দীর্ঘ সময় ধরে কংগ্রেস শাসন করেছে। কিন্তু কোন জনজাতিকে দেশের রাষ্ট্রপতি বানায়নি। কিন্তু জনজাতি মহিলাকে রাষ্ট্রপতি বানিয়ে দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি উড়িষ্যার জনজাতি মহিলা দ্রৌপদী মুমুকে দেশের রাষ্ট্রপতি বানিয়েছেন।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, পরিবর্তন কেন্দ্র সরকারের সময় জনজাতি অংশের মানুষের জন্য বাজেটে রাখা হতো ২৪ হাজার কোটি টাকা। বর্তমান সরকার জনজাতি অংশের মানুষের উন্নয়নের জন্য এক লক্ষ ২৫ হাজার কোটি টাকা বাজেটে বরাদ্দ করেছে। আর বলেন, কমিউনিস্টরা যেসব জায়গায় গেছে সেখানেই গরিব, অভাব অনটনে মানুষের মৃত্যু, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে সংকট দেখা দিয়েছে। বর্তমান সরকার সে সমস্যাগুলি অত্যন্ত সুদৃঢ় ভাবে সমাধান করে চলেছে। পাশাপাশি ত্রিপুরা রাজ্যে ৪০ হাজার ব্রু শরণার্থী দীর্ঘ বছর ধরে অত্যন্ত কষ্টের সাথে দিন যাপন করেছে। বর্তমান সরকার প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ত্রিপুরায় লাল ভাইয়েরা বৎসরের পর বছর ধরে জনজাতি মানুষের মধ্যে ঝগড়া লাগিয়ে রাখত। জনজাতিদের কুড়িটি আসন বিকাশ করার নামে করে নিয়ে নিতো। এগুলি বন্ধ করে দেওয়ায় এখন শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করতে পারছে জনজাতি অংশের মানুষ। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ত্রিপুরার বেআইনি প্রবেশ প্রসঙ্গে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ত্রিপুরায় বেআইনিগতভাবে প্রবেশ করত বহিরাগতরা।

 সে বেআইনি প্রবেশ ৯০ শতাংশ বন্ধ করতে সফল হয়েছে বর্তমান সরকার। পাশাপাশি ত্রিপুরার উন্নয়ন প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন বর্তমানে ত্রিপুরায় ২৩ টি ট্রেন চলাচল করছে। আগরতলা – আখাউড়া রেলপথ গড়ে উঠছে। কমিউনিস্টদের সময় ত্রিপুরায় মাত্র একটি হাইওয়ে ছিল। বর্তমানে আরো নয়টি হাইওয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে। নরসিংগড়ে রাষ্ট্রীয় ম্যাচ ও আই পি এল খেলার জন্য আন্তর্জাতিক মানের ক্রিকেট স্টেডিয়াম গড়ে উঠছে। সাব্রুম জেলেফায় স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে উঠছে। এতে বাণিজ্যিক দিক থেকে ত্রিপুরা যেমন উন্নয়ন হবে, তেমনি বহু কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে বলে দাবি করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি এদিনের জনসভা থেকে নারী স্ব-শক্তিকরনের বিষয়ে বলেন, ৮৭ হাজার লাখপতি দিদি হয়েছে। আরো তিন লাখ মহিলাকে লাখপতি দিদি করা হবে। নারীদের উন্নয়নের জন্য সরকার বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে চলেছে বলে জানান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। আরো বলেন, মোদী সরকার ২.৯৪ কোটি গরীব মানুষকে ঘর প্রদান করেছেন। এর মধ্যেই সবচাইতে বেশি সুবিধা পেয়েছেন জনজাতিরা। এছাড়াও ১৪ কোটি দেশবাসীকে টয়লেট প্রদান করেছে মোদী সরকার। ৭০ কোটি দেশবাসীকে প্রতিমাসে ৫ কেজি করে বিনামূল্যে চাল প্রদান করছে। ত্রিপুরাবাসীও এই সুবিধা পাচ্ছে। এদিনের জনসভায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রার্থী কৃতি সিং দেববর্মাকে জয়ী করার জন্য পূর্ব ত্রিপুরা আসনের জনগণের কাছে আহ্বান জানান। আয়োজিত সভায় এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রীর ডাক্তার মানিক সাহা, প্রার্থী কৃতি সিং দেববর্মা, মন্ত্রী সান্তনা চাকমা, তিপরা মথার সুপ্রিমো প্রদ্যোত কিশোর দেববর্মণ, তিপরা মথার সভাপতি বিজয় রাঙ্খল সহ অন্যান্য নেতৃত্ব। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নির্বাচনী সবাইকে এদিন কুমারঘাট সহ গোটা রাজ্যে ছিল নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য