Wednesday, June 12, 2024
বাড়িরাজ্যপুলিশ অফিসারের বর্বরতায় হেনস্থা অসহায় পিতা

পুলিশ অফিসারের বর্বরতায় হেনস্থা অসহায় পিতা

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২৯ মার্চ :  সুষ্ঠু তদন্ত করে দূরের কথা, বরং ছেলেকে খুঁজে পাওয়ায় নিখোঁজ ডায়েরি করায় থানায় অসহায় পিতাকে আটক করে রাখল পুলিশ। এ ধরনের অমানবিকতার এবং বর্বরতার পরিচয় দিল বিশালগড় থানার পুলিশ। এমনটাই মনে করছে বিশালগড়বাসী। ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গত ২৩ মার্চ বিশালগড় থানার অন্তর্গত ২ নং গৌতম নগর এলাকার বাসিন্দা নারায়ণ শুক্ল দাস বিশালগড় থানায় ছেলে গোবিন্দ শুক্ল দাসের নামে মিসিং ডাইরি করেন। থানায় মিসিং ডাইরি করার পর মামলার তদন্তকারি অফিসার সাব-ইন্সপেক্টর সুমন উল্লাহ কাজী তদন্ত করতে গিয়ে জানতে পারেন গোবিন্দ শুক্ল দাস একই এলাকার এক বিবাহিত মহিলাকে সন্তান সহ নিয়ে অন্যত্র পালিয়ে গেছে।

 গোবিন্দ ও সেই মহিলার মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে প্রণয় ঘটিত সম্পর্ক ছিল। এই নিয়ে গোবিন্দ শুক্ল দাসের পরিবার থেকে সেই মহিলাকে অনেকবার সতর্ক করা হয়েছিল। মামলার তদন্তকারি অফিসার গোটা বিষয়টি জানার পর পুলিশকে ভুল তথ্য দিয়ে হয়রানি করার অভিযোগে গোবিন্দ শুক্ল দাসের পিতা নারায়ন শুক্ল দাসকে আটক করেন। যদিও নারায়ন শুক্ল দাসের বক্তব্য তার ছেলে গোবিন্দ দাস অপর এক মহিলাকে নিয়ে পালিয়ে গেছে বিষয়টি প্রথমে জানা ছিল না। সেদিন তার মা-বাবাকে চাকরির ইন্টারভিউ দিতে যাচ্ছে বলে বাড়ি থেকে বের হয়েছে। পরবর্তী সময় তিনি বিষয়টি জানতে পেরেছেন। মূলত কেউ যখন থানায় মামলা দায়ের করতে যায় বা অভিযোগ জানাতে যায় তখন সেই ব্যক্তি কোন একটি বিষয়ের উপর ধারণা করে পুলিশকে বিস্তারিত বলেন। যাতে পুলিশে তদন্ত করতে সুবিধা হয়।

 কিন্তু পুলিশ অফিসারের এ কেমন বর্বরতা জন সম্মুখে উঠে এসেছে সেটা ভাবিয়ে তুলেছে আমজনতাকে। কারণ থানার একাংশ বাবুদের এ ধরনের বর্বরতা থানার দরজার বন্ধ করে দিচ্ছে বলে মনে করছে সাধারণ মানুষ। যাতে করে মানুষ থানায় পা রাখতে দু-একবার ভাবতে হয়। কিন্তু পুলিশ বাবুরা ভুলেই গেছেন প্রতিমাসে তাদের মোটা অংকের বেতন হয় আমজনতার করের টাকায়। এ ধরনের বর্বরতার মূলক ঘটনা রাজ্যে নজির বিহীন হলেও বর্তমানে ঘটে চলেছে। যা মানুষের মনেও দাগ কাটতে পারে। এধরনের ঘটনার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের আধিকারিকরা কতটা খতিয়ে দেখবে সেটাই এখন বড় বিষয়।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য