Monday, February 6, 2023
বাড়িরাজ্যথানসা থানসা বলে গ্রেটার তিপরাল্যান্ডের কথা বলছে, আসল সমস্যা সমাধান করছে না...

থানসা থানসা বলে গ্রেটার তিপরাল্যান্ডের কথা বলছে, আসল সমস্যা সমাধান করছে না : সুদীপ

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ৯ জানুয়ারি : টাকা চুরি করে নিজে কিছু রেখে বাকিটা দিল্লিতে পাঠানোর বিদ্যাটা কংগ্রেসের নেই। কংগ্রেস সৎপথে রাজনীতি করে বলে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ -কে আক্রমণ করতে পারে কংগ্রেস।

এর জন্য কংগ্রেসের নেতাদের পেছনে সি বি আই, ই ডি, ইনকাম ট্যাক্স লাগলেও কিছু পায় না। সোমবার ৪৮ করমছড়া ব্লক কমিটি উদ্যোগে কর্মী ও যোগদান সভায় বক্তব্য রেখে এভাবেই বিজেপি নেতাদের কাঠ গড়ায় দাঁড় করালেন বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মন। তিনি আরো বলেন, দিবাচন্দ্র রাঙ্খলের মতো অন্যান্য বিজেপি নেতারা কংগ্রেসে আসতে চাইছে। কিন্তু তাদের আবেদন নাকচ করে দিয়েছে কংগ্রেসে। বিজেপির এই নেতারা কংগ্রেসে আনা মানে সুন্দর দলের মধ্যে পচার গন্ধ বের হবে। কারণ এ বিজেপি নেতারা চোর, ডাকাত। তারা লুটে নিয়েছে সরকারি সম্পদ। তারা বিভিন্ন গ্রহের প্রাণী।

 যারা কংগ্রেস থেকে গিয়েছিল তাদের ভালোবাসা বুঝেনি তারা। এবং কংগ্রেস থেকে আমরা বিশ্বাস নিয়ে গিয়েছিলাম। দেখা গেছে বিজেপির নেতারা নিজের ছায়াকে বিশ্বাস করেন না। এই বিজেপি সরকারকে পরাজিত করতে সকলকে এক মঞ্চে আসতে হবে। সেটা যে কোন দলই হোক না কেন, এককভাবে জয়ী হওয়া সম্ভব নয়। এক মঞ্চে আসলে বিজেপি পরাজিত হবে বলে জানান তিনি। বিজেপি দলের আইন-শৃঙ্খলা নিয়ম নীতি কিছু ঠিক নেই। যার ফলে আজ গোটা রাজ্য নেশা ডুবে আছে। এদিন জনজাতিদের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, বিগত দিনে করমছড়া বিধানসভা কেন্দ্রে বিভিন্ন আঞ্চলিক দল মাথা চাড়া দিয়েছে। জনজাতি মানুষ এই আঞ্চলিক দলগুলির আবেগে গা বাসিয়ে দেয়। কিন্তু কংগ্রেস দল জনজাতিদের আবেগ নিয়ে খেলতে চায় না। ২০১৮ সালে আগে তিপরাল্যান্ড, তিপরাল্যান্ড বলে ক্ষমতায় বসে আই পি এফ টি। এখন আবার নতুন করে সংযোজন করেছে থানসা। থানসা থানসা বলে গ্রেটার তিপরাল্যান্ডের কথা বলছে, আসল সমস্যা সমাধান করছে না। আসল সমস্যা জনজাতি এলাকায় রাস্তাঘাট নেই, পানীয় জল নেই, জনজাতিরা শিক্ষার দিকে পিছিয়ে গেছে। কলেজ নেই। রাজ্যের প্রধান শাসক দলের শরিক হয়ে ক্ষমতায় আসা আই পি এফ টি দলের প্রধান মুখ এন সি দেববর্মা এবং মেবার কুমার জমাতিয়া কি করতে পেরেছেন জনজাতিদের জন্য তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেন তিনি। আরো বলেন যারা জনজাতিদের জন্য নগ্ন হয়ে বড়মুড়ায় রাস্তা অবরোধ করেছিল, তারা যখন ক্ষমতা পেল তখন পাঁচ বছরে কি পেল জনজাতিরা। এভাবেই সমালোচনার ঝড় তুলেন সুদীপ রায় বর্মন। সাঙ্গা লুসাই, উদয় ত্রিপুরার নেতৃত্বে ১৫২ পরিবারের ৭১৬ জন ভোটার বিভিন্ন রাজনৈতিক দল থেকে কংগ্রেসের যোগদান করেছে। তাদের উদ্দেশ্যে বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মন আরো বলেন, অধিকারের জন্য আসল লড়াই কংগ্রেস লড়তে জানে। বিজেপির মতো কংগ্রেসের কাছে বাইক বাহিনী, হেলমেট বাহিনী এবং বিভিন্ন অস্ত্র নেই। কিন্তু কংগ্রেসে কাছে তিনটি অস্ত্র রয়েছে। এগুলি হলো কংগ্রেস মানুষকে ভালবাসতে জানে, মানুষকে বিশ্বাস করতে জানে এবং সম্মান প্রদর্শন করতে জানে। আর এই তিনটি অস্ত্র নিয়ে ত্রিপুরাতে কংগ্রেস জয়ী হবে। নারী, ছাত্র, যুব সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। আগামী যুদ্ধ জয়ী হতে হবে। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এই কথা বললেন বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মন। আয়োজিত সভায় এদিন এছাড়া উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন বিধায়ক আশীষ কুমার সাহা, দিবাচন্দ্র রাঙ্খল সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য