Friday, May 31, 2024
বাড়িজাতীয়নরেন্দ্র মোদির মসনদে প্রত্যাবর্তন কি স্রেফ সময়ের অপেক্ষা ?

নরেন্দ্র মোদির মসনদে প্রত্যাবর্তন কি স্রেফ সময়ের অপেক্ষা ?

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক,১৬ এপ্রিল : আর দিন তিনেকের মধ্যেই ঢাকে কাঠি পড়তে চলেছে লোকসভা নির্বাচনের। নরেন্দ্র মোদির মসনদে প্রত্যাবর্তন কি স্রেফ সময়ের অপেক্ষা? নাকি বিরোধী ইন্ডিয়া জোট শেষ হাসি হাসবে? কী হবে তা সময়ই বলবে। কিন্তু ডেলিহান্টের ‘ট্রাস্ট অফ দ্য নেশন ২০২৪’ সমীক্ষায় যে ছবি ধরা পড়ছে তা গেরুয়া শিবিরের হাসি চওড়া করবে। সমীক্ষা বলছে ৬৪ শতাংশ মানুষ মোদিকেই প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান। কেবল তাই নয়, ৬৩ শতাংশ মানুষ বিশ্বাস করেন এনডিএ জোটের প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত।
দেশের ১১টি ভাষায় ওই সমীক্ষা করা হয়েছে। ইংরেজি, হিন্দি ও গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক ভাষাতে ৭৭ লক্ষের বেশি মানুষের সঙ্গে কথা বলে পাওয়া গিয়েছে এই ছবি। ঠিক কী দেখা যাচ্ছে সমীক্ষায়? জানা যাচ্ছে, প্রতি পাঁচজনের তিনজনই মনে করেন মোদিই প্রধানমন্ত্রী হবেন ফের। শতাংশের হিসেবে মোদির পক্ষে ৬৪ শতাংশ মানুষ। সেখানে রাহুল গান্ধীর পক্ষে মাত্র ২১.৮ শতাংশ। ৬৩ শতাংশ মানুষ বিশ্বাস করেন এনডিএ তথা বিজেপিই ফের সরকার গড়বে।


রাজ্য অনুযায়ী হিসেবটা দেখলে দেখা যাচ্ছে, দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মোদিকে চান ৫৭.৭ শতাংশ, রাহুল গান্ধীকে ২৪.২ শতাংশ ও যোগী আদিত্যনাথকে চান ১৩.৭ শতাংশ মানুষ। অন্যদিকে যোগীরাজ্যে ৭৮.২ শতাংশ মানুষ মোদিকে চান! রাহুলের পক্ষে সেখানে মাত্র ১০ শতাংশ।


৬২.৬ শতাংশ মানুষ তাঁকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান। রাহুল গান্ধীর পক্ষে ১৯.৬ শতাংশ। অন্যদিকে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যাপোধ্যায়কে দেশের শীর্ষনেতা হিসেবে দেখতে চান ১৪.৮ শতাংশ মানুষ।
তামিলনাড়ু ও কেরলে অবশ্য সমীক্ষার ফলাফল একেবারেই আলাদা। তামিলনাড়ুতে মোদির পক্ষে ৪৩.২ শতাংশ মানুষ। এগিয়ে রাহুল। তাঁর পক্ষে ৪৩.২ শতাংশ। বামশাসিত কেরলেও ছবিটা তুল্যমূল্য। সেখানে মোদি ও রাহুলের পক্ষে যথাক্রমে ৪০.৮ শতাংশ ও ৪০.৫ শতাংশ মানুষ। তেলেঙ্গানায় মোদির পক্ষে ৬০.১ শতাংশ মানুষ। অন্ধ্রপ্রদেশে আরও বেশি, ৭১.৮ শতাংশ।

এদিকে সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে ৫৩.৮ শতাংশ মানুষ সন্তোষ প্রকাশ করেছেন সরকারের জনকল্যাণমুখী প্রকল্পে। কিন্তু অসন্তুষ্ট ২৪.৯ শতাংশ। মোদি প্রশাসনের সামগ্রিক পারফরম্যান্সে খুশি ৬১ শতাংশ। ২১ শতাংশ মানুষ অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন সমীক্ষায়। দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে ‘অত্যন্ত খুশি’ ৬০ শতাংশ মানুষ।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য