Tuesday, October 4, 2022
বাড়িরাজ্যরাজ্যে বৃদ্ধি পেয়েছে দুধ, ডিম ও মাংস উৎপাদন : মন্ত্রী ভগবান

রাজ্যে বৃদ্ধি পেয়েছে দুধ, ডিম ও মাংস উৎপাদন : মন্ত্রী ভগবান

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১২ আগস্ট :  গত সাড়ে চার বছরে পশুপালন দপ্তর যথেষ্ট সাফল্য অর্জন করেছেন। দুগ্ধ উৎপাদনের দিকে সফল প্রাণী সম্পদ বিকাশ দপ্তর। ২০১৭-১৮ সালে মাথাপিছু দুগ্ধ উৎপাদন হয়েছে ১২০ গ্রাম। ২০১৮-১৯ সালে রাজ্যে মাথাপিছু দুগ্ধ উৎপাদন হয়েছে ১২৯ গ্রাম। ২০১৯-২০ সালে রাজ্যে মাথাপিছু দুগ্ধ উৎপাদন হয়েছে ১৩৬.৩৯ গ্রাম। ২০২০-২১ সালে রাজ্যে মাথাপিছু দুগ্ধ উৎপাদন হয়েছে ১৪১.১৫ গ্রাম। ২০২১-২২ সালে রাজ্যে মাথাপিছু উৎপাদন হয়েছে ১৪৭.০৮ গ্রাম। করোনাকালে সবকিছু স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল। তারপরও রাজ্যের উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখার জন্য চেষ্টা জারি রাখা হয়েছে।

ডিম উৎপাদনের ক্ষেত্রেও সাফল্য পেয়েছে দপ্তর। ২০১৭-১৮ সালে রাজ্যে প্রতি বছর মাথাপিছু ডিম উৎপাদন হয়েছে ৬৭ টি। ২০১৮-২০১৯ সালে রাজ্যে প্রতি বছর মাথাপিছু ডিম উৎপাদন হয়েছে ৭০ টি। ২০১৯-২০ সালে রাজ্যে প্রতি বছর মাথাপিছু ডিম উৎপাদন হয়েছে ৭৪ টি। ২০২০-২১ সালে রাজ্যে প্রতি বছর মাথাপিছু ডিম উৎপাদন হয়েছে ৭৬ টি। ২০২১-২০২২ সালে রাজ্যে প্রতি বছর মাথাপিছু ডিম উৎপাদন হয়েছে ৭৯ টি। ডিম উৎপাদন বৃদ্ধি করার জন্য নতুন করে পলিসি গ্রহণ করা হয়েছে। সেই কাজও শুরু হয়েছে। রাজ্যে ডিমের যে চাহিদা রয়েছে তা রাজ্যে উৎপাদনের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। শুক্রবার মহাকরণে সাংবাদিক সম্মেলন করে প্রানি সম্পদ বিকাশ দপ্তরের সাড়ে চার বছরের সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরতে গিয়ে এমনটা বলেন মন্ত্রী ভগবান চন্দ্র দাস। মাংস উৎপাদনের ক্ষেত্রেও সাফল্য পেয়েছে প্রানি সম্পদ বিকাশ দপ্তর। ২০১৭-১৮ সালে রাজ্যে মাথা পিছু মাংস উৎপাদন হয়েছে ১১.৬৪ গ্রাম। ২০১৮-১৯ সালে রাজ্যে মাথা পিছু মাংস উৎপাদন হয়েছে ১২.১৮ গ্রাম। ২০১৯-২০ সালে রাজ্যে মাথা পিছু মাংস উৎপাদন হয়েছে ১২.৮৩ গ্রাম।২০২০-২১ সালে রাজ্যে মাথা পিছু মাংস উৎপাদন হয়েছে ১৩ কেজি। ২০২১-২২ সালে রাজ্যে মাথা পিছু মাংস উৎপাদন হয়েছে ১৩.৪০ গ্রাম। মাংস উৎপাদন বৃদ্ধি করার জন্য পুরানো পদ্ধতির পরিবর্তন করে নতুন পদ্ধতি গ্রহণ করা হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী ভগবান চন্দ্র দাস। সাংবাদিক সম্মেলন মন্ত্রী ভগবান চন্দ্র দাস আরও জানান পশু পালন দপ্তরের একাধিক প্রকল্প রয়েছে। পশু পালকদের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার থেকে বিভিন্ন ধরনের প্রকল্প ও আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়েছে। সাংবাদিক সম্মেলনে মন্ত্রী ভগবান চন্দ্র দাসের সাথে উপস্থিত ছিলেন প্রানি সম্পদ বিকাশ দপ্তরের বিশেষ সচিব টিকে দেবনাথ এবং দপ্তরের অধিকর্তা দিলীপ কুমার চাকমা।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য