Saturday, December 3, 2022
বাড়িরাজ্যলাঠিপেটা করে দশমী কলঙ্কিত করল কুমারঘাট থানার পুলিশ, আহত ৮

লাঠিপেটা করে দশমী কলঙ্কিত করল কুমারঘাট থানার পুলিশ, আহত ৮

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ৮ অক্টোবর :   উপর থেকে নির্দেশ পেয়ে ওসি বাবু হয়ে গেলেন মহিষাসুর। একদিকে দেবী নিরঞ্জন অপরদিকে পুরুষ পুলিশ দিয়ে লাঠিপেটা করল কুমারঘাট থানার পুলিশ ও টি এস এর বাহিনী। উল্লেখ্য, দশমী মেলাতে সাধারন মানুষকে টি এস আর দিয়ে বেধড়ক পেটালো কুমারঘাট থানার ওসি পার্থ মুন্ডা। বিষয়টি অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার এবং মহকুমা পুলিশ আধিকারিককে জানিয়ে বিচার না পেয়ে রাতেই জাতীয় সড়ক অবরোধ বসে আহত ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে স্থানীয়রা। ঘটনা নিয়ে উত্তেজনা কুমারঘাট শহরে।

বিজয়া দশমীর অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে প্রতিবছরের মতো মেলা বসে। পথচলতি সাধারন মানুষ এবং বাজার ব্যাবসায়ী সকলেই এদিন আনন্দে মাতোয়ারা ছিল। প্রতিবছরের মতো কুমারঘাট শহরে এই ঐতিহ্যবাহী দশমী মেলা শুরু হওয়ার পর ধীরে ধীরে বিভিন্ন ক্লাব মূর্তি নিয়ে জমায়েত হতে শুরু করে। গড়ে উঠেছিল এক উৎসবের পরিবেশ। কিন্তু আচমকা কুমারঘাট থানার ওসি টিএসআর দিয়ে দশমীতে আসা সাধারণ পুরুষ মহিলা থেকে শুরু করে শিশু বৃদ্ধ সকলের উপর হামলে পড়ে। পুলিশের অতর্কিত লাঠি আঘাতে গুরুতর আহত হয় ৮ জন। সবচেয়ে আশ্চর্যজনক বিষয় হলো পুরুষ পুলিশ দিয়ে মহিলাদের পেটানো করা হয়। মহিলা পুলিশ থাকার পরেও তাদের ভূমিকা ছিল নির্বিকার। ঘটনায় ক্ষোভের আগুনে পুড়ছে গোটা কুমারঘাট। বিনা অপরাধে মার খেয়ে কোনো বিচার না পেয়ে অবশেষে শুক্রবার রাতে কুমারঘাটে জাতীয় সড়ক আবরোধ করলো আক্রান্তরা।

পরিস্থিতি সামলা দিতে ছুটে আসে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার। আক্রান্ত ব্যবসায়ীরা এবং স্থানীয় জনগণ দাবি জানায় কি কারণে থানার ওসি পার্থ মুন্ডা এ ধরনের কীর্তি কান্ড এলাকায় ঘটিয়ে শারদ উৎসবকে কলঙ্কিত করেছে তার সুস্পষ্ট জবাব দিতে হবে। পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের ক্ষতিপূরণ সহ আহত দের চিকিৎসার ভার বহন করতে হবে। এবং এই ওসি বাবুকে ইতিমধ্যেই চাকরি থেকে বরখাস্ত করতে হবে। এমনকি স্থানীয়রা সংশয় প্রকাশ করে বলেন ওসি বাবু স্থানীয় কোন জনপ্রতিনিধির নির্দেশে এই কাণ্ডকারখানা করে দশমী কলঙ্কিত করেছেন। কিন্তু অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার কোন সদুত্তর দিতে পারেনি ঘটনাস্থলে।

শেষ পর্যন্ত কোনো বিচার না পেয়ে অবশেষে শুক্রবার রাতে কুমারঘাটের নেতাজী চৌমুনিতে আসাম-আগরতলা জাতীয় সড়ক অবরোধ করে আক্রান্ত ব্যবসায়ী থেকে সাধারন মানুষ। যদিও পরবর্তী সময় বিষয়টি উদ্বোধন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হবে বলে আশ্বস্ত করেছেন ঘটনাস্থলে উপস্থিত পুলিশ অধিকারিক। তারপর পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে এলাকায় ক্ষোভ বিস্তার লাভ করছে। ইতিমধ্যেই যদি কোন ব্যবস্থা না নেওয়া হয় তাহলে আবারো জাতীয় সড়ক অবরোধ করতে পারে স্থানীয়রা।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য