Wednesday, June 12, 2024
বাড়িবিশ্ব সংবাদগাজা যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবে নিরাপত্তা পরিষদের সম্মতি

গাজা যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবে নিরাপত্তা পরিষদের সম্মতি

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ১১ জুন: ইসরায়েল-গাজা যুদ্ধবিরতির যে প্রস্তাব যুক্তরাষ্ট্র দিয়েছে, তাতে সায় জানিয়েছে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ।নিরাপত্তা পরিষদের ১৫ সদস্যের মধ্যে ১৪টি দেশ যুক্তরাষ্ট্রের খসড়া প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয়। রাশিয়া ভোটদানে বিরত ছিল।যুক্তরাষ্ট্র ‘পুরো ও পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধবিরতি’র প্রস্তাব রেখেছে; তাতে হামাসের হাতে বন্দি জিম্মিদের মুক্তি, মৃত জিম্মিদের দেহাবশেষ হস্তান্তর এবং ফিলিস্তিনি বন্দিদের সঙ্গে মুক্তি দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।ইসরায়েল যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব গ্রহণ করেছে জানিয়ে হামাসকেও তা মেনে নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছ খসড়ায়।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গত ৩১ মে তিন পর্বের এই যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব দেন। কয়েকটি দেশের সরকারের সঙ্গে ধনী দেশগুলোর জোট জি সেভেন তাতে সমর্থন দিয়েছিল। এবার নিরাপত্তা পরিষদও তাতে সায় দিল।বিবিসি লিখেছে, নিরাপত্তা পরিষদের এই ভোটাভুটি চলমান সংঘাতের অবসানে দুই পক্ষের ওপরই চাপ বাড়াবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। শান্তি চুক্তির পক্ষে সমর্থন আদায়ে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুসহ বিদেশি নেতাদের সঙ্গে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেনের বৈঠকের পরপরই নিরাপত্তা পরিষদের এ সম্মতি এল।এই ভোটাভুটির কয়েক ঘণ্টা আগে ব্লিঙ্কেন ওই অঞ্চলের নেতাদের উদ্দেশে বলেন, “আপনারা যদি শান্তি চান, তাহলে হামাসকে ‘হ্যাঁ’ বলতে চাপ দিন।”

হামাস এর আগে বলেছিল, বাইডেনের যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবের একাংশ মেনে নিতে তারা রাজি। সোমবার নিরাপত্তা পরিষদে ভোটাভুটির পর এক বিবৃতিতে তারা ওই খসড়াকে ‘স্বাগত’ জানিয়েছে।বিবিসি লিখেছে, ফিলিস্তিনের এই সশস্ত্র সংগঠন এখন স্থায়ী যুদ্ধবিরতির নিশ্চয়তা এবং গাজা ভূখণ্ড থেকে ইসরায়েলের সব সেনা প্রত্যাহারে দাবি জানাতে পারে।তবে দোহায় যুদ্ধবিরতির যে আলোচনা চলছে, হামাস নেতারা সেখানে এই প্রস্তাব নিয়ে আনুষ্ঠানিক কোনো প্রতিক্রিয়া দেননি বলে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলি কর্মকর্তাদের ভাষ্য।বাইডেনের তিন ধাপের এই যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবের চূড়ান্ত ধাপে গাজার বড় ধরনের পুনর্গঠনের কথা বলা আছে। গত ছয় মাসের যুদ্ধে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ওই ভূখণ্ড।

যুক্তরাষ্ট্রের খসড়া প্রস্তাবে প্রথম ধাপে সাময়িক যুদ্ধবিরতির পাশাপাশি জিম্মি ও বন্দি বিনিময়ের কথা বলা হয়েছে। আর দ্বিতীয় ধাপে সংঘাতের স্থায়ী অবসান এবং গাজা ভূখণ্ড থেকে ইসরায়েলের সব সেনা প্রত্যাহারের কথা বলা হয়েছে।তৃতীয় ধাপে গাজার দীর্ঘমেয়াদি পুনর্গঠন কর্মসূচির প্রস্তাব রাখা হয়েছে।গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েল ভূখণ্ডে হামাসের হামলায় প্রায় ১২০০ মানুষের মৃত্যু হয় এবং ২৫১ জনকে জিম্মি করা হয় বলে দাবি করে আসছে ইহুদী রাষ্ট্রটি।এর পাল্টায় গাজায় যে অভিযান ইসরায়েল চালিয়ে আসছে, তাতে ৩৭ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ গেছে বলে হামাস নিয়ন্ত্রিত ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ভাষ্য।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য