Tuesday, July 23, 2024
বাড়িখেলাবিধ্বংসী সেঞ্চুরির পর গিলের ব্যাটকে ‘স্পেশাল ধন্যবাদ’ দিলেন আভিশেক

বিধ্বংসী সেঞ্চুরির পর গিলের ব্যাটকে ‘স্পেশাল ধন্যবাদ’ দিলেন আভিশেক

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ৮ জুলাই: ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ম্যাচেই ঝড়ো সেঞ্চুরি। উত্তাল ব্যাট। শতরান ছুঁয়ে এক হাতে হেলমেট আরেক হাতে ব্যাট উঁচিয়ে সগৌরবে উদযাপনও করলেন আভিশেক শার্মা। তবে ম্যাচ শেষে তিনি কৃতজ্ঞতা জানালেন শুবমান গিলের ব্যাটকে!খটকা লাগছে তো? যে ব্যাট দিয়ে জিম্বাবুয়ের বোলারদের কচুকাটা করে সেঞ্চুরিটি করলেন আভিশেক, সেটি যে গিলেরই ব্যাট!ছেলেবেলা থেকেই একসঙ্গে খেলে বেড়ে উঠেছেন দুজন। পাঞ্জাবের গ্রাম থেকে গ্রামে, মাঠ থেকে মাঠে একসঙ্গে ইনিংস শুরু করেছেন তারা, মাতিয়েছেন বয়সভিত্তিক ক্রিকেট। সেই সময় থেকেই গিলের ব্যাট আভিশেকের জন্য দারুণ পয়া। পরে ভারতের হয়ে অনূর্ধ্ব-১৬, অনূধর্ব-১৮ হয়ে ২০১৮ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে একসঙ্গে খেলেছেন দুজন। এবার আন্তর্জাতিক আঙিনাতেও তিনি প্রথমবার সৌরভ ছড়ালেন বন্ধুর ব্যাট দিয়েই!জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৪৬ বলের সেঞ্চুরিতে ম্যাচ-সেরা হওয়ার পর সংবাদ সম্মেলনে সেই গল্পই শোনালেন আভিশেক।

“আজকে আমি শুবমান গিলের ব্যাট দিয়ে খেলেছি। এই ব্যাটকেও তাই স্পেশাল ধন্যবাদ! এটা চলে আসছে… আমার মনে হয়, অনূর্ধ্ব-১২ ক্রিকেটে খেলার দিনগুলি থেকেই। যখনই আমার মনে হয়েছে কোনো ম্যাচে চাপ বেশি বা আমাকে পারফর্ম করতেই হবে, তখন সাধারণত ওর ব্যাট নেই আমি।”“এমনকি আইপিএলেও অনেক সময় ওর ব্যাট নিয়ে খেলি। আজকেও ওর ব্যাট দিয়েছে আমাকে। এবারও দারুণ কাজে লেগে গেছে।”‘পারফর্ম করতেই হবে’-এই তাড়নাটা তার এসেছে প্রথম ম্যাচের ব্যর্থতায়। এবারের আইপিএল ছক্কার মালা সাজিয়ে ব্যাট হাতে তাণ্ডব চালিয়ে এই জিম্বাবুয়ে সফরের দলে জায়গা করে নেন তিনি। রোহিত শার্মা, ভিরাট কোহলিদের বিদায়ের পর ভারতের টি-টোয়েন্টি দলের টপ অর্ডারে সম্ভাব্য বিকল্পদের মধ্যে তাকে ভাবা হচ্ছে জোরেসোরে। কিন্তু অভিষেক ম্যাচে শনিবার তিনি আউট হয়ে যান শূন্য রানে।

ঘুরে দাঁড়াতে অবশ্য সময় নেননি খুব একটা। প্রথম ম্যাচে প্রথম ওভারে তিনি আউট হন অফ স্পিনার ব্রায়ান বেনেটের শর্ট বল পুল করে ছক্কায় ওড়ানোর চেষ্টায়। মন্থর উইকেট সেদিন টাইমিং ঠিকঠাক হয়নি। পরদিন সেই বেনেট আবারও প্রায় একই রকমের শর্ট অব লেংথ বল করে ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করেন আভিশেককে। কিন্তু এবার ফল উল্টো। প্রথম বলটিই পুল করে বাঁহাতি ওপেনার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে রানের খাতা খোলেন ছক্কায়।আগের দিনের উইকেটে খেলা হলেও এ দিন উইকেটের আচরণ ছিল তুলনামূলক ভালো। শুরুর ওই ছক্কার পর অবশ্য একটু সময় নেন আভিষেক। ৮ ওভার শেষে ভারতের রান ছিল কেবল ৪৯। আভিষেকের রান তখন ২৪ বলে ২৮।

এরপর হাত খুলে সেখান থেকে ফিফটিতে পৌঁছে যান কেবল আর ৯ বল খেলেই। ক্যারিয়ারের প্রথম রানের মতো প্রথম ফিফটিও করেন ছক্কা মেরেই।এরপর তো আরও অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠেন। ফিফটি থেকে শতরানে যেতে বল খেলেন মাত্র ১৩টি! ৮২ রান থেকে ওয়েলিংটন মাসাকাদজার বলে টানা তিনটি ছক্কায় পৌঁছে যান সেঞ্চুরিতে। ৭ চার ও ৮ ছক্কার ইনিংসটি থেমে যায় পরের বলেই। তবে ততক্ষণে জিম্বাবুয়ের বোলারদের মনোবল তিনি ভেঙে দিয়েছেন।প্রথম ম্যাচে ছক্কা মারতে গিয়ে শূন্যতে ফেরার পর অবশ্য একটু দমে গিয়েছিলেন আভিশেক। তার বাবা রাজকুমার শার্মা ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে জানালেন, ছেলেকে তিনি উজ্জীবিত করার চেষ্টা করেছেন। অধিনায়ক শুবমান গিল ও কোচ ভিভিএস লাক্সমানও পাশে দাঁড়ান আভিশেকের।

“সে একটু বিষন্ন ছিল। তাকে দায় দেওয়াও যায় না। অভিষেকে শূন্য রানে আউট হলে নিজের খেলার ধরন নিয়ে তো সংশয় জাগেই। ছক্কা মারার প্রতি অতিরিক্ত প্রবণতার জন্য নিজেকে দোষ দিচ্ছিল সে। তবে আমি তাকে মনে করিয়ে দেই যে, ছক্কা মারার সামর্থ্যের কারণেই সে এই পর্যায়ে আসতে পেরেছা। তাহলে খেলার ধরন বদলাবে কেন? নিজের শক্তির জায়গায় যেন অটল থাকে।”“অধিনায়ক ও কোচও ওর সঙ্গে কথা বলেছে ম্যাচের পর। লাক্সমান স্যার ওকে বলেছেন, ‘আইপিএলে তুমি আন্তর্জাতিক বোলারদেরই গুঁড়িয়ে দিয়েছো। এটিকেও আইপিএল ম্যাচ হিসেবেই দেখো। একটু সময় নাও, উইকেটের সঙ্গে মানিয়ে নাও, এরপর কেউ তোমাকে আটকাতে পারবে না।”রাজকুমার শার্মার বিশ্বাস, গিলের সঙ্গে মিলে তার ছেলে দারুণ এক উদ্বোধনী জুটি গড়ে তুলবেন ভারতের হয়ে।

“শুবমান অধিনায়ক হওয়াতেও ওর জন্য ভালো হয়েছে। সেই অনূর্ধ্ব-১৪ ক্রিকেট থেকেই দুজন একসঙ্গে পাঞ্জাবের হয়ে ইনিংস ওপেন করেছে এবং এখন ভারতের হয়ে করছে। আমার কথা লিখে রাখুন, এই দুজন মিলে বিস্ফোরক এক উদ্বোধনী জুটি গড়ে তুলবে এবং ভবিষ্যতে ভারতের হয়ে অনেক ম্যাচ জিতবে।”আভিশেকের সঙ্গে ৭৬ বলে ১৩৭ রানের জুটি গড়া রুতুরাজ গায়কোয়াড় মন্থর শুরুর পর শেষ দিকে ঝড় তুলে অপরাজিত থাকেন ৪৭ বলে ৭৭ রান করে। রিঙ্কু সিং খেলেন ২২ বলে ৪৮ রানের অপরাজিত ইনিংস। তাদের সম্মিলিত তাণ্ডবে শেষ ১০ ওভারে ১৬০ রান তুলে ভারত। ২০ ওভারে তাদের রান দাঁড়ায় ২৩৪। পরে জিম্বাবুয়ে থমকে যায় ১৩৪ রানেই।৫ ম্যাচের সিরিজে এখন ১-১ সমতা। সিরিজের পরের ম্যাচ তিনটি আগামী বুধবার, শনিবার ও রোববার।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য