Thursday, August 18, 2022
বাড়িবিশ্ব সংবাদজাওয়াহিরির সন্ধান কীভাবে পেয়েছিল সিআইএ

জাওয়াহিরির সন্ধান কীভাবে পেয়েছিল সিআইএ

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২ আগস্ট। আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে গত রোববার যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় আল-কায়েদা নেতা আয়মান আল-জাওয়াহিরি নিহত হয়েছেন। ২০১১ সালে আল-কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেন নিহত হওয়ার পর সন্ত্রাসী গোষ্ঠীটির জন্য বড় ধাক্কা হিসেবে দেখা হচ্ছে এই মৃত্যুকে। খবর রয়টার্সের।মার্কিন প্রশাসনের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সাংবাদিকদের বলেন, অনেক বছর ধরে জাওয়াহিরি লুকিয়ে ছিলেন। তাঁকে খুঁজে বের করে হত্যার অভিযানটি ছিল সন্ত্রাস দমন ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ‘সতর্ক সাধনা ও নিরবচ্ছিন্ন’ কাজের ফল।

যুক্তরাষ্ট্রের ঘোষণার আগপর্যন্ত জাওয়াহিরি পাকিস্তানের উপজাতি-অধ্যুষিত এলাকায় কিংবা আফগানিস্তানে আছেন বলে বিভিন্ন গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা অভিযানের বিস্তারিত এসব তথ্য দিয়েছেন—বেশ কয়েক বছর ধরে মার্কিন সরকার একটি চক্র (নেটওয়ার্ক) সম্পর্কে সতর্ক ছিল। তাদের ধারণা ছিল, চক্রটি জাওয়াহিরিকে সমর্থন করে। আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের প্রত্যাহার করে নেওয়া পর এক বছর ধরে কর্মকর্তারা দেশটিতে আল-কায়েদার উপস্থিতির ইঙ্গিত পর্যবেক্ষণ করছিলেন।চলতি বছর কর্মকর্তারা স্ত্রী-কন্যাসহ জাওয়াহিরির পরিবারের সদস্যদের শনাক্ত করেন। তাঁদের কাবুলে ‘একটি সেফ হাউসে’ স্থানান্তর করা হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে একই জায়গায় জাওয়াহিরিকেও শনাক্ত করা হয়।

কাবুলের ওই ‘সেফ হাউসে’ তাঁরা সঠিকভাবেই জাওয়াহিরিকে শনাক্ত করতে পেরেছেন—কয়েক মাস ধরে গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের এমন আত্মবিশ্বাস আরও বাড়ে। তাঁরা এপ্রিলের শুরুর দিকে প্রশাসনের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান এবং পরবর্তী সময়ে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে ব্রিফ করতে শুরু করেন।

ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘অভিযানের বিষয়টি জানাতে আমরা একাধিক স্বাধীন উৎসের মাধ্যমে অভিযানের সময় তাদের আচরণ ও চলাফেরা সম্পর্কে জানতে সক্ষম হই।’ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, যখনই একবার জাওয়াহিরি কাবুলের ‘সেফ হাউসে’ আসেন, সেখান থেকে তাঁর চলে যাওয়ার বিষয়টি আর জানতে পারেননি কর্মকর্তারা। পরে তাঁকে কয়েকবার তাঁরা বেলকনিতে দেখতে পান। শেষ পর্যন্ত সেখানেই তাঁর ওপর হামলা চালানো হয়।ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘সেফ হাউসটির’ নির্মাণকাঠামো ও এর ধরন খতিয়ে দেখেন কর্মকর্তারা। এর বাসিন্দাদের তথ্যও যাচাই-বাছাই করে দেখেন। এসবের উদ্দেশ্য ছিল ভবনের কাঠামোগত ক্ষতি এড়িয়ে বেসামরিক নাগরিক ও জাওয়াহিরির পরিবারের সদস্যদের ঝুঁকি কমিয়ে রেখে যাতে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে অভিযানটি চালানো যায়, তা নিশ্চিত করা।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য