Tuesday, August 9, 2022
বাড়িজাতীয়দেশের ১৪তম উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হলেন জগদীপ ধনখড়

দেশের ১৪তম উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হলেন জগদীপ ধনখড়


নয়াদিল্লি, ৬ আগস্ট (হি. স.): দেশের ১৪তম উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হলেন জগদীপ ধনখড় ।শনিবার উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন এনডিএ প্রার্থী জগদীপ ধনখড়। ৫২৮ ভোট পেয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন রাজ্যপাল। অন্যদিকে, বিরোধীদের প্রার্থী মার্গারেট আলভা পেয়েছেন ১২৮ ভোট। ১৫টি ভোট বাতিল করা হয়েছে৷

ফল আগে থেকে প্রায় স্পষ্টই ছিল। সংশয় প্রায় ছিল না বলেই চলে। সব সংশয়কে দূরে সরিয়ে দেশের ১৪তম উপরাষ্ট্রপতি হিসেবে নির্বাচিত হলেন শাসক দলের প্রার্থী জগদীপ ধনখড়। প্রতিপক্ষ মার্গারেট আলভাকে বড় ব্যবধানে হারালেন বাংলার প্রাক্তন রাজ্যপাল। উপরাষ্ট্রপতি হওয়ার জন্য প্রয়োজন ছিল ৩৭১টি ভোট। পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন রাজ্যপাল ধনখড় পেয়েছেন ৫২৮টি ভোট। অন্য দিকে, বিরোধীদের প্রার্থী মার্গারেট আলভা পেয়েছেন ১২৮ ভোট। ১৫টি ভোট বাতিল করা হয়েছে৷ ধনখড় পেয়েছেন মোট ভোটের ৭০ শতাংশ । ভোটের নিরিখে বিদায়ী উপরাষ্ট্রপতি এম বেঙ্কাইয়া নাইডুকেও পিছনে ফেলে দিয়েছেন তিনি। তাঁর থেকে প্রায় দু’শতাংশ বেশি ভোট পেয়েছেন ধনখড়। ৭৮০ জন সাংসদের উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দেওয়ার কথা। লোকসভার ৫৪৩ এবং রাজ্যসভার ২৪৫ জন সাংসদ। এই মুহূর্তে রাজ্যসভায় আটটি আসন খালি। ভোটদানে বিরত থেকেছেন তৃণমূলের ৩৪ জন সাংসদ। দলের নিষেধ অগ্রাহ্য করে ভোট দিয়েছেন শিশির অধিকারী এবং দিব্যেন্দু অধিকারী। হিসেব বলছে, ৭২৫ জন সাংসদ শনিবার জগদীপ এবং মার্গারেটের ভাগ্য নির্ধারণ করেছেন।

আইনজীবী হিসাবে পেশাদার জীবন শুরু করলেও এক কালে তা ছেড়ে রাজনীতির ময়দানে নেমে পড়েছিলেন ধনখড়। হয়েছেন বিধায়ক থেকে সাংসদ এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রীও। ৭১ বছরের ধনখড়ের জন্ম ১৯৫১ সালের ১৮ মে। রাজস্থানের এক জাঠ কৃষকের পরিবারে। সংসদীয় রাজনীতিতে প্রবেশের আগে আইনকেই পেশা হিসাবে বেছে নিয়েছিলেন কিঠানা গ্রামের এই ছেলেটি। চিত্তৌরগড়ের সৈনিক স্কুলের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনাও করেছেন নিজের রাজ্যে। রাজস্থান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকস্তরের পড়াশোনা। এককালে রাজস্থান হাই কোর্টের বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতিও নির্বাচিত হয়েছিলেন। জনতা দল থেকে বিজেপিতে যোগদানের আগেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হিসাবে দেখা গিয়েছে তাঁকে। বিধায়ক হওয়ার আগেই সাংসদ হয়েছিলেন ধনখড়।

ধনখড়ের প্রথম রাজনৈতিক দল ছিল প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী চন্দ্রশেখরের জনতা দল। ১৯৮৯ থেকে ’৯১ পর্যন্ত জনতা দলের টিকিটেই নবম লোকসভায় প্রবেশ। সে বার রাজস্থানের ঝুনঝুনু লোকসভা কেন্দ্র থেকে জিতেছিলেন। লোকসভার পর রাজস্থানের কিসানগড় বিধানসভা কেন্দ্র থেকে জিতে বিধায়ক হন ধনখড়। সময়টা ছিল ১৯৯৩-’৯৮। রাজস্থানের দশম বিধানসভার মেয়াদ শেষে আবারও সংসদের পথে এগিয়েছিলেন ধনখড়। ১৯৯০ থেকে ’৯১ সালে চন্দ্রশেখর সরকারের সংসদীয় বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী হয়েছিলেন তিনি। জনতা দল ছেড়ে এক সময় বিজেপিতে নাম লিখিয়েছিলেন ধনখড়। ২০১৯ সালের ৩০ জুলাই তাঁকে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল হিসাবে নিয়োগ করেন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য