Monday, March 4, 2024
বাড়িখেলা৪-২ গোলে হারার পরও দলের পারফরম্যান্সে গর্বিত বার্সেলোনা কোচ

৪-২ গোলে হারার পরও দলের পারফরম্যান্সে গর্বিত বার্সেলোনা কোচ

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ২৫ জানুয়ারি: কোপা দেল রের আগের রাউন্ডে তৃতীয় স্তরের দলের সঙ্গে কোনোরকমে জিতলেও কোয়ার্টার ফাইনালে পেরে ওঠেনি বার্সেলোনা। আথলেতিক বিলবাওয়ের কাছে হেরে গেছে তারা ৪-২ গোলে।ম্যাচের প্রথম মিনিটেই গোল হজম করা বার্সেলোনা ঘুরে দাঁড়িয়ে প্রথমার্ধেই এগিয়ে যায় ২-১ গোলে। কিন্তু এরপর বিলবাওয়ের পাল্টা আঘাতের পালা। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুর দিকে সমতায় ফেরে তারা। পরে অতিরিক্ত সময়ে আরও দুই গোল করে তারা ছিটকে দেয় বার্সেলোনাকে।স্পেনের ও বিশ্ব ফুটবলের বড় এক ক্লাব হিসেবে বার্সেলোনার জন্য কোয়ার্টার ফাইনালেই থেমে যাওয়া হতাশাজনক বটে। তবে শাভির মতে, ক্লাব বড় হলেও তার স্কোয়াড ছোট ও ফুটবলারদের অনেকেই অনভিজ্ঞ। এজন্যই তিনি এই ব্যর্থতাকে পাশ কাটিয়ে তাকিয়ে আছেন সম্ভাবনাময় আগামীর দিকে “সব বড় ক্লাবেই কোচদের তাকিয়ে থাকতে হয় ট্রফির দিকে। তবে দুর্দান্ত একটি দলের বিপক্ষে আমরা আজকে যেভাবে লড়াই করেছি, বিশেষ করে তরুণরা, তাতে আমি গর্বিত।”“বাচ্চাদের নিয়ে খেলছি আমরা। স্কোয়াডের আকারও ছোট। যখন আমি বলি যে এখনও আমরা গুছিয়ে নেওয়ার পর্যায়ে আছি, তখন এটিই বোঝাচ্ছি। তবে আমার মনে হয়, বড় কিছুর পথে সূচনা চলছে এখন। আমি এখানে থাকি আর না থাকি, বার্সার ভবিষ্যৎ দারুণ উজ্জ্বল।”বেশ কয়েকজন তরুণ ফুটবলারের নাম আলাদা করেই বললেন শাভি। কোচর মতে, এই প্রতিভাবান প্রজন্মের হাত ধরেই আবার গৌরবময় সময় ফিরবে বার্সেলোনা।

“ক্লাবের পরিকল্পনা দারুণ। সেটা আমি কোচ বলেই নয়। দারুণ এক প্রজন্মের ফুটবলার উঠে আসছে। (পাউ) কুবারসি, (এক্তর) ফর্ত, লামিন (ইয়ামাল), (মার্ক) গিইউ এবং আরও অনেক ফুটবলার… ফার্মিন লোপেস…।”“আমার মনে হয়, বড় কিছুর শুরুর পর্ব চলছে। তবে আমাদেরকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে এবং জিততে হবে। বার্সেলোনার মতো ক্লাবে জয়ই সবকিছু।”সেই তরুণদের একজন, এর মধ্যেই দারুণভাবে নজর কাড়া লামিন ইয়ামাল এই ম্যাচেও অসাধারণ এক গোল করেছেন। তবে নির্ধারিত সময়ের শেষ দিকে একটি সুযোগ হাতছাড়াও করেছেন তিনি। তবে এই কিশোরকে কাঠগড়ায় তুলতে চান না বার্সেলোনা কোচ। “২-২ সমতায় থাকার পর সুযোগগুলো কাজে লাগাতে না পারা হতাশার। তবে বাচ্চা ছেলেটাকে দোষ দেওয়ার কিছু নেই। স্রেফ ১৬ বছর বয়সী বাচ্চা, যে অসাধারণ খেলছে। সুযোগ তৈরিও করেছে তো সে নিজেই।”কোয়ার্টার ফাইনালে বিলবাওয়ের মাঠে খেলতে হওয়ায় নিজেদের ভাগ্যকেও দায় দিচ্ছেন শাভি। প্রতিপক্ষকেও অবশ্য কৃতিত্ব দিচ্ছেন তিনি“আজকে আমরা লড়াই করেছি। কঠিন লড়াই করেছি এবং সবটুকু উজাড় করে দিয়েছি। খুব ভালো একটি দল, ঘরের মাঠে যারা শক্তিশালী, তাদের বিপক্ষে আমরা লড়াই করেছি। ড্রয়ের সময়ই বলেছিলাম, আমাদের ভাগ্য খারাপ। তবে তারা খুব ভালো খেলেছে। আথলেতিকের এই জয় প্রাপ্য ছিল। তাদেরকে অভিনন্দন। ফুটবল এমনই।”নিজেদের ভুলগুলিও অবশ্য মেনে নিচ্ছেন শাভি। খেলোয়াড় হিসেবে বার্সেলোনার হয়ে অনেক ট্রফিজয়ী এই কিংবদন্তি ফুটবলার এখন কাপের হতাশা ভুলে তাকিয়ে আছেন লা লিগা ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগে। 

“মনোযোগের ঘাটতি ছিল আমাদের, সুনির্দিষ্ট কিছু ভুল করেছি আমরা… ফুটবল ভুলেরই খেলা। আজকে সম্ভাব্য সেরা খেলা আমরা খেলতে পারিনি। তবে এই তরুণদের নিয়ে আমি গর্বিত। ফল হতাশাজনক, তবে এটি তো কাপ ম্যাচ। স্রেফ একটিই সুযোগ, সেটিও প্রতিপক্ষের মাঠে। জেতাটা তাই কঠিন।”“আমি শান্তই আছি এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শিরোপাগুলোর লড়াই বাকিই আছে। আমরা চেষ্টা করব ঘুরে দাঁড়াতে এবং লা লিগা ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অনেক দূর যেতে। তবে আমি জানি, এটাই বাস্তবতা। দল হারলে কোচের দিকেই আঙুল ওঠে।”কদিন আগে সুপার কাপের ফাইনালে বার্সেলোনা বিধ্বস্ত হয়েছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রেয়াল মাদ্রিদের কাছে। লিগেও খুব ভালো অবস্থানে নেই তারা। এখানে রেয়ালের চেয়ে পিছিয়ে আছে তারা ৭ পয়েন্টে। শীর্ষে থাকা জিরোনা তাদের চেয়ে ৮ পয়েন্ট ওপরে আছে এক ম্যাচ বেশি খেলে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের পথটাও সামনে তাদের জন্য সহজ হবে না।শাভি মানছেন, মাঠের ফুটবলে তার দল লড়াই করতে না পারলে কোচ হিসেবে তার ভাগ্যেও ভালো কিছু অপেক্ষায় নেই।“মৌসুমের শেষে যদি আমরা লড়াইয়ে না থাকি, আমাকে বিদায় নিতে হবে। তবে সেটা শুধু আমার ক্ষেত্রে নয়, সব কোচের জন্যই এটা সত্যি। এটা অনেক বড় ক্লাব। এটা বার্সা। আমি জানি আমি কোথায় দাঁড়িয়ে আছে এবং আমার কাছে চাওয়াগুলো কী। ট্রফি জিততে হবে আমাদের… নইলে অন্তত লড়াই করতে হবে ট্রফির জন্য।”

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য