Tuesday, May 28, 2024
বাড়িরাজ্যব্যাপক উচ্ছ্বাসের মধ্য দিয়ে মনোনয়ন পত্র দাখিল করলেন মুখ্যমন্ত্রী

ব্যাপক উচ্ছ্বাসের মধ্য দিয়ে মনোনয়ন পত্র দাখিল করলেন মুখ্যমন্ত্রী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ৩০ জানুয়ারি : জয়ের প্রত্যাশা সামনে রেখে ৮ নং টাউন বড়দোয়ালি বিধানসভা কেন্দ্র থেকে মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন বিজেপি মনোনীত প্রার্থী ডাক্তার মানিক সাহা। এদিন সকালে মনোনয়নপত্র দাখিলের আগে আগরতলা শহরের লক্ষীনারায়ন মন্দির, কৃষ্ণ মন্দিরে গিয়ে পুজো দেন। তারপর নিজ এলাকার কর্মী সমর্থক সহ কার্যকর্তাদের নিয়ে হুড খোলা গাড়িতে করে মিছিলে সমবেত হন মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রীর সাথে ছিলেন আসামের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বাস শর্মা, মনিপুরের মুখ্যমন্ত্রী এন বিরেন সিং, মেয়র দীপক মজুমদার সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। ব্যাপক উচ্ছ্বাসের মধ্য দিয়ে আগরতলা শহরে এক সুবিশাল মিছিল সংগঠিত হয়। মিছিলের পর সদর মহকুমা শাসক অফিসে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী রিটার্নিং অফিসার অরূপ দত্তের হাতে মনোনয়ন পত্রটি তুলে দেন। সঙ্গে ছিলেন আসামের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে মুখ্যমন্ত্রীর জয় নিয়ে ১০০ শতাংশ নিশ্চিত বলে জানান। মুখ্যমন্ত্রীর দাবি করেন জনগণের আশীর্বাদ ভারতীয় জনতা পার্টির সাথে রয়েছে। ৫০ টির অধিক আসনে জয়ী হবে দল।

মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন বিজেপি এবং আইপিএফটি জোট হয়ে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে লড়াই করছেন। কিন্তু আশারাম বাড়ি বিধানসভা কেন্দ্রে ভারতীয় জনতা পার্টি মনোনীত প্রার্থী পাতাল কন্যা থাকার পরেও আইপিএফটি দলের পক্ষ থেকে কেন প্রার্থী দেওয়া হয়েছে, সে বিষয়ে প্রশ্ন করলে, মুখ্যমন্ত্রী জানান ঘরে বাইরে এ ধরনের দু-একটি ঘটনা হয়। বিষয়টি দল দেখছে। কিন্তু এগুলো কোন সমস্যা নয় বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী এদিন বিরোধীদের উদ্দেশ্যে বলেন, রাজ্যে বিরোধীদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। বিরোধীদের শূন্য আসন মিলবে বলেও জানান তিনি। এর পাশাপাশি বিরোধীদের মুখ্যমন্ত্রী কটাক্ষ করে বলেন তারা বাচিক শিল্পী। কাজের কাজ কিছুই করতে পারে না বিরোধীরা।মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে থাকা আসামের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানান, ২০১৮ এর সময় ছিল ভয়ের, কিন্তু আজকে শান্তি পরিবেশ ত্রিপুরায় চলছে। তাই মানুষ এই শান্তি এবং বিকাশের ধারা বজায় রাখতে ভোট দেবে। ২০১৮ সাল থেকেও আরও অধিক আসনে রাজ্যে ভারতীয় জনতা পার্টি সরকার গড়বে বলে আশা ব্যক্ত করেন হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। এদিন তিনিও কংগ্রেস এবং বামফ্রন্টের জোটকে কটাক্ষ করে বলেন, শূন্য আর শূন্য মিলে শূন্যই হয়। তবে তিনি এই দিন একটি বিষয় ভালো করেই স্পষ্ট করে দিয়েছেন। জোট সঙ্গী আইপিএফটির সাথে লড়াই করলেও বিজেপি একলা চলো নীতি নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে, আবারো স্পষ্ট হয়ে গেছে এদিন। হিমন্ত বিশ্ব শর্মা বলেন, এবার বিজেপি’কে একাই সরকার বানাতে হবে। ত্রিপুরা মধ্যে ঐক্যের জন্য কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। কিন্তু আইপিএফটি যেহেতু আগেই জোটে ছিল তাই এবারও রয়েছে। সুতরাং সরকার বিজেপি’ই গড়বে। পাশাপাশি তিনি এই দিন তার যে প্রধান বিরোধীদল বামফ্রন্টকে নিশানা করে বলেন আগে দিকে দিকে লাল অফিস দেখা যেত। এখন কোন লাল অফিস নেই! তাই আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ডাঃ মানিক সাহাকে মানুষ ভোট দেবে বলে দাবি করেন হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। মনিপুরের মুখ্যমন্ত্রী এন বিরেন সিং মনোনয়নপত্র দাখিলের পর সংবাদমাধ্যম কর্তৃক রাজ্যবাসীর উদ্দেশ্যে আহ্বান জানান ভারতীয় জনতা পার্টির সরকার পুনরায় ত্রিপুরায় রাজ্যে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য। উত্তর পূর্বাঞ্চলে উন্নয়ন এগিয়ে নিয়ে যেতে প্রধানমন্ত্রী যে দিশায় কাজ করছে তার নিরিখে মানুষ যাতে ভোট দেয় সে বিষয়টি বিস্তারিত তুলে ধরেন মণিপুরের মুখ্যমন্ত্রী।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য