Friday, March 1, 2024
বাড়িরাজ্যঅভিনব সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাট-এর উদ্বোধন

অভিনব সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাট-এর উদ্বোধন

আগরতলা, ৮ ডিসেম্বর।।সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাট। বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের নজির সৃষ্টিকারী প্রয়াস। শহর আগরতলার জিবি হাসপাতাল এলাকা পাড় হলেই নন্দননগর। এই নন্দননগর থেকে নোয়াবাদী যাবার রাস্তার মধ্যবর্তী স্থানে রয়েছে ঠান্ডা কালিবাড়ি। এই কালিবাড়ি সংলগ্ন রাস্তা দিয়ে একটু এগুলোই দেবরাম পাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের সেনপাড়া মাঠ। প্রতি রবিবার দুপুর ১:০০ টা থেকে বসবে সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাট। আগামী ১০ ই ডিসেম্বর এই সপ্তাহিক সংস্কৃতি হাটের উদ্বোধন। উদ্বোধন করবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী প্রফেসর ডক্টর মানিক সাহা।

 বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন রাজ্যের মন্ত্রী টিংকু রায়, মন্ত্রী সুধাংশু দাস, অধ্যক্ষ বিশ্ববন্ধু সেন, মেয়র দীপক মজুমদার, সচিব প্রদীপ চক্রবর্তী, বিধায়ক অভিষেক দেবরায়, আইসিএ ডাইরেক্টর বিম্বিসার ভট্টাচার্য, কালচারাল এডভাইসারি কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত চক্রবর্তী, টিআইডিসির  চেয়ারম্যান নবাদল বণিক  প্রমুখ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পৌরহিত্য করবেন সংস্কৃতি গ্রাম পরিচালন কমিটির চেয়ারম্যান তথা স্থানীয় বিধায়ক রতন চক্রবর্তী। এছাড়াও এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন পশ্চিমবঙ্গ, বাংলাদেশ, বরাক উপত্যকা সহ ত্রিপুরার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের বিশ্ব কমিটির সদস্যরা। একটি ব্যতিক্রমী ধ্যান-ধারণা নিয়ে গড়ে উঠছে সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাট। শান্তিনিকেতনের সোনাঝুরি হাটের ধারণা ও বাঙালির বিভিন্ন উৎসবের ধারণাগুলোর সমন্বয়ে গড়ে উঠেছে সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাট। সেনপাড়া মাঠের তিনদিকে গড়ে উঠেছে দোকান সেড।

 এই দোকান সেডগুলোতে বিভিন্ন স্ব-সহায়ক গোষ্ঠীগুলো বাংলা সংস্কৃতির সাথে সম্পর্কিত খাবার দাবার, পোশাক পরিচ্ছদ, আসবাবপত্র ইত্যাদি সহ অন্যান্য পণ্য নিয়ে পসরা সাজিয়ে বসবেন। একটি স্থায়ী মঞ্চের পাশাপাশি এই সংস্কৃতি হাটে গড়ে উঠেছে অপ্রথাগত দুটি অস্থায়ী মঞ্চ। তাছাড়া সমগ্র মাঠটাই একটি স্বাভাবিক মঞ্চ হিসেবে কাজ করবে। এই মঞ্চগুলোতে বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের স্থানীয় কচিকাচারা  অপ্রথাগত ভাবে স্থানীয় গান-নাচের পরিবেশনা রাখবে। লোকসংস্কৃতির আখড়া হিসেবে আগামী দিনে গড়ে উঠবে এই সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাট। রবীন্দ্র নজরুল থেকে শুরু করে বাংলার আধুনিক সংগীত থেকে নিত্য সব কিছুরই পরিবেশনা থাকবে এই হাটে। শহরের শিল্পীদেরও অবাধ পরিবেশনার সুযোগ থাকবে মঞ্চগুলোতে। বাদ্যযন্ত্র, ছবি আঁকা, নাটক, পালাগান, যাত্রা সব কিছুরই কেন্দ্র হিসেবে অদূর ভবিষ্যতে পরিগণিত হবে এই সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাট। সংশ্লিষ্ট ট্রাইবেল সংস্কৃতিরও উপস্থাপনা থাকবে এই হাটে। বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রথম সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাটের উদ্বোধন হতে চলেছে দেবরাম গ্রাম পঞ্চায়েতের সেনপাড়াতে।

 উদ্বোধনী অনুষ্ঠানসহ প্রতি রবিবার দুপুরে সকল লেখক-শিল্পী, সমাজকর্মী, বিজ্ঞান কর্মী, মননশীল ছাত্র-গবেষক, শিক্ষক-শিক্ষাগুরু তথা সমাজ সচেতন প্রত্যেক নাগরিকের চারণভূমি হওক বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাট।

অন্যদিকে আগামী ৯ ই ডিসেম্বর ধর্মনগরে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের নব-নির্বাচিত বিশ্ব কমিটির দ্বিতীয় অধিবেশন ও ধামাইল উৎসব। বিশ্ব কমিটির দ্বিতীয় অধিবেশন উপলক্ষে ধর্মনগর সংসদ আয়োজন করছে এই থামাইল উৎসব। যৌথ উদ্যোগে রয়েছে ধর্মনগর পৌর পরিষদ। ধামাইল উৎসবের উদ্বোধন করবেন বিধানসভার অধ্যক্ষ বিশ্ববন্ধু সেন। বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের বিশ্ব কমিটির দ্বিতীয় অধিবেশন কে সামনে রেখে ধর্মনগর এ প্রস্তুতি চলছে জোড় কদমে। তারপর দিনই অর্থাৎ ১০ ই ডিসেম্বর রবিবার বিকাল তিনটায় নন্দননগর সংলগ্ন দেবরাম গ্রাম পঞ্চায়েতের সেনপাড়াতে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী প্রফেসর ডঃ মানিক সাহা উদ্বোধন করবেন বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের প্রথম “সাপ্তাহিক সংস্কৃতি হাট” । এই এই সকল কর্মকান্ড  বাংলা সংস্কৃতির চর্চায় এক নতুন দিগন্ত উন্মোচন করবে বলেই কর্মকর্তাদের বিশ্বাস। আজকের সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের বিশ্ব কমিটির সভাপতি সেবক ভট্টাচার্য, বিশ্ব কমিটির সিনিয়র সদস্য মনোরঞ্জন দেব, দেবাশীষ এন্দ, দেবাশীষ ভট্টাচার্য, সংঘমিত্রা নন্দী, নির্মল দেব সহ অন্যান্য কর্মকর্তারা।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য