Thursday, February 29, 2024
বাড়িরাজ্যনেতাজি জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষে আগরতলা শহরে হয় বর্নাঢ্য শোভাযাত্রা, কচিকাঁচাদের মধ্যে ব্যাপক...

নেতাজি জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষে আগরতলা শহরে হয় বর্নাঢ্য শোভাযাত্রা, কচিকাঁচাদের মধ্যে ব্যাপক উচ্ছ্বাস

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২৩ জানুয়ারি : মঙ্গলবার আগরতলা নেতাজি সুভাষ বিদ্যানিকেতনের উদ্যোগে স্বাধীনতা সংগ্রামী নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর ১২৮ তম জন্মদিবস যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে পালন করা হয়। অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার আগে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন মুখ্যমন্ত্রী ডাক্তার মানিক সাহা।

 তারপর নেতাজি সুভাষ বিদ্যানিকেতনের সামনে থেকে এক বর্নাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। নেতাজি সুভাষ বিদ্যানিকেতনের উদ্যোগে আয়োজিত এইদিনের বর্নাঢ্য শোভা যাত্রায় বিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা বিভিন্ন সাজে সজ্জিত হয়ে অংশগ্রহণ করে। এই সুসজ্জিত শোভা যাত্রার মধ্যমে বিভিন্ন থিম তুলে ধরা হয়। দেশের প্রতি যাতে মানুষের সম্মান মর্যাদা আরো বেশি বৃদ্ধি হয় তার জন্য বিভিন্ন সচেতন মূলক দিক অর্থাৎ নেশা মুক্ত ত্রিপুরা ও গৃহস্থ হিংসা মুক্ত সহ বিভিন্ন থিম তুলে ধরা হয়। শোভাযাত্রা শুরু হওয়ার আগে অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী ডাঃ মানিক সাহা নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, দেশ স্বাধীন করার জন্য যার নাম সর্ব প্রথমে নিতে হয় তিনি হলেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু। পরে আগরতলায় ১৯৪৮ সালে নেতাজি সুভাষ বিদ্যানিকেতন স্থাপিত হয়েছিল।

এই স্কুল স্থাপনের মূল উদ্দেশ্য ছিল, যারা উদ্বাস্তু রয়েছে তাদের পড়াশোনার ব্যবস্থা করা। শিক্ষার্থীদের সত্যিকার অর্থে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলাও স্কুলের মূল লক্ষ্য ছিল। পাশাপাশি ছাত্র-ছাত্রীদের চরিত্র গঠনে দিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল এই স্কুলে। শিক্ষা ও ক্রীড়া সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে জাতীয় স্তরে এবং রাজ্য স্তরে সুনাম অর্জন করেছে এই স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা। নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুকে যথাযথ সম্মান দেওয়ার জন্য ১৯৫১ সাল থেকে প্রতি বছর সুসজ্জিত শোভাযাত্রা পালন করে আসছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন সরকার প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করার চেষ্টা করেছেন। আন্দামান নিকোবর ও পোট ব্লেয়ারে স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় নেতাজিকে সম্মান জানানোর জন্য যে পতাকা দিয়ে মর্যদা দেওয়া হয়েছিল সেই পতাকা প্রথম উত্তোলন করা হয়েছে। স্বরাজ দ্বীপকে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোস দ্বীপ হিসেবে ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিনকে পরাক্রম দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। পাশাপাশি ২৬ শে জানুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবসের সাথে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিনকে সংযুক্ত করার জন্য বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। ইন্ডিয়া গেটে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর স্ট্যাচু উন্মোচন করা হয়েছে বলে জানান মু্খ্যমন্ত্রী। ২৩ জানুয়ারি পালন একটা ঐতিহ্যের বিষয়।

এই দিনটির জন্য সমগ্র আগরতলাবাসী অপেক্ষা করে থাকে। ২৩ জানুয়ারি উপলক্ষ্যে নেতাজি সুভাষ বিদ্যানিকেতনের শোভা যাত্রা দেখতে সকাল থেকে রাস্তার পাশে মানুষ অপেক্ষা করতে থাকে। নেতাজি সুভাষ বিদ্যানিকেতনের জন্য একটা গৌরব ও আনন্দের বিষয় বলা চলে। এদিন শোভাযাত্রাটি পোস্ট অফিস চৌমুহনি, প্যারাডাইস চৌমুহনি, আই.জি.এম চৌমুহনি, ওরিয়েন্ট চৌমুহনি, কামান চৌমুহনি, নেতাজি কর্নার, নেতাজি চৌমুহনি হয়ে স্কুল প্রাঙ্গনে এসে শেষ হয়।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য