Sunday, April 21, 2024
বাড়িরাজ্য২০২৭ সালের মধ্যে ত্রিপুরা ম্যালেরিয়া মুক্ত রাজ্য করার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে

২০২৭ সালের মধ্যে ত্রিপুরা ম্যালেরিয়া মুক্ত রাজ্য করার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১৫ মার্চ : কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অধীন জাতীয় পতঙ্গবাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ প্রকল্পের উদ্যোগে উত্তর পূর্ব ভারতের সাতটি রাজ্য সহ উড়িষ্যা, ঝাড়খন্ড, ছত্তিশগড়কে নিয়ে ত্রিপুরায় ১৪ মার্চ থেকে ১৬ মার্চ পর্যন্ত তিন দিনব্যাপী আঞ্চলিক পর্যালোচনামূলক আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়েছে। ১৪ মার্চ আগরতলার প্রজ্ঞাভবনে এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অতিরিক্ত সচিব এবং জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের মিশন অধিকর্তা এল এস চ্যাঙসাৎ।

 বৈঠকের দ্বিতীয় দিন শুক্রবার প্রজ্ঞা ভবনে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানান কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অধীন জাতীয় পতঙ্গ বাহিত রোগ বিভাগের যুগ্ম সচিব রাজীব মাঝি। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অধীন জাতীয় পতঙ্গ বাহিত রোগ বিভাগের যুগ্ম সচিব রাজীব মাঝি বলেন, ২০২৭ সালের মধ্যে ত্রিপুরা ম্যালেরিয়া মুক্ত রাজ্য করার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তিনদিনের পর্যালোচনামূলক আলোচনা সভায় ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া, জাপানিজ এনকেফেলাইটিস প্রভৃতি পতঙ্গবাহিত রোগ এবং তার প্রতিকার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হচ্ছে। তাছাড়া এই কর্মসূচীর পরিকল্পনা বাস্তবায়ন সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় পর্যলোচনা করা হচ্ছে। জাতীয় পতঙ্গবাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ প্রকল্প মূলত ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া, জাপানিজ এনকেফেলাইটিস, কালা জ্বর এবং লিমফেটিক ফাইলেরিয়াসিসের মতো ৬ টি পতঙ্গ বাহিত রোগের সাথে মোকাবিলা করছে। তাদের মধ্যে ত্রিপুরায় ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু ছাড়াও চিকুনগুনিয়া এবং জাপানিজ এনকেফেলাইটিসের রোগী পাওয়া গেছে।

 এখন পর্যন্ত ত্রিপুরায় কালাজ্বর এবং লিমফেটিক ফাইলেরিয়াসিস জনিত কোনও রোগের সংক্রমণ নেই। উত্তর পূর্ব ভারতের সাতটি রাজ্য আসাম, মেঘালয়, মনিপুর, নাগাল্যান্ড, মিজোরাম, অরুনাচলপ্রদেশ, ত্রিপুরা সহ উড়িষ্যা, ঝাড়খন্ড, ছত্রিশগড় থেকে আগত প্রতিনিধিরাও এই আলোচনাসভায় অংশ নিয়েছেন। জনসাধারণের কাছে যেন আরও উন্নত স্বাস্থ্য পরিষেবা সঠিক সময়ে পৌঁছে দেওয়া যায় তার উপর আলোকপাত করেন এল এস চ্যাঙসাং। তিনি কমিউনিটি হেলথ অফিসার, আশা কর্মী এবং আশা ফেসিলিটেটরদের সঙ্গে মত বিনিময় করেন। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অধীন জাতীয় পতঙ্গ বাহিত রোগ বিভাগের যুগ্ম সচিব রাজীব মাঁঝি ১৫ মার্চ আগরতলা গর্ভনমেন্ট মেডিক্যাল কলেজ এবং জি বি হাসপাতালের জেরিয়াট্রিক বিভাগ এবং অটল বিহারী বাজপেয়ী রিজিওন্যাল ক্যান্সার হাসপাতাল ভিজিট করেন এবং রোগীদের সঙ্গে কথা বলেন। ১৩ মার্চ আগরতলা মহাকরণে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অতিরিক্ত সচিব এবং জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের মিশন অধিকর্তা এল এস চ্যাঙসাং -এর পৌরহিত্যে রাজ্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতরের বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে পর্যালোচনা বৈঠক আয়োজিত হয়। এই বৈঠকে জাতীয় পতঙ্গবাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচীর সফল বাস্তবায়নের মাধ্যমে ২০২৭ সালের মধ্যে ত্রিপুরা রাজ্যকে ম্যালেরিয়া মুক্ত রাজ্য হিসাবে ঘোষণা করার সিদ্ধান্তের বিষয়ে আলোচনা হয়। জাতীয় স্বাস্থ্য মিশন ত্রিপুরার যুগ্ম মিশন অধিকর্তা বিনয় ভূষন দাস জানান ম্যালেরিয়া সবচেয়ে বেশি প্রকোপ ধলাই জেলায়। শনিবার একটি প্রতিনিধি দল ধলাই জেলার উদ্দেশ্যে রওনা হবে। সেই জেলার জেলা শাসকের সাথে কথা বলে এ বিষয়ে আরো বেশি সক্রিয় ভূমিকা পালন করা হবে। তবে ম্যালেরিয়ার প্রদুর্ভাব বেশি জনো জাতি এলাকাতে। বাড়ি বাড়ি আশা কর্মীদের পাঠানোর পর যেসব বাড়িতে জ্বর পাওয়া যাচ্ছে সেসব বাড়ির মানুষকে স্ক্যানিং করার পর ম্যালেরিয়া পজিটিভ পাওয়া গেলে ১৪ দিনের চিকিৎসা করা হচ্ছে। পাশাপাশি স্থানীয় এলাকাগুলিতে স্ক্যানিং -এর দিকে জোর দেওয়া হচ্ছে।সাংবাদিক সম্মেলনে এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রাজ্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ সমিতির সদস্য সচিব ডা: নূপুর দেববর্মা প্রমুখ।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য