Tuesday, October 4, 2022
বাড়িরাজ্যউচ্চ আদালতে আবারো মুখ পুড়ল সরকারের

উচ্চ আদালতে আবারো মুখ পুড়ল সরকারের

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২১ সেপ্টেম্বর :  দীর্ঘদিনের বঞ্চনার অবসান হল জুটমিল কর্মীদের। দীর্ঘ লড়াইয়ের পর বুধবার উচ্চ আদালতে রায় ঘোষণা করেন। পরে এক সাংবাদিক সম্মেলন করে আইনজীবী পুরুষোত্তম রায় বর্মন জানান, দীর্ঘদিন ধরে ত্রিপুরা জুট মিল শ্রমিক কর্মচারীরা বেতন বঞ্চিত ছিল। পরবর্তী সময় ত্রিপুরার জুট মিল অফিসার্স এসোসিয়েশন উচ্চ আদালতে একটি মামলা দায়ের করে। সে মামলায় তৎকালীন গোয়াটি হাইকোর্টের বিচারপতি বলেছিলেন ত্রিপুরা জুটমিল অফিসারদের জন্য চতুর্থ বেতন ভাতার সুপারিশ অনুযায়ী ১৯৯৬ সাল থেকে বেতন কার্যকর করতে।

পরবর্তী সময় জুট মিলের শ্রমিক ইউনিয়ন গুলি মামলা করে। তখন বিচারপতি অজয় রাস্তরি ২০১৮ সালে ১৭ সেপ্টেম্বর গুরুত্বপূর্ণ রায় দিয়ে বলেছিলেন রাজ্য সরকার ত্রিপুরা জুট মিল কর্মচারীদের ক্ষেত্রে বঞ্চনা করেছে। তাদের ক্ষেত্রেও ১৯৯৬ সালের জানুয়ারি মাসের ১ তারিখ থেকে বেতনক্রম পুনর্ববিন্যাস করতে হবে। এবং সমস্ত বকেয়া বেতনক্রম মিটিয়ে দিতে হবে। রাজ্য সরকার এই রায়কে মান্যতা না দিয়ে উচ্চ আদালতে ডিভিশন বেঞ্চে আপিল করেছিল। এখন সে ডিভিশন বেঞ্চে এই মামলার শুনানি হয়। আজ আদালতে প্রধান বিচারপতি ইন্দ্রজিত মহান্তি এবং বিচারপতি এস জি চট্টোপাধ্যায় রায় দিয়েছেন। সরকারে তিনটি রিট আপিল খারিজ করে দেয়। ফলে সরকারকে ১৯৯৬ সালের ১ জানুয়ারি থেকে জুট মিলের শ্রমিক কর্মচারীদের বেতন পুনর্ববিন্যাস করতে হবে। এবং তৎকালীন সময় থেকে জের টেনে তাদের আর্থিক লাভ দিতে হবে বলে জানান আইনজীবী পুরুষোত্তম রায় বর্মন। তিনি আরো বলেন রাজ্য সরকার আপিল করে বলতে চেয়েছিল ত্রিপুরা রাজ্যের জুট কর্মচারীদের কোন বঞ্চনা নেই। কিন্তু উচ্চ আদালত তাদের এই আপিল খারিজ করে দেয়। এতে খুশি জুট কর্মচারীরা। পরবর্তী সময় জুট মিল কর্মচারীরা উচ্চ আদালতের রায়ে খুশি হয়ে মিছিল করে ত্রিপুরা হাইকোর্ট থেকে বের হয়ে আসে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য