Thursday, February 29, 2024
বাড়িরাজ্যকয়েক মাস ধরে ভাতা বঞ্চিত দৃষ্টিহীন বৃদ্ধা

কয়েক মাস ধরে ভাতা বঞ্চিত দৃষ্টিহীন বৃদ্ধা

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১৮ জানুয়ারি : নয় মাস ধরে ভাতা বঞ্চিত দৃষ্টিহীন বৃদ্ধা। কৈলাশহর দুর্গাপুর এলাকার বাসিন্দা স্বপ্না দেবনাথ জানান, প্রশাসনিক আধিকারিকদের তালবাহানার কারনে প্রায় নয় মাস ধরে সামাজিক ভাতা পাচ্ছেন না। ভাতা না পাওয়ায় দপ্তরের আধিকারিক তথা সি.ডি.পি.ও-এর অফিসে প্রতিদিন নিয়মিত ভাবে গিয়েও কোনো ধরনের আশ্বাস না পাবার পর জেলাশাসকের নিকট লিখিত ভাবে জানানোর পরও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের আশ্বাস মেলেনি।

প্রশাসনিক ভাবে এ ব্যাপারে কোনো ধরনের আশ্বাস না পেয়ে অসহায় দৃষ্টিহীন মহিলা রাজনৈতিক নেতা থেকে জনপ্রতিনিধি সবার বাড়ি বাড়ি গিয়েও কোনো ধরনের আশ্বাস না পেয়ে নিরুপায় মহিলা সংবাদ প্রতিনিধিদের দারস্থ হলেন। উল্লেখ্য, কৈলাসহর পুর পরিসদের চৌদ্দ নং ওয়ার্ডের দূর্গাপুর এলাকার বাদিন্দা পঞ্চাশ বছরের স্বপ্না দেবনাথ ছোটো বেলাতেই বাবাকে হারিয়েছেন। স্বপ্না দেবী জন্মসূত্রে দৃষ্টিহীন ছিলেন না, সাত বছর বয়সে অসুস্থ হবার পর থেকে এখন পর্যন্ত চোখে দেখতে পান না স্বপ্না দেবী। স্বপ্নার নিজের কোনো ভাই কিংবা বোন নেই। পরিবারে মা ছাড়া আর কেউ নেই স্বপ্নার।

সত্তর উর্ধ্বে স্বপ্নার মা মানুষের বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করে এবং বয়স্ক ভাতা পেয়ে পরিবার চালাচ্ছেন। বিগত পনেরো বছর ধরে স্বপ্না সরকার সামাজিক ভাতা পেয়ে আসলেও দুই হাজার বাইশ সালের জানুয়ারি থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত সামাজিক ভাতা পেলেও সেপ্টেম্বর মাস থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত চার মাস ভাতা পান নি। অথচ ২০২৩ সালের জানুয়ারি থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত সামাজিক ভাতা পেলেও ফের সেপ্টেম্বর মাস চলতি বছরের চলতি মাস অব্দি সামাজিক ভাতা পাচ্ছেন না স্বপ্না দেবনাথ। ২০২২ সালের চার মাস এবং ২০২৩ আরও চার মাস মিলিয়ে ভাতা পাননি স্বপ্না দেবনাথ। বি.পি.এল পরিবারের গরীব দুঃস্থ অসহায় স্বপ্নার সত্তর বছরের মা স্বপ্নাকে নিয়ে এব্যাপারে প্রতি সপ্তাহে দুই বার কিংবা তিন বার সংশ্লিষ্ট দপ্তরের অফিসে গিয়ে যোগাযোগ করলে টেকনিক্যাল সমস্যার কারনে এমন হচ্ছে বলে অফিসের কর্মচারীরা জানিয়ে দিয়ে নিজেদের দায়িত্ব খালাস করে দিতেন। সংশ্লিষ্ট দপ্তরের অফিস থেকে কোনো ধরনের সদুত্তর না পেয়ে নিরুপায় সত্তর বছরের স্বপ্নার মা স্বপ্নাকে নিয়ে শাসক দলের স্থানীয় বুথ সভাপতি, মন্ডল সভাপতি, চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান সহ অনেকের কাছে গিয়েও আজ পর্যন্ত কোনো ধরনের আশ্বাস কিংবা সামাজিক ভাতা পান নি। প্রায় কয়েক মাসের ভাতা বকেয়া রয়েছে এর মধ্যে লাগাতার পাঁচ মাস ধরে ভাতা পাচ্ছেন না। বর্তমানে স্বপ্না দেবী নানান রোগে আক্রান্ত। পেটে পাথর, ডান দিকের কিডনি খারাপ বলে জানান স্বপ্না দেবনাথ। টাকার অভাবে চিকিৎসাও করাতে পারছে না বলে জানান। সত্তর বছরের মা মানুষের বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করে সামান্য টাকা উপার্জন করে এবং সরকারের দেওয়া বয়স্ক ভাতা প্রতি মাসে দুই হাজার টাকাই পরিবারের একমাত্র আয়ের উৎস। তিনি বিষয়টি সরকারের দৃষ্টি আকর্ষন করতে চান।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য