Friday, May 31, 2024
বাড়িজাতীয়দায়িত্ব থেকে সরছেন বন্ধন ব্যাঙ্কের সিইও চন্দ্রশেখর ঘোষ

দায়িত্ব থেকে সরছেন বন্ধন ব্যাঙ্কের সিইও চন্দ্রশেখর ঘোষ

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক,৬ এপ্রিল: নিজের পদ থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন বন্ধন ব্যাঙ্কের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও চন্দ্রশেখর ঘোষ। শুক্রবার বিবৃতি দিয়ে বিষয়টি জানানো হয়েছে এই বেসরকারি ব্যাঙ্কের তরফে। জানা গিয়েছে, আগামী ৯ জুলাই দায়িত্ব থেকে সরে যাবেন বন্ধনের প্রতিষ্ঠাতা। 

গত বছরের নভেম্বরে তিন বছরের জন্য বন্ধনের এমডি ও সিইও পদে চন্দ্রশেখর ঘোষের নাম মনোনয়ন করে ব্যাঙ্কের পরিচালন বোর্ড। কিন্তু এই মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন চন্দ্রশেখর। বিবৃতি দিয়ে তিনি জানিয়েছেন, “প্রায় এক দশক ধরে আমি বন্ধনের এমডি ও সিইও-র দায়িত্ব পালন করেছি। কিন্তু এখন বৃহত্তর দায়িত্ব পালনের সময় এসে গিয়েছে। আমি আগামিদিনে বন্ধন গোষ্ঠীর নীতি ও কৌশল নির্ধারণকারীর ভূমিকায় কাজ করতে চাই। সেই কারণেই আমি চলতি বছরের ৯ জুলাই পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে চন্দ্রশেখর ঘোষের হাত ধরে পথ চলা শুরু করে এই বেসরকারি ব্যাঙ্ক। তার পর থেকে প্রায় এক দশক ধরে সাফল্যের সঙ্গে এগিয়ে চলেছে বন্ধন। টানা ৩ বার বেসরকারি আর্থিক প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্ব সামলেছেন তিনি। সেই প্রসঙ্গ তুলেও চন্দ্রশেখর জানান, “নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও একাধিক মাইল ফলক ছুঁয়েছে বন্ধন। বর্তমানে ব্যাঙ্কে ৭৫ হাজারেরও বেশি কর্মী কাজ করেন। তাঁদের প্রত্যেকের কাছে আমি ঋণী। তাঁরা আমার উপর ভরসা রেখেছেন। বিশ্বাস করেছেন আমাকে। তার জন্য আমি গর্বিত। একটা মজবুত সংস্থাকে আমি পরবর্তী নেতৃত্বের জন্য ছেড়ে দিয়ে যাচ্ছি।”

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে রাজ্য সরকারের হয়ে রাজস্ব আদায়ের অনুমতি পায় বন্ধন। এক্ষেত্রে মূল উদ্যোগী ছিলেন চন্দ্রশেখর। বন্ধনকে রাজস্ব আদায় করতে গভর্মেন্ট রিসিপ্ট পোর্টাল সিস্টেম বা GRIPS ব্যবহারের অনুমতি দেয় নবান্ন। রাজ্য সরকারের থেকে সবুজ সংকেত পাওয়ার পর এই নিয়ে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে বন্ধন কর্তৃপক্ষ। সেখানে বলা হয়, GRIPS-র মাধ্যমে রাজ্যবাসী কর ও কর বিহীন অন্যান্য পেমেন্ট করতে পারবেন। নথিবিহীন এই লেনদেন অনেক বেশি সহজ হবে। ফলে এখন সকলের নজর রয়েছে চন্দ্রশেখর ঘোষের যোগ্য উত্তরসূরি হিসাবে কাকে বেছে নেবে বন্ধন।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য