Sunday, March 3, 2024
বাড়িরাজ্যপিস্তল উচিয়ে শাসক দলের কর্মসূচি বানচাল

পিস্তল উচিয়ে শাসক দলের কর্মসূচি বানচাল

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ৮ জানুয়ারি : পিস্তল উচিয়ে শাসক দলের কর্মসূচি বানচাল করার চেষ্টা দুর্বৃত্তদের। ঘটনা পশ্চিম আগরতলায় থানার অন্তর্গত ৪ বড়জলা বিধানসভা কেন্দ্রের উষা বাজার বিন পাড়া এলাকায়। এই অভিযোগটি তুলেছেন বড়জলা মণ্ডল সদস্য সঞ্জীব চক্রবর্তী। তিনি বলেন এলাকায় বস্ত্র বিতরণ এবং যোগদান কর্মসূচি উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। এই কর্মসূচি নেওয়ার পর দুর্বৃত্তরা ফোনে আবার কখনো সামনে এসে পিস্তল উচিয়ে হুমকি দিয়ে চলেছে।

এর হুমকির মুখে পড়েছে এলাকার বিজেপি কর্মী চন্দন চক্রবর্তী এবং শক্তি কেন্দ্রের ইনচার্জ সুকান্ত দাস সহ বেশ কয়েকজন। এ বিষয় নিয়ে যুব মোর্চার সভাপতি সুশান্ত দেবের কাছে রবিবার যাওয়ার পরেও আবার ফোন করে প্রাননাশের হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ তাদের। এবং তাদের সময়সীমাও বেঁধে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। যারা এইভাবে হুমকি দিচ্ছে তারা স্থানীয় একটি ক্লাবের সদস্য বলে জানান। অভিযুক্তদের নাম রাজু বর্মন, রাকেশ বর্মন, প্রভাকর ঘোষ, দেবব্রত বর্মন। অভিযুক্তদের আতঙ্কে শাসক দলের কর্মীরা এখন এলাকা ছাড়া হচ্ছে। তারা কোনভাবেই নিরাপত্তা পাচ্ছে না।

সরকার তাদের হলেও কোন ধরনের সহযোগিতা মিলছে না এমনটাই স্পষ্ট ইঙ্গিত দিলেন হতাশাগ্রস্থ শাসক দলের কর্মীরা। তবে যারা এই ঘটনার সাথে মূলত জড়িত তারা কোন দলের সদস্য সে বিষয় নিয়ে মুখ খুলতে চায়নি অভিযোগকারীরা। এদিকে সোমবার বড়জলা বিধানসভা কেন্দ্রের বিন পাড়া এলাকায় বস্ত্রদান ও যোগদান সভার আয়োজন করা হয়। এই বস্ত্রদান ও যোগদান সভায় উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন বিধায়ক ডাক্তার দিলিপ দাস, কর্পোরেটর শর্মিষ্ঠা বর্ধন সহ অন্যান্যরা। এইদিনের যোগদান সভায় ৭২ পরিবারের ২২৮ জন ভোটার সিপিআইএম দল ত্যাগ করে বিজেপি দলে যোগদান করে। সভায় উপস্থিত বিজেপি নেতৃত্বরা নবাগতদের বিজেপি দলে বরণ করে নেন। এইদিনের সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে প্রাক্তন বিধায়ক ডাক্তার দিলিপ দাস বলেন বিগত ৩০ থেকে ৩৫ বছরে বড়জলা বিধানসভা এলাকায় যে কাজ হয়েছে, বিজেপি সরকার প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর ৫ বছরে তার থেকে অধিক কাজ হয়েছে। আগামি তিন চার মাসের মধ্যে বড়জলা বিধানসভা এলাকার চিত্র আরও পাল্টে যাবে বলে দাবি করেন তিনি।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য