Wednesday, June 12, 2024
বাড়িরাজ্যসামাজিক মাধ্যমে এসে সরকারকে আক্রমণ করলেন প্রদ্যোত

সামাজিক মাধ্যমে এসে সরকারকে আক্রমণ করলেন প্রদ্যোত

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২৩ মে : বহু কর্মী তিপ্রা মথা ছেড়ে বিজেপি -তে যোগ দিতে চাইছে। কারণ বিজেপিতে না গেলে তাদের রেগার কাজ এবং চাকরি মিলবে না। যারা ক্ষমতায় বসে এভাবে কর্মীদের প্রলোভন দেওয়ার চেষ্টা করছে, তারা সরকার নয়, তারা দালাল। এই বিষয়টি দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দেখা দরকার। গত বিধানসভায় নির্বাচনে ৬১ শতাংশ ভোট বিজেপির বিরুদ্ধে মানুষ প্রদান করেছে।

তাহলে কি এই ৬১ শতাংশ মানুষ বাদ দিয়ে রাজ্য চালাতে পারবে বর্তমান সরকার ?  মঙ্গলবার সামাজিক মাধ্যমে এসে বর্তমান সরকারকে উদ্দেশ্য করে এভাবেই কামান দাগলেন তিপ্রা মথার সুপ্রিমো প্রদ্যোত কিশোর দেববর্মন। তিনি বলেন, তিপ্রা মথার মূল দাবি গ্রেটার তিপরাল্যান্ড এবং সাংবিধানিক অধিকার। কেউ যদি ব্যক্তিগত স্বার্থের জন্য শাসক দলে চলে যেতে চায়, তাহলে যেতে পারেন। কিন্তু মৃত্যু পর্যন্ত তিনি জনজাতিদের গ্রেটার তিপরাল্যান্ড এবং সাংবিধানিক অধিকারের জন্য লড়াই করবেন। এদিন প্রদ্যোত উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, ত্রিপুরা রাজ্যে খুব খারাপ বাতাবরণ তৈরি হচ্ছে। কিছু রাজনীতি সাথে জড়িত লোকেরা বোবাগ্রাকে খতম করতে চাইছে। তার জন্য প্রতিদিন বিভিন্ন কথা রুটিয়ে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। সেসব ষড়যন্ত্রকারীরা ভালো করেই জানে যতক্ষণ না পর্যন্ত বোবাগ্রা খতম হবে ততক্ষণ পর্যন্ত জনজাতিদের থানসা ভাঙবে না।

 কিন্তু তারা জানেন না এটা তিপ্রা মথা, সিপিআইএম এবং কংগ্রেসের লড়াই নয়। এবং এ লড়াই তাদের মতো আগামী দিনের বেশি অর্থ উপার্জন করে ভবিষ্যৎ সুরক্ষা করার লড়াই নয়। এ লড়াই জনজাতিদের অধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার লড়াই বলে জানান এদিন প্রদ্যোত। সামাজিক মাধ্যমে তিনি এই দিন সরকারের সমালোচনা করে বলেন, নমুনা বানিয়ে তিপ্রাসাদের মিউজিয়াম দেখানো, নির্বাচনের সময় আসাম থেকে মুখ্যমন্ত্রী এসে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার আশ্বাস দেওয়া এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ইন্টারলুকেটার নিয়োগ করার নোটিফিকেশন বের করা হচ্ছে। পরবর্তী সময়ে দেখা যায় ইন্টারলুকেটার রাজ্যে আসেন না। এবং বিভিন্নভাবে অজুহাত দেখানো হচ্ছে। এ বিষয়ে প্রদ্যুৎ আরো মুখ খুলে বলেন, নির্বাচনের আগে তিনি সাংসদদের পদ সহ বিভিন্ন অফার পেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি পয়সা রোজগারের জন্য রাজনীতিতে আসেননি বলে জানান এই দিন। এডিসির বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে তিনি বলেন, এডিসিতে তিপ্রা মথাকে কি জনতা বেছে নেয় নি? অধিকারের জন্য গেলে দরজা বন্ধ করে দিচ্ছে দিল্লি! কিন্তু এর জন্য ভিক্ষা চাইবেন না। আন্দোলন করে লড়াই করে যাবেন বলে জানান প্রদ্যোত। পাশাপাশি নির্বাচনের লড়াই প্রসঙ্গে এদিন শ্রী দেববর্মন বলেন তিনি চেয়েছিলেন বিধানসভায় একত্রিশ জন জনজাতি বিধায়ক নির্বাচিত হওয়ার জন্য। তাই তিনি সাব্রুম বিধানসভার কেন্দ্রে জিতেন চৌধুরীর বিরুদ্ধে প্রার্থী দেননি গত বিধানসভা নির্বাচনে। সামাজিক মাধ্যমে প্রদ্যোত এদিন বিজেপির কার্যকরণী বৈঠকের এক হাত নিলেন। তিনি বলেন শাসক দলের কার্যকারিনী বৈঠকে তাদের সংগঠন কিভাবে মজবুত করা যায় সে বিষয়ে আলোচনা না করে শীর্ষ নেতৃত্ব প্রদ্যোত কিশোর দেববর্মণকে মহারাজা এবং বোবাগ্রা না বলার জন্য বলছেন। কিন্তু কারো ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে এভাবে আলোচনা করা ঠিক নয় বলে জানান তিনি।

 আরো বলেন, সেই কার্যকরী বৈঠকে জনজাতিদের নেতা থাকলেও তখন মুখ খুলেননি। এ ধরনের মন্তব্যের তীব্র নিন্দা করে প্রদ্যোত বলেন আর কত অসম্মান করবেন, বুবাগ্রা জনজাতিদের মনে আছে, তাতেই সন্তুষ্ট। এর জন্য কাউকে মহারাজা বলে ডাকতে হবে না। তবে অসম্মান অনেক হয়েছে। রাজ্যের অসম্মান হয়েছে, ত্রিপুরেশ্বরী মন্দিরের কিছু বাইরের অংশ ভাঙ্গা হয়েছে, উজ্জয়ন্ত প্রাসাদের সামনে সেলফি পয়েন্ট লাগানো হয়েছে, কিন্তু একটি মহারাজার মূর্তি উজ্জয়ন্ত প্রাসাদের সামনে বসানো হয়নি এবং আস্তাবল সরিয়ে রিভিউ -র ধান্দা করা হয়েছে। এবং বর্তমানে দেখা যাচ্ছে সি বি এস ই -র ককবরক পরীক্ষায় বাংলাতে লেখার জন্য ছাত্র-ছাত্রীদের বলা হচ্ছে। এর তীব্র নিন্দা করা হচ্ছে। সামাজিক মাধ্যমে এসে প্রদ্যোত কিশোর দেববর্মণ এদিন শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আকার ইঙ্গিতে শাসক দল বিজেপিকে আক্রমণ করার চেষ্টা করেছে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য