Friday, May 31, 2024
বাড়িরাজ্যচড়ক পূজার আয়োজন

চড়ক পূজার আয়োজন

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১৩ এপ্রিল : চড়ক পূজা হল লোক সংস্কৃতির এক বিশেষ অঙ্গ। চৈত্র সংক্রান্তিতে চড়ক পুজো পালিত হয়। নতুন বছরের প্রথম ২-৩ দিন ধরে চলে চড়ক উৎসব। এই বিশেষ ধর্মীয় ও সামাজিক উৎসবের মাহাত্ম্য রয়েছে। বাংলা পঞ্জিকা অনুযায়ী চৈত্র মাসের শেষ দিন অর্থাৎ চৈত্র সংক্রান্তিতে চড়ক পুজো পালিত হয়। এটি বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লোক উৎসব।

নববর্ষের প্রথম দুদিন ধরে চড়ক উৎসব চলে। এই পুজার অপর নাম নীল পুজো, গম্ভীরা পুজা বা শিবের গাজন। ছোটবেলার ছড়া ‘আমরা দুটি ভাই, শিবের গাজন গাই’ এই চড়ক উৎসব থেকেই এসেছে। পুজোর আগের দিন চড়ক গাছটিকে ধুয়ে-মুছে পরিষ্কার করা হয়। এতে জলভরা একটি পাত্রে শিবের প্রতীক শিবলিঙ্গ রাখা হয়, এটি পূজারীদের কাছে ‘বুড়োশিব’ নামে কথিত হয়।

‘পতিত’ ব্রাহ্মণরা এই পুজোয় পৌরোহিত্য করে থাকেন। এই পুজোর কয়েকটি বিশেষ অঙ্গ হলো কুমিরের পুজো, কাঁটা ও ছুরির ওপর লাফানো, জ্বলন্ত কয়লার ওপর হাঁটা, শিবের বিয়ে, বাণফোঁড়া, অগ্নিনৃত্য, দানো-বারানো বা হাজারা পুজো এবং চড়কগাছে দোলা। প্রতি বছরের মতো এ বছরও রাজধানীর পূর্ব প্রতাপগড় ঋষি কলোনি এলাকার প্রতাপগড় ইংরেজি মাধ্যম স্কুল ময়দানে কালী, শীতলা, ব্রহ্মা এবং চড়ক পূজার আয়োজন করা হয়। উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি মেয়র মনিকা দাস দত্ত। তিনি বলেন এ বছর ৭৬ তম চড়ক পূজা আয়োজন করেছে উদ্যোক্তারা। তিন দিন ব্যাপী এক অনুষ্ঠানে আয়োজন করা হয়েছে। দূরদূরান্ত থেকে লোকের সমাগম হয় এই চড়ক পূজায়। এদিন চড়ক পূজাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উচ্ছাস লক্ষ্য করা গেছে ভক্তদের মধ্যে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য