Wednesday, August 17, 2022
বাড়িরাজ্যত্রিপুরার মানুষকে বদনাম করেছে : মুখ্যমন্ত্রী

ত্রিপুরার মানুষকে বদনাম করেছে : মুখ্যমন্ত্রী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১৯ নভেম্বর : আগরতলা পুর নির্বাচনের প্রচারে জন সমাবেশে শুরু করেছে বিজেপি। বিভিন্ন স্থানে বিজেপি মনোনীত প্রার্থীদের সমর্থনে জন সভা করছেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। শুক্রবার সন্ধ্যায় ক্যাম্পের বাজারে বিজেপি প্রার্থীদের সমর্থনে সভা করেন তিনি। এদিনের নির্বাচনী জন সমাবেশ বক্তব্য রাখতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন ত্রিপুরাতে ২৫ বছরের টানা সরকার ছিল। অভিজ্ঞতা সম্পন্ন মন্ত্রী ও সম্পূর্ণ অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ২০ বছরের মুখ্যমন্ত্রী ছিল। ৪০ বছর ক্ষমতায় থাকার তাদের অভিজ্ঞতা রয়েছে। তাঁর উপর স্বর্ণ জুগের ভারী বোঝা। দীর্ঘ দিন বাইরে থাকায় মানুষ প্রশ্ন করত ত্রিপুরায় স্বর্ণ জুগ কিভাবে এল।

 রাজ্যের মানুষের কাছে এত স্বর্ণ আছে। প্রচারের ক্ষেত্রে বিশ্ব জুরে কমিউনিস্টদের অপপ্রচার তন্ত্র রয়েছে। কিছু দিন আগেও রাজ্যের মানুষ তা পরিলক্ষিত করেছে। ত্রিপুরাতে যখন নির্বাচনের প্রস্তুতি চলছিল , কোভিড থেকে বেড়িয়ে আসছিল রাজ্য , স্বাভাবিক হচ্ছিল কাজকর্ম – সেই সময় বিশ্বজুরে কমিউনিস্ট , তৃণমূল কংগ্রেসের স্পন্সর্ড কোম্পানী এবং ভাতিজা ও রাহুল গান্ধী – এই তিনজন মিলে ত্রিপুরার মানুষকে বদনাম করছিল । তারা অভিযোগ আনে ত্রিপুরার মানুষ দাঙ্গাবাজ, ত্রিপুরাতে দাঙ্গা হচ্ছে বলে। সমস্ত কিছু শেষ হয়ে গেছে বলে। তৎকালীন সময়ে ত্রিপুরার কমিউনিস্টরা স্বর্ণ জুগের নামে ধাপ্পাবাজি করেছে। এখন সেই মন্ত্রেই ত্রিপুরার মানুষকে বদনাম করছে তৃণমূল। ইংল্যান্ড, কেরালা থেকে ট্যুইট করা হয় ৩০ থেকে ৩৫ হাজার। এই ট্যুইট করেছে রাহুল গান্ধী। সোস্যাল মিডিয়াতে এই মিথ্যাচার করেছে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর ভাতিজা। কমিউনিস্টের পুরো তন্ত্র ত্রিপুরাকে বদনাম করার জন্য উঠে পরে লেগেছে। কিন্তু সুপ্রীম কোর্ট ও হাইকোর্ট তাদের সঠিক রাস্তা দেখিয়ে দিয়েছে। ত্রিপুরার মানুষ সঠিক দিশাতে চলছে , তারা ত্রিপুরাকে বদনাম করছে বলে। দুটি আদালত ত্রিপুরার মানুষের সঙ্গে দাঁড়িয়েছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। 

এরা ত্রিপুরার মানুষকে কোন দিন ভালই বাসেনি। মার কাছে তাঁর সন্তান খারাপ হতে পারে না। মুখ্যমন্ত্রীর কাছে ত্রিপুরাবাসী খারাপ হতে পারে না বলে জানান তিনি। চায়না , ভিয়েতনাম , কলকাতা মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে আবিষ্কার করেনি বলেও জানান তিনি। ৩৭ লক্ষ ত্রিপুরাবাসী আবিষ্কার করেছে বলেও জানান। কেবল মুখ্যমন্ত্রীই নয়। আজকে কাজ করতে শিখিয়েছে বলে জানান তিনি।সব জন সভায় মহিলাদের অংশ গ্রহণ বেশী। যেই দলের সঙ্গে মহিলা শক্তি রয়েছে সেই দলকে কোন শক্তি পরাজিত করতে পারে না বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। এদিনের নির্বাচনী জন সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন বিধায়িকা মিমি মজুমদার, রাজ্য সম্পাদক টিঙ্কু রায় সহ অন্যান্যরা।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য